Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১২ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০৪
লন্ডন-পল্টন-গুলশান জার্নিতে বিএনপি
মোস্তফা কামাল
লন্ডন-পল্টন-গুলশান জার্নিতে বিএনপি

বাহন, পথ, গন্তব্যে এখনো গোলমাল কাটেনি বিএনপির। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের দাবিনামায় দলটিই লেভেল হতে বসেছে। বেগম খালেদা জিয়ার টানা অনুপস্থিতিতে বিএনপির কর্মকাণ্ড ও সাংগঠনিক পুনর্গঠনে ভর করেছে স্থবিরতা। ১৫ জুলাই লন্ডন যাওয়ার আগে তিনি এক ডজনেরও বেশি নির্দেশনা দিয়ে গেছেন শীর্ষ নেতাদের। সংখ্যায় ১৩। এই আনলাকি সংখ্যক নির্দেশনাকে প্রস্তাব আকারে সংলাপের সময় নির্বাচন কমিশনের হাতে দেওয়ার কথা। বলা হয়েছিল দলের হিতাকাঙ্ক্ষীদের সঙ্গে পরামর্শ করে প্রস্তাবগুলোকে আরও স্পষ্ট ও যুক্তিগ্রাহ্য করতে। যার পয়লা নম্বরেই লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের কথা। কিন্তু অগ্রগতি বড় করুণ।

চেয়ারপারসন দেশে নেই বলে যোগাযোগে কমতি নেই। তিনি দেশে থাকলেও নেতা-কর্মীরা তার সরাসরি সাক্ষাৎ কমই পান।

তবে, তার বরাতে নির্দেশনা বা হুকুমে ঘাটতি হয় না। গুলশান-পল্টন অফিস থেকে নিয়মিতই কিছু নির্দেশ পান নেতা-কর্মীরা। বাড়তি বা অতিরিক্ত কিছু আসে লন্ডন থেকেও। এখনো আসছে। তবে, সমস্যা দেখা দিয়েছে নির্দেশনা নিয়ে। নির্দেশ পালনের নির্দেশনা স্পষ্ট নয়। তার ওপর নির্দেশগুলোর বহুমুখিতা ও সমন্বয়হীনতায়। কোনো নির্দেশনাই আবার ফেলনাও নয়। এর সবই মানতে হয়। মানিয়ে চলতে চলতে কর্মী ও মাঝারি নেতাদের দিশাহীন দশা। চোখে-মুখে অন্ধকার দেখেও জার্নি তো খ্যান্ত দেওয়া যায় না। যেতেই হয় কোনো না কোনো দিকে। তাতে গোলমাল পাকে অহরহ। লন্ডন, পল্টন, গুলশানের মেজাজ সামলাতে গিয়ে কাহিল নেতাদের নিস্তার মেলার লক্ষণও নেই। তাদের কেউ কেউ বিশ্রাম বা দেশ-বিদেশ সফরে নেমেছেন। আগের মতো পুলিশের উত্পাত না থাকায় কেউ কেউ মনোযোগ দিয়েছেন ব্যবসা-বাণিজ্যে। এতে সারা দেশে জেলা সম্মেলন ও নতুন কমিটি ঘোষণার কাজে জেঁকে বসেছে বন্ধ্যত্ব। অঙ্গ সংগঠনগুলোর মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি পুনর্গঠনও থমকে গেছে। হয়তো এমন শঙ্কার কারণেই খালেদা জিয়া নির্দেশনাগুলো দিয়ে যান লন্ডন যাওয়ার আগে। কাজে যেন খামখেয়ালি না হয় এবং কোনো অজুহাত মানা হবে না—এমন কড়া হুঁশিয়ারিও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু যোগফল ভালো হয়নি। শঙ্কাই বাস্তব হয়েছে।

