Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:১৬
বাসচালকের যাবজ্জীবন
বেপরোয়া গাড়ি চালকদের সুমতি হোক

মানিকগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নন্দিত চলচ্চিত্রকার তারেক মাসুদ ও সাংবাদিক মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহত হওয়ার মামলায় আদালত বেপরোয়া বাসচালক জমির হোসেনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে। দেশের ইতিহাসে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানির দায়ে এই প্রথম কোনো গাড়িচালককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হলো।

আদালত একই সঙ্গে আসামিকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও তিন মাসের কারাদণ্ড এবং দুর্ঘটনার ক্ষয়ক্ষতির দায়ে দণ্ডবিধির ৪২৭ ধারার অপরাধে দুই বছরের কারাদণ্ড, দুই হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক মাসের কারাদণ্ডে দণ্ডিত করেছে। রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে চলচ্চিত্রকার তারেক মাসুদের স্ত্রী ক্যাথরিন মাসুদ বলেছেন, এ রায় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। মিশুক মুনীরের স্ত্রী মঞ্জুলী কাজীও রায়ের বিষয়ে অভিন্ন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। ঘাতক বাসের চালক জমিরকে মৃত্যুদণ্ড না দেওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করা হয়েছে তারেক মাসুদের ভাইয়ের পক্ষ থেকে। চলচ্চিত্র ও সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে গুণীজন হিসেবে বিবেচিত তারেক মাসুদ ও মিশুক মুনীর সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন প্রায় সাড়ে ৫ বছর আগে ২০১১ সালের ১৩ আগস্ট। কাগজের ফুল ছবির শুটিং স্পষ্ট দেখে ঢাকা ফেরার পথে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের জোকা এলাকায় তারেক মাসুদ ও মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহত হন, আহত হন আরও তিনজন। সড়ক দুর্ঘটনার মামলায় ঘাতক বাসের চালক জমির হোসেনকে অভিযুক্ত করে পুলিশ যে চার্জশিট দেয় তাতে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের শিকার হতে হলো বেপরোয়া গতির বাসচালককে। সন্দেহ নেই, কোনো গাড়ি চালক ইচ্ছাকৃতভাবে সাধারণত কোনো দুর্ঘটনা ঘটান না। কিন্তু চালকদের একাংশের বেপরোয়া মনোভাব যে একের পর এক দুর্ঘটনার জন্য দায়ী এটি একটি প্রমাণিত বিষয়। প্রতি বছর দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু হলেও এ জন্য শাস্তি ভোগের ঘটনা বিরল বিষয়। দেশের ইতিহাসে এই প্রথম সড়ক দুর্ঘটনার দায়ে কাউকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হলো। একজন চালকের বেপরোয়া গাড়ি চালনার পরিণতিতে দেশ হারালো একজন প্রথিতযশা চলচ্চিত্রকার ও একজন নিবেদিতপ্রাণ সাংবাদিককে। একসঙ্গে পাঁচটি জীবনের অবসান ঘটানোর পাশাপাশি ঘাতক বাসচালক নিজের জীবন এবং পরিবারের সদস্যদেরও ঠেলে দিয়েছেন অনিশ্চয়তার অন্ধকারে। বেপরোয়া গাড়ি চালকরা এ রায়ে সতর্ক হবেন এবং তাদের সুমতি ফিরে আসবে এমনটিই প্রত্যাশিত।

up-arrow