Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৭ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৬ মার্চ, ২০১৭ ২৩:১৫
জঙ্গিবাদের হুমকি
মনস্তাত্ত্বিক লড়াই চালাতে হবে

একের পর এক অভিযান সত্ত্বেও জঙ্গিরা তাদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে সক্ষম হয়েছে। চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে মাত্র এক কিলোমিটার দূরত্বের মধ্যে দুটি জঙ্গি আস্তানার সন্ধান লাভ সে প্রমাণই বহন করছে।

আইন প্রয়োগকারী বাহিনীর সদস্যরা অবশ্য দুটি আস্তানায় অভিযান চালিয়ে এর একটি থেকে এক জঙ্গি দম্পতিকে গ্রেফতার করেছে। অন্যটিতে অভিযানকালে চার জঙ্গি প্রাণ হারিয়েছে। এর মধ্যে এক জঙ্গি আইন প্রয়োগকারী সংস্থার হাতে প্রাণ হারালেও অন্যরা মারা গেছে আত্মঘাতী বোমায়। জঙ্গিদের গুলি ও বোমার আঘাতে পুলিশের এক কর্মকর্তা আহত হয়েছেন। দুই অভিযানে বিপুল গোলাবারুদও উদ্ধার করা হয়েছে। জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সক্ষমতা প্রশংসা অর্জন করেছে। তবে জঙ্গি হুমকি মোকাবিলায় শুধু অভিযান চালিয়ে জঙ্গিদের গ্রেফতার বা হত্যা করাই যথেষ্ট নয়। জঙ্গি দমনে কৌশলগত পদক্ষেপের বিষয়টিও জরুরি। বহুমাত্রিক পদক্ষেপ গ্রহণ করে জঙ্গি হওয়ার প্রক্রিয়াকে ঠেকাতে হবে। জঙ্গিবাদের উত্থান রোধে ধর্মের অপব্যাখ্যার বিরুদ্ধে মনস্তাত্ত্বিক লড়াইও চালাতে হবে। দুনিয়ার কোনো ধর্মে মানুষ হত্যা এবং সন্ত্রাসবাদে উৎসাহ জোগানো হয়নি। সাধারণ ধর্মপ্রাণ মানুষের কাছে এ বিষয়টি স্পষ্ট করতে হবে। ধর্মের নামে জঙ্গিবাদের চর্চা হলেও উগ্রপন্থার উপাসকরা আসলে কোনো মূল্যবোধের দ্বারা পরিচালিত নয়। তারা নিজেদের অপকর্মের যৌক্তিকতা প্রমাণ করতেই কোরআন হাদিসের কিছু অংশকে খণ্ডিতভাবে ব্যবহার করে ও অপব্যাখ্যার আশ্রয় নেয়। জঙ্গিদের সঙ্গে ধর্মের যে প্রকৃত অর্থে কোনো সম্পর্ক নেই তা সঠিক ব্যাখ্যার মাধ্যমে তুলে ধরতে হবে। জঙ্গিবাদের উত্থান রোধে মধ্যযুগীয় মানসিকতার অবসান ঘটিয়ে আধুনিকতার বিকাশ ঘটাতে হবে। জঙ্গিরা পশ্চাত্পদ মানসিকতার ধারক-বাহক হলেও তারা তাদের উগ্র মতাদর্শ প্রচারে ইন্টারনেট বা সামাজিক প্রচারমাধ্যমকে ব্যাপকভাবে ব্যবহার করছে। এ হুমকি মোকাবিলায় ইন্টারনেট বা সামাজিক প্রচারমাধ্যমকেও কাজে লাগাতে হবে। জঙ্গিবাদের প্রতারণা থেকে সরলপ্রাণ মানুষকে দূরে রাখার ক্ষেত্রে যা প্রকৃষ্ট উপায় হিসেবে বিবেচিত হতে পারে। জঙ্গিবাদের উত্থান রোধে উগ্র মতবাদের প্রচার নিয়ন্ত্রণেরও উদ্যোগ নিতে হবে।   জঙ্গিবাদীদের তত্পরতার ওপর তীক্ষ নজরও রাখতে হবে। দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব এবং জাতীয় অস্তিত্বের স্বার্থে সন্ত্রাসের বরপুত্রদের বিরুদ্ধে সব সামাজিক শক্তির সোচ্চার ভূমিকাও প্রত্যাশিত।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow