Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শুক্রবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০১:০৮
মুমিন হওয়া এক মহা অর্জন
মুফতি আমজাদ হোসাইন হেলালী
মুমিন হওয়া এক মহা অর্জন
bd-pratidin

একজন মুসলমানের জন্য প্রকৃত মুমিন হওয়া সত্যিই জীবনের মহা অর্জন। এটাই তার সৃষ্টির মূল মাকসাদ। এই অর্জন দ্বারা সে ইহ-পরকালে সুখ-শান্তি পাবে। পাবে কবরের অসংখ্য-অগণিত নেয়ামত। হিসাব-নিকাশ সহজ হবে। অনাবিল  শান্তির জায়গা জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে। তার বিরহ বেদনায় শুধু আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধুবান্ধব কাঁদে না। বরং তার জন্য কাঁদে আকাশ-জমিনসহ সবকিছু। এ সম্পর্কে পবিত্র হাদিসে এসেছে। হজরত আনাস (রা.) বর্ণনা করেন, রসুল    সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, আসমানে প্রত্যেক মানুষের জন্য দুটি দরজা আছে; এক দরজা দিয়ে তার আমলসমূহ ওপরে ওঠে, আরেক দরজা দিয়ে তার রিজিক অবতীর্ণ হয়। কোনো মুমিন বান্দা মৃত্যুবরণ করলে তার জন্য কাঁদতে শুরু করে। (তিরমিজি, আবু ইয়ালা, ইবনু আবিদ্‌ দুনিয়া) অপর হাদিসে এসেছে, হজরত আতা-খোরাসানি থেকে বর্ণিত আছে, বান্দা জমিনের যে কোনো অংশের ওপর আলস্ন্লাহকে সেজদা করে, কেয়ামতের দিন ওই জমিন তার পক্ষে সাক্ষ্য দান করবে। এবং যেদিন তার মৃত্যু হয়, ওই জমিন তার শোকে ক্রন্দন করে। (আবু নুআইম)। অন্য হাদিসে এসেছে, হজরত আবদুলস্ন্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) বর্ণনা করেন, মুমিনের মৃত্যুর শোকে এই জমিন ৪০ দিন যাবৎ কাঁদতে থাকে। (ইবনু আবিদ্‌ দুনিয়া, হাকেম)। উপরোক্ত হাদিসগুলো দ্বারা প্রমাণিত হলো যে, সত্যিকারের ইমানদার হওয়া একজন মুমিনের জন্য স্বার্থক জীবন। আপন জীবনের সৃষ্টির মাকসাদের ওপর যে ব্যক্তি জীবন গঠন করেছে সেই প্রকৃত বুদ্ধিমান। তাই তো আমাদের এমন জীবন গঠন করতে হবে, ‘মরিলে

হাসিবো আমি কাঁদিবে ভুবন’। এমন পূত পবিত্র জীবন গঠন করলেই পাওয়া যাবে হাদিসে বর্ণিত শুভ সংবাদসমূহ। মুমিন ব্যক্তিকে মানুষ ভালোবাসে। শুধু মানুষ নয় জগতের সবকিছুই তাদের ভালোবাসে। তাদের সঙ্গে সম্পর্ক করতে চায়। তাদের সান্নিধ্যে নিজেদের জীবন ধন্য করতে চায়। মুমিন ব্যক্তির ইন্তেকালের পরও সবাই তার মৃতদেহকে আপন করে নিতে চায়। প্রিয় পাঠক! চলুন দেখি এ সম্পর্কে হাদিসে কী উলেস্ন্লখ আছে। হাদিসে এসেছে, হজরত আবদুল্লাহ ইবনে উমর (রা.) বলেন, রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যদি কোনো মুমিন বান্দার মৃত্যু হয়, তার মৃত্যু উপলক্ষে পৃথিবীর প্রতিটি ‘ভালো জায়গা’ নিজেকে সুসজ্জিত ও সৌন্দর্য ম্লিত করে তোলে এবং প্রতিটি জায়গাই বাসনা করে যে, এই মুমিন বান্দাকে যেন তার বুকে দাফন করা হয়। (ইবনে আদি, ইবনে মান্দাহ, ইবনে আছাকির)। অপর হাদিসে এসেছে, হজরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) এর বর্ণনা মতে রসুল  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, হজরত দাউদ আলাইহে ওয়াসাল্লাম. আল্লাহপাকের কাছে জিজ্ঞাসা করেছিলেন যে, হে আমার মাবুদ! যে ব্যক্তি তোমার সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে কোনো মুর্দা ব্যক্তির সঙ্গে তার কবর পর্যন্ত গমন করে, সে ব্যক্তিকে তুমি কী পুরস্কার দান করবে? জবাবে আলস্ন্লাহপাক বললেন, তার পুরস্কার হলো, তার মৃত্যুর পর আমার (বিশেষ) ফেরেশতারা তার জানাজার সঙ্গে গমন করে এবং তার রুহের জন্য নেক রুহসমূহের সমাবেশে দোয়াও করে। (ইবনু আছাকির, শরহুছ ছুদুর)। প্রিয় পাঠক! দেখুন, মুমিন ব্যক্তির কতই না মর্যাদা ও সম্মান হাদিসেপাকে উলেস্ন্লখিত হয়েছে। এখানে একটি বিষয় লক্ষ্য রাখতে হবে। প্রতিটি জানাজা কবরের দিকে যাওয়ার সময় সব মুর্দার সঙ্গেই একদল ফেরেশতা গমন করে। এটাই সাধারণ নিয়ম। কিন্তু এই হাদিসে ফেরেশতাদের মুমিন ব্যক্তির জানাজার সঙ্গে যাওয়ার যে কথা বলা হয়েছে, তারা কোনো সাধারণ কাফেলা নয়। বরং এর অর্থ হচ্ছে এই জানাজার প্রতি ‘বিশেষ মর্যাদা ও সম্মান’ প্রদর্শনের জন্য ‘বিশেষ আরেকটি কাফেলা’ তার সঙ্গে গমন করে। প্রিয় পাঠক! এই সংক্ষিপ্ত লেখা থেকে আমরা বুঝতে পেরেছি। একজন প্রকৃত ইমানদার ব্যক্তির কতই না মর্যাদা ও সম্মান আল্লাহপাক দান করেছেন। আসমানের কাছে তার কত বড় সম্মান যে, তার সঙ্গে এতদিনের সুগভীর সম্পর্ক শিথিল ও দুর্বল হয়ে যাওয়ার দরুন আসমান শোকাহত হয়ে কান্না করছে। জমিনেরও তার প্রতি সম্মান, মর্যাদা ও শ্রদ্ধাবোধ এত বেশি যে, তার নেক আমল হারানোর ব্যথায় এবং খোদ তার বিচ্ছেদ-বেদনায় সেও কান্না করছে। এমনকি জমিনের প্রতিটি অংশ তাকে আপন কোলে তুলে নেওয়ার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করছে। ফেরেশতাদের মাহফিলেও সে কত বড় মহান ও মর্যাদাশীল যে, তারা অনুগত খাদেমের মতো মুমিন ব্যক্তির জানাজার সঙ্গে চলছে। মর্যাদাশীল নূরানী মাখলুক এই ফেরেশতাদের কাছে কারও ইজ্জত ও সম্মানের পাত্র হওয়া কোনো সাধারণ কথা নয়। একজন মুমিন মৃত ব্যক্তি যখন মৃত্যুর পর নিজের এই সুউচ্চ মর্যাদার খবর পায় অথবা স্বচক্ষে তা দেখে, না-জানি আখেরাতকে সে কত বেশি প্রিয় ও শ্রেষ্ঠ মনে করে! এবং দুনিয়া তার নজরে কত-যে হীন ও তুচ্ছ হয়ে যায়, তা আলস্ন্লাহপাকই ভালো জানেন। প্রিয় পাঠক! চলুন আমাদের সবাইকে একদিন মৃত্যুবরণ করতে হবে। এই দুনিয়ার মায়া ত্যাগ করে পরকালