Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৭ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৬ মার্চ, ২০১৭ ২৩:১৫
নামাজ ও শারীরিক উপকারিতা
মুফতি আমজাদ হোসাইন হেলালী
নামাজ ও শারীরিক উপকারিতা

আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেন, যারা অদৃশ্যে বিশ্বাস স্থাপন করে, নামাজ আদায় করে আমি যে রিজিক দিয়েছি তা থেকে ব্যয় করে। তোমার ওপর অবতীর্ণ কিতাব এবং তোমার আগে যেসব কিতাব অবতীর্ণ হয়েছে সেসবের ওপর যারা বিশ্বাস স্থাপন করে।

আর আখেরাতের ওপর বিশ্বাস স্থাপন করে। এসব লোক তাদের প্রতিপালকের পক্ষ থেকে সঠিক পথে রয়েছে এবং তারাই সফলতা লাভ করবে। (সূরা বাকারা : ৩-৫)। আলোচ্য আয়াতে ইমানের পর নামাজের কথা বলা হয়েছে। ধনী, গরিব, যুবক, বৃদ্ধ, নারী এবং পুরুষ সবার ওপর নামাজ ফরজ করা হয়েছে। নামাজ শ্রেষ্ঠতম ইবাদতের অন্যতম। পবিত্র কোরআনে বহু আয়াতে নামাজ আদায়ের ব্যাপারে জোর তাগিদ দেওয়া হয়েছে। কেয়ামতের দিন সর্বপ্রথম মহান রাব্বুল আলামিন বান্দাদের থেকে নামাজের হিসাব নেবেন। নামাজ যেহেতু প্রত্যেক আকেল, বালেগ, সুস্থ ও মোমেন ব্যক্তির জন্য অবশ্যই করণীয় আমল। তাই ছোটবেলা থেকে নামাজ আদায় করা হলে, নামাজিদের পরিবেশ দেখলে ও তাদের সঙ্গে উঠাবসা করলে নামাজ পড়ার একটা অভ্যাস গড়ে ওঠে। বড় হওয়ার পর তার থেকে আর নামাজ ছুটে যায় না। নামাজের মাধ্যমে মুমিন বান্দার কাছে সময়ের মূল্যায়ন বাড়ে। সে সময়কে কদর করতে শেখে। যার ভিতরে সময়ের কদর আছে তার ভিতরে বড় একটি গুণ অর্জিত হয়ে যায়। নামাজের কারণেই মুমিন বান্দা পবিত্রতা এবং পরিচ্ছন্নতার প্রতি গুরুত্বারোপ করে। পবিত্রতা ও পরিচ্ছন্নতা স্বাস্থ্য রক্ষার উপাদান। সুস্থতার জন্য পবিত্রতা ও পরিচ্ছন্নতা অত্যাবশ্যক। নামাজে কিয়াম, রুকু, সেজদা ও বৈঠক করা হয়। এর মাধ্যমে বান্দা মহান রাব্বুুল আলামিনের বড়ত্ব-মহত্ত্ব ঘোষণা করে প্রকৃত আবদিয়্যাত প্রকাশ করে। খালেকের কাছে নিজের সর্বস্ব উজাড় করে দেয়। দেহ-মন প্রশান্ত হয়। দেহের প্রতিটি জোড়ায় জোড়ায় স্পন্দন আসে। দেহ থেকে সব আলস্য ও দুর্বলতা দূর হয়ে যায়। মস্তিষ্ক কর্মক্ষম হয়ে ওঠে। মানুষের মধ্যে শোকর গুজারি এবং ইখলাসের বৈশিষ্ট্য সৃষ্টি হয়। এ কথাটি মুসলিম সমাজে সর্বজন স্বীকৃত যে, ইসলামে নামাজ একটি বুনিয়াদি আমল। নামাজের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত একজন খাদেমের পক্ষ থেকে তার মালিকের কাছে শোকর গুজারি এবং বিনয় প্রকাশের একটি সুন্দরতম দৃশ্য প্রকাশ পায়। নামাজের এ পবিত্রতম পথে একজন মানুষের চলা তাকে আল্লাহর কাছেবর্তী করে দেয়। নামাজের মাধ্যমে একজন মানুষ আল্লাহর খাঁটি বান্দা হতে পারে। পরকালে হিসাব-নিকাশ সহজ হয়, সব অশ্লীলতা ও খারাপ কাজ থেকে বিরত থাকা যায়, শারীরিক ভারসাম্যতা তৈরি হয়। রুহানি পরিতৃপ্ততা অর্জন হয়। মস্তিষ্কের প্রশান্তি আসে। নামাজ এমন একটি ইবাদত যা প্রত্যুষে আদায় করা হলে সকালের সব কল্যাণময়তা নিশ্চিত হয় এবং সারা দিন দেহ-মন সজিব ও উত্ফুল্ল থাকে। জোহর এবং আসরের নামাজ আদায় করলে আল্লাহর মহান হুকুম আদায় করার সঙ্গে সঙ্গে মনেপ্রাণে খোদাই তৃপ্তি আসে। মাগরিবের নামাজ আদায় করলে সারা দিনের কর্মময় দিন আল্লাহর একটি হুকুম আদায়ের মাধ্যমে শেষ হলো, এর একটি প্রশান্তি মনে জাগ্রত হয়। আর এশার নামাজ আদায় করে ঘুমাতে গেলে মনেপ্রাণে রাহাত অনুভূত হয়। কারণ ঘুমের অপর নাম মউত। আল্লাহর মহান হুকুম সালাত আদায় করে যখন বান্দা নিদ্রা যায় তখন নিদ্রা অবস্থায় তার ওপর আল্লাহর রহমত বর্ষিত হতে থাকে। দুনিয়ার সব মানুষ এ কথাটি স্বীকার করে যে, মানুষ হলো দেহ-মনের সমষ্টির নাম। একজন মানুষকে বাঁচতে হলে যেমনিভাবে তার দেহের খোরাক দরকার। খোরাক ছাড়া দেহ ঠিক থাকে না অনুরূপভাবে শান্তিময় জীবন পেতে হলে রুহের খোরাকেরও প্রয়োজন। আর রুহের খোরাক হলো নামাজ। মুুমিন ব্যক্তি নামাজ ছাড়া রুহানি শান্তি পায় না। আল্লাহর ইবাদত, জিকির ও নামাজই হলো রুহানি শান্তির একমাত্র খোরাক। দিনে তিন বেলা খাদ্য আহার দ্বারা যেমনিভাবে দেহকে সতেজ রাখা হয় অনুরূপ দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের মাধ্যমে রুহ তাজা থাকে। হজরত রসুলে আরাবি (সা.)-কে মহান রাব্বুল আলামিন মেরাজের রজনীতে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ উম্মতের জন্য হাদিয়াস্বরূপ দিয়েছিলেন এবং আল্লাহর পক্ষ থেকে ঘোষণা আসে যে, কোনো মুমিন বান্দা যদি দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ ওয়াক্ত মতো আদায় করে আল্লাহতায়ালা তাকে ৫০ ওয়াক্ত নামাজ পড়ার ছাওয়াব দান করবেন। (সুবহানাল্লাহ)। রসুল (সা.) আরও বলেন, যদি কারও বাড়ির সামনে একটি পুকুর থাকে, তখন দৈনিক ওই পুকুরে পাঁচবার গোসল করার মাধ্যমে গোসলকারীর শরীরে যেমনিভাবে কোনো ময়লা থাকতে পারে না অনুরূপ কোনো বান্দা দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ ওয়াক্ত মতো আদায় করলেও তার রুহে কোনো রুহানি রোগ থাকতে পারে না। প্রিয় পাঠক! আমরা দেহ-মনকে সুস্থ ও সতেজ রাখার জন্য কতই না সাধনা করি। অথচ নামাজ আল্লাহর এমন একটি ইবাদত যা আদায় করার মাধ্যমে দেহ-মনে শান্তি আসে ও সব দুশ্চিন্তা দূর হয়ে যায়। আসুন আমরা সঠিক ও সুন্দরভাবে নামাজ পড়ার সাধনা করি। নামাজের মধ্যে সূরা ফাতেহা বার বার পাঠ করা হয়, এ সূরার এক নাম সূরাতুস শেফা। সূরাটি নামাজির জন্য বিস্ময়কর প্রতিষেধক। এ সূরা মানুষের মনোজগতের দুঃখ, কষ্ট, দুশ্চিন্তা ও ক্লান্তি দূর করে দেয়। অনেক অভিজ্ঞ ও দীনদার ডাক্তার বলে থাকেন, নামাজ সব প্রকাশ্য ও গোপনীয় রোগের জন্য প্রতিষেধক। প্রতিদিন নিয়মিত নামাজ আদায় করলে আল্লাহর হুকুম আদায় করার সঙ্গে সঙ্গে শরীরে ভারসাম্যতা তৈরি হয়। রক্তে জমাটবদ্ধতা সৃষ্টি হয় না। ফলে হৃদরোগের সম্ভাবনা অনেক কমে যায়। মনস্তাত্ত্বিক রোগের চিকিৎসা হচ্ছে মনের শান্তি। আর মানসিক শান্তি আল্লাহর জিকির ও নামাজের মধ্যে নিহিত রয়েছে। নামাজ রুহানি ও মনস্তাত্ত্বিক পরিচ্ছন্নতা আনয়ন করে। মহান রাব্বুল আলামিন আমাদের সঠিকভাবে নামাজ আদায় করে নামাজের সব উপকার দ্বারা উপকৃত করুন।   আমিন।

লেখক : মুহাদ্দিস, মুফাসসির ও খতিব বারিধারা, ঢাকা।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow