Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০৯
ভোগান্তির পরিবহন ধর্মঘট
দুধ ও তামাক একসঙ্গে খাওয়ার বিড়ম্বনা

জনভোগান্তি সৃষ্টিকারী পরিবহন ধর্মঘট অবশেষে প্রত্যাহার করা হয়েছে। আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে তাণ্ডব সৃষ্টি করে যে অর্বাচীনরা মানুষ খুনের অধিকার প্রতিষ্ঠায় উঠেপড়ে লেগেছিলেন তারা শর্তহীনভাবেই পিছটান দিয়েছেন।

মানুষের যাতায়াতের অধিকার নিশ্চিত করা এবং শান্তিশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখা সরকারের কর্তব্যের মধ্যে পড়ে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি পরিবহন ধর্মঘটে সরকারের ভিতরে থাকা একটি মহল ইন্ধন জুগিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ অভিযোগ এতই স্পষ্ট যে, তা পাশ কাটানো সত্যিকার অর্থেই দুষ্কর। বিচার বিভাগ রাষ্ট্রের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। বর্তমান সরকার বিচার ব্যবস্থার স্বাধীনতার প্রতি অঙ্গীকারবদ্ধ বলে দাবিও করে। কিন্তু তাজ্জবের কথা, সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট এবং তাদের বিব্রতকর অবস্থায় ঠেলে দিয়েছে যে পরিবহন ধর্মঘট তার কলকাঠি নাড়া হয়েছে নিজেদের মধ্য থেকে। পরিবহন শ্রমিকদের বিগবস বলে পরিচিত যিনি তিনি সরকারেরই একজন প্রভাবশালী মন্ত্রী। জ্বালাও, পোড়াও, রক্তপাতের পর ধর্মঘট প্রত্যাহারও হয়েছে মন্ত্রী পদে আসীন শ্রমিকদের বিগবসের ঘোষণায়। দেশের সংবিধান শ্রমিকসহ নাগরিকদের ধর্মঘট পালনের অধিকার দিয়েছে। তবে এ অধিকার অবারিত নয়। আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে ধর্মঘট ডাকার অধিকার বাংলাদেশ তো বটেই দুনিয়ার কোনো দেশে দেওয়া হয়নি। মানুষ খুনের অধিকার প্রতিষ্ঠায় যারা ধর্মঘট ডাকেন তারা মনুষ্য সত্তার অংশ কিনা সে প্রশ্ন উদয় হওয়াও স্বাভাবিক। দুই দিনের পরিবহন ধর্মঘটের নামে সৃষ্ট তাণ্ডবে একজন নিহত ও বিপুলসংখ্যক মানুষ আহত হয়েছে। দেশের অর্থনীতির জন্য বিসংবাদের পাশাপাশি জনজীবনে তা যে দুর্ভোগ বয়ে এনেছে তার কোনো তুলনা নেই। পরিবহন শ্রমিকদের বিগবস সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী ধর্মঘটের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন এবং বলেছেন, এটি কোনো সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত ছিল না। আমরা তার এ বক্তব্য সম্পর্কে কোনো মন্তব্য করতে চাই না। দুধ ও তামাক একসঙ্গে খাওয়ার অসঙ্গতি যে মন্ত্রী প্রবরকেও বিব্রতকর অবস্থায় ফেলেছে তা কারোরই বুঝতে কষ্ট হওয়ার কথা নয়।   বিষয়টি সরকারের জন্যও সমভাবে বিব্রতকর। ইতিমধ্যে হাই কোর্ট রুল জারি করেছে আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে হরতাল অবরোধ বা ধর্মঘট ডাকা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না। ভবিষ্যতে এ ধরনের বিব্রতকর অবস্থার পুনরাবৃত্তি রোধে দুধ ও তামাক খাওয়ার অবিমৃষ্যকারিতা থেকে সরকার সংশ্লিষ্টদের বিরত রাখা হবে এমনটিই প্রত্যাশিত।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow