Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : রবিবার, ৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৪ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৩৫
ধর্মতত্ত্ব
হজরত হাসান বসরির সুফিয়ানা জীবন
মাওলানা সেলিম হোসাইন আজাদী
হজরত হাসান বসরির সুফিয়ানা জীবন

উম্মুল মোমেনিন হজরত উম্মে সালমা (রা.)-এর মন আজ বেশ ফুরফুরে। একটু আগেই খবর এসেছে তার দাসী ‘খায়রাহ’র পুত্র সন্তান হয়েছে।

  নবজাতককে দেখার আগ্রহ উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তু খায়রাহর কোনো খবর নেই। এখনো আসছে না কেন খায়রাহ- ভাবতে না ভাবতেই সদ্যভূমিষ্ঠ শিশুকে নিয়ে হাজির হলেন খায়রাহ (রা.)। উম্মে সালমা (রা.)-এর কোলে নবজাতককে তুলে দিলেন দাসী খায়রাহ। উম্মুল মোমেনিন জিজ্ঞাসা করলেন, শিশুর নাম কী রাখবে বলে ঠিক করেছ? খায়রাহ বলল, এখনো কিছু ভাবিনি। ‘তাহলে আমি এর নাম রাখলাম আল হাসান’- বললেন উম্মে সালমা (রা.)। নবীপত্নীর আশীর্বাদধন্য এ হাসানই পরবর্তীতে হাসান আল বসরি নামে খ্যাতি লাভ করেন ইতিহাসের সোনালি পাতায়। মায়ের মতো বাবা ইয়াসিরও (রা.) ছিলেন বিখ্যাত সাহাবি হজরত জায়েদ বিন সাবিত (রা.)-এর দাস। এই দম্পতির কোলজুড়ে চাঁদের মতো ফুটফুটে হাসানের জন্ম হিজরির ২১ সনে। তখন মুসলিম জাহানের খলিফা ছিলেন হজরত ওমর ইবনে খাত্তাব (রা.)। হাসান (র.)-এর শৈশব কেটেছে উম্মে সালমা (রা.)-এর তত্ত্বাবধানেই। মা খায়রাহ যখন বাইরে যেতেন উম্মে সালমা (রা.) তখন হাসান (র.)-এর দেখাশোনা করতেন। শিশু হাসানের কান্না থামানোর জন্য প্রায় সময় নিজের দুধ পান করিয়েছেন উম্মুল মোমেনিন (রা.)। তাই উম্মে সালমা (রা.)-এর দুধসন্তান হওয়ার বিরল সৌভাগ্য অর্জন করেন তিনি। জাহেলি যুগে যে কয়জন পুরুষ-নারী লেখাপড়া জানতেন উম্মে সালমা (রা.) ছিলেন তাদের অন্যতম। আর হাদিস বর্ণনায় আয়শা (রা.)-এর পরই উম্মে সালমা (রা.)-এর স্থান। তাই বলা যায়, উম্মে সালমার তত্ত্বাবধানে বেড়ে ওঠা ছিল হাসান বসরির জ্ঞানতপস্যার হাতেখড়ি। ১৪ বছর পর্যন্ত উম্মুল মোমেনিন (রা.)-এর তত্ত্বাবধানে থাকার পর বাবা-মার সঙ্গে বসরায় গিয়ে সেখানেই তিনি বসতি স্থাপন করেন। এ কারণেই তাকে ‘হাসান বসরি’ বলা হয়। বসরায় যাওয়ার আগেই পবিত্র কোরআন হিফজ এবং আরবি ভাষার ওপর বিশেষ পাণ্ডিত্য অর্জন করেন তিনি। বসরায় থাকার সময় হাদিস শিক্ষার প্রয়োজনে অসংখ্যবার তিনি মক্কা-মদিনায় যাতায়াত করেন। তিনি যে সময় জন্মগ্রহণ করেছেন সে সময় রসুল (সা.)-এর সাহাবিদের বড় একটি জামাত জীবিত ছিল। যারা সরাসরি রসুল (সা.)-কে দেখে দীন শিখেছেন। এসব সাহাবি বিভিন্ন কেন্দ্রে দীন দীক্ষার কাজে নিয়োজিত ছিলেন। আর হাসান বসরি (র.) এসব পবিত্র প্রাণ থেকেই শরিয়ত এবং মারেফাতের দীক্ষা লাভ করেন। ইমাম মালেক (র.) বলেন, ‘মাসলা-মাসায়েলের ব্যাপারে তোমরা হাসান বসরিকে জিজ্ঞাসা কর। কারণ, সে ইলম সংরক্ষণ করেছে, আর আমরা ভুলে গেছি। হাসান আল বসরি (র.) একাধারে ছিলেন মুফাসসির, মুহাদ্দিস, ফকিহ, সাহিত্যিক এবং ওয়ায়েজ। তার ওয়াজ এবং বাগ্মিতার সুনাম-সুখ্যাতি দিকে দিকে ছড়িয়ে পড়ে। তার ভাষা ছিল মাধুর্যপূর্ণ, কথা ছিল সাহিত্যপূর্ণ, শব্দ ও উচ্চারণ ছিল শুদ্ধ। প্রখ্যাত ভাষাবিদ আবু আমর ইবনে আলা বলেছেন, ‘হাসান বসরির চেয়ে শুদ্ধভাষী আমি আর কাউকে দেখিনি। ’

(বুরুস আল বুসতানি : ৭/৪৪। ) ইমাম গাজ্জালি (র.) লেখেন, ‘মানুষের মধ্যে হাসান বসরিই ছিলেন কথার দিক দিয়ে নবীজীর কথার সঙ্গে সবচেয়ে বেশি সাদৃশ্যপূর্ণ এবং হেদায়াতের দিক থেকে সাহাবিদের সবচেয়ে কাছাকাছি। তাছাড়া ভাষার শুদ্ধতায় এবং স্পষ্ট উচ্চারণে তিনি ছিলেন একজন প্রাজ্ঞ মানুষ। ’ (আল-আ’লাম : ১/১০৬। ) হাসান বসরির সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হলো, তিনি ইলমে শরিয়তের পাশাপাশি ইলমে মারেফাতেরও ইমাম ছিলেন। যদিও মুহাদ্দিসগণের কাছে বিষয়টি প্রমাণিত নয়, কিন্তু ইলমে তাসাওফের ইমামগণ এ বিষয়ে একমত যে, হজরত আলী (রা.) থেকে ইলমে মারেফাতের সূক্ষ্ম ও গভীর জ্ঞানের উচ্চতর প্রশিক্ষণ নিয়েছেন তিনি। তাই তো মারেফাতের যত তরিকা আছে প্রায় সবকটিই হাসান বসরি হয়ে আলী (রা.)-এর সিলসিলায় রসুল (সা.) পর্যন্ত পৌঁছেছে। (সালাসিলি  আওলিয়া ইল্লাহ : ১৮, ৩১। ) শায়েখ ফরিদ উদ্দিন আত্তার, শায়েখ শিহাবুদ্দিন, আবু নাসের শাররাজসহ প্রথিতযশা সব সুফি হাসান বসরিকের ‘শায়খুল শুয়ুখ’ উপাধিতে ভূষিত করেছেন এবং তাদের লেখনীতে হজরত আলী (রা.) থেকে ফায়েজ হাসিলের বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে উল্লেখ করেছেন। (তাজকিরাতুল আওলিয়া : ১/৩২৪। ) হাসান আল বসরি (র.) ছিলেন আল-কোরআন এবং রসুল (সা.)-এর সুন্নাহের বাস্তব প্রতিকৃতি। দুনিয়াবিমুখ মুত্তাকি মানুষ বলতে যা বুঝায় তিনি ছিলেন তার জীবন্ত নমুনা। সাহাবি না হয়েও ঠিক সাহাবিদের মতো আমল এবং ইমানের অধিকারীর দিক থেকে হাসান বসরি ছিলেন সবচেয়ে এগিয়ে। ইমাম শাবী (র.) বলেন, ‘আমি আল্লাহর রসুলের ৭০ জন সাহাবির সাক্ষাৎ লাভে ধন্য হয়েছি। হাসান বসরি ছাড়া আর কাউকেই সাহাবিদের সঙ্গে অধিক সাদৃশ্যপূর্ণ পাইনি। ’ তৃতীয় শতাব্দীর অমুসলিম দার্শনিক সাবিত বিন কুররাহ বলেন, ‘হাসান বসরি হলেন উম্মতে মোহাম্মদির এমন এক ব্যক্তি, যাকে নিয়ে পুরো বিশ্বের মানুষই ঈর্ষা করতে পারে। ’ অনেক বেশি ইলমের অধিকারী হওয়ার কারণেই তিনি ধর্মের প্রকৃতি বুঝতে পেরেছেন। তাই ধর্মের নামে কোনো ভণ্ডামি বা লৌকিকতা তিনি পছন্দ করতেন না। তার সময়কার সুফিরা মোটা কাপড় ও দুনিয়াবিমুখ হয়ে চলতে পছন্দ করতেন। আর তিনি সুদর্শন পোশাক পছন্দ করতেন। এ বিষয়ে কেউ তাকে প্রশ্ন করলে তিনি বলতেন, মোটা কাপড়ে তাকওয়ার কিছু নেই, তাকওয়া থাকে অন্তরে। ইলম ও তাকওয়ার অতন্দ্র প্রহরী এ মহান মনীষী ৮৮ বছর বয়সে হিজরি ১১০ সনের এক জুমার রাতে মহান প্রভুর ডাকে সাড়া দিয়ে পরপারে পাড়ি জমান। তার মৃত্যুতে পুরো বসরা নগরী শোকপুরীতে পরিণত হয়।   জুমার নামাজের পর তার জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা এবং দাফন কাফনে বসরার প্রত্যেক পুরুষ অংশগ্রহণ করেছিল।

 

লেখক : বিশিষ্ট মুফাসসিরে কোরআন ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব

www.selimazadi.com

এই পাতার আরো খবর
up-arrow