২০০৬ সালে ক্ষমতা হারানোর পর যুক্তরাজ্যে এটি তার তৃতীয় সফর। এর আগে সর্বশেষ লন্ডন গিয়েছিলেন ২০১৫ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর। তখন তারেক রহমানসহ পরিবারের সবার সঙ্গে ঈদ করেই দেড় মাস পর ফিরেছিলেন তিনি। এবারও কোরবানির ঈদ করেছেন পরিবারের সঙ্গে। তার পরিবারের অনেকেই এখন লন্ডনে। বড় ছেলে তারেক রহমানের বাসায় রয়েছেন স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমান, মেয়ে জাইমা রহমান। ছোট ছেলে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শার্মিলা রহমান সিঁথি, তার দুই মেয়ে জাহিয়া রহমান ও জাফিরা রহমানও সেখানে। চোখ ও পায়ের চিকিৎসার জন্য গেল ১৫ জুলাই যুক্তরাজ্যে যান বেগম খালেদা জিয়া। সর্বশেষ বলা হয়েছিল গত ১৫ সেপ্টেম্বর ঢাকায় ফেরার কথা। কিন্তু চিকিৎসা শেষ হয়নি জানিয়ে তা বাতিল করা হয়। কবে ফিরবেন, দল থেকে এখনো স্পষ্ট কোনো তথ্য নেই। শুধু চিকিৎসা নয়; অথবা শুধুই তারেক রহমানসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎও নয়।

বেগম খালেদা জিয়া লন্ডনে একেবারে আয়েশে বা কর্মহীন নন। কিছু কাজেই ব্যস্ত তিনি। বিশেষ করে আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে আন্দোলন ও সম্ভাব্য প্রার্থীর খসড়াও চূড়ান্ত হচ্ছে। দেশে ফিরে নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের রূপরেখাও দেবেন। কিন্তু দেশি-বিদেশি প্রচার মাধ্যমে বেগম খালেদা জিয়ার দেশে ফেরায় বিলম্বকে রহস্যজনক বলে তথ্য আসছে। রয়েছে বিভিন্ন দূতাবাসে চিঠি চালাচালির খবরও। প্রভাবশালী অন্য কয়েকটি দেশের কূটনীতিকের সঙ্গেও তার বৈঠক হয়েছে। সেখান থেকেই রোহিঙ্গা ইস্যুতে চিঠি দিয়েছেন জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী ও অস্থায়ী এবং ওআইসিভুক্ত দেশসহ মোট ৫০ দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে। চিঠিতে তিনি মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বাস্তব অবস্থা জানতে জাতিসংঘের অধীনে নিরপেক্ষ আন্তর্জাতিক তদন্ত সংস্থা গঠন করে পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। এমনটিই হয়। হতেই পারে। ইস্যুর সদ্ব্যবহার করা রাজনীতিকের ধর্ম।

আলোচনা-সমালোচনা, উদ্বেগ-উচ্ছ্বাস অন্য জায়গায়। সেটি ভারতকে ঘিরে। খবর রটেছে, লন্ডনে বসে দিল্লি মিশনও শেষ করে এনেছেন খালেদা জিয়া। বৈঠক করেছেন ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির লন্ডনে থাকা দুই প্রভাবশালী নেতার সঙ্গে। তারা বড় মাপের গুজরাটি ব্যবসায়ী। দুজনই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঘনিষ্ঠ। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন তারেক রহমানও। খবর হিসেবে এটি সরকারের জন্য ঈর্ষা বা উদ্বেগের হলেও হতে পারে। অন্যদিকে, জার্নির স্টপেজ শনাক্ত না হলেও বিএনপি নেতা-কর্মীদের কাছে উচ্ছ্বাসের। প্রণোদনারও। দল থেকে খবরটি স্বীকার করা হয়নি। স্বীকার না করাই স্বাভাবিক। তবে বেগম জিয়া আগামীর পথ খুঁজছেন তা কারও স্বীকার-অস্বীকারের বিষয় নয়। তার দেশে ফিরতে যে আরও দেরি হবে সেটাও বোধগম্য। সেটা শুধু চিকিৎসার কারণে নয়। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের ২৩ অক্টোবর বাংলাদেশ সফরের কথা রয়েছে। তার সঙ্গে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত সম্পর্ক বেশ আলোচিত দুই দেশেই। সুষমার সফরের আগে খালেদা জিয়া দেশে ফিরতে পারেন এমন একটি কথাও শোনা যায়। পরিস্থিতি সেই আলোকে এগোলে সুষমা স্বরাজের সঙ্গে তার একান্ত বৈঠকও হতে পারে। এ ছাড়া নানা মহলে যোগজিজ্ঞাসা বাকি রয়েছে। মামলার বিষয়ও আছে। দেশে থাকলে বেশ কয়েকটি মামলা দ্রুত শুনানি হতে পারে বলে সংকেত রয়েছে আদালতপাড়া থেকে। তাই একটি নির্দিষ্ট সময় পর দেশে ফিরলে আইনি সুবিধা হতে পারে।

দলের একটি অংশের ডিমান্ড ছিল, রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় দ্রুত দেশে এসে ভূমিকা রাখুন খালেদা জিয়া। কূটনীতিকদের ব্রিফ করুন। সংবাদ সম্মেলন করুন। কিন্তু অন্য অংশ এর বিরোধী। বিএনপির কূটনৈতিক যোগাযোগ রক্ষাকারী থিঙ্কট্যাংকরা মনে করেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিই উত্তম কৌশল। কারণ রোহিঙ্গা ইস্যু আকস্মিক নয়। অনেকটাই পরিকল্পিত। দেশে জরুরি কাজের অজুহাত তুলে মিয়ানমার নেত্রী অন সাং সু চি এবারের জাতিসংঘ অধিবেশনে যাবেন না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যাবেন। রাষ্ট্রীয় কাজ শেষে তিনি পুত্র-পুত্রবধূসহ স্বজনদের সময় দেবেন সেটাও পূর্ব-নির্ধারিত। সব শিডিউল আগেই করা। অর্থাৎ ভবিষ্যতে কী ঘটবে, কোন পথে কী সমাধানসহ সব এগোচ্ছে মিয়ানমার ও বাংলাদেশের বন্ধু ভারত, চীন, রাশিয়ার ছক মতোই। প্রধানমন্ত্রী বা সরকারের শীর্ষ মহলের মতো তা একেবারে অজানা নয় খালেদা জিয়ারও। এ কারণে রোহিঙ্গা ইস্যুতে তার নিখোঁজের মতো থাকা বেশি নিরাপদ। বিএনপি নেতারা মনে করেন, রোহিঙ্গাদের জন্য সরকারসহ বিভিন্ন দলের মানবিক তৎপরতার পেছনে রাজনীতির সঙ্গে পর্যাপ্ত কূটনীতিও সম্পৃক্ত। সেটি করতে কারও দেশে থাকা, না থাকা ম্যাটার করে না।

খালেদা জিয়ার অনুপস্থিত সময়ে রোহিঙ্গা ছাড়াও দেশে নানা ঘটনা-দুর্ঘটনা। ইস্যুর পর ইস্যু। এই ইস্যু উৎসবে ব্রিফিং, বিবৃতি, আলোচনা সভা-সেমিনার, গোলটেবিল জমেছে বেশ। লন্ডনে আপনা-আপনিই চলে যাচ্ছে এসব কর্মসূচির খবর। নেতাদের বিশেষ কয়েকজন ফোন, মেইল, ইমু, ভাইবারসহ তথ্য-প্রযুক্তিতে লন্ডনে পৌঁছাচ্ছেন এসব খবরাখবর। তা জানান দিয়ে কেউ কেউ চেষ্টা করছেন নিজেদের গুরুত্ব বাড়ানোর। লন্ডনে বসে দল সাজানো-গোছানোর কিছু কাজ চালাচ্ছেন তথ্য পেয়ে বেশ নড়াচড়া ঢাকায়। পল্টন-গুলশান দুই কার্যালয়ে সম্ভাব্য কিছু রদবদলের গুঞ্জনও রয়েছে। গুঞ্জনের বেশ কিছু শেষ পর্যন্ত সত্য হতে পারে সেই ধারণায় বেড়েছে কয়েকজনের তৎপরতা। এই চান্সে দুই কার্যালয়েরই মাতবর গোছের কয়েকজনকে সাইজ করা হতে পারে। যাদের বিরুদ্ধে রয়েছে গুরুতর ও সুনির্দিষ্ট অভিযোগ। দলে বেশ প্রচারিত তথ্যটি বিশ্বাস করে কারও কারও হাইপারটেনশন বেড়েছে। এমনকী লন্ডনে ছুটে গেছেন কয়েক নেতা। কিন্তু তাদের সবাই খালেদা জিয়া বা তারেক রহমানের সাক্ষাৎ পাননি। তবে, দেশে ফিরে চালাচ্ছেন প্রচার-প্রচারণা। শোনাচ্ছেন খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎসহ এক্সক্লুসিভ কথাবার্তার বানোয়াট গল্প।

লেখক :  সাংবাদিক-কলামিস্ট; বার্তা সম্পাদক, বাংলাভিশন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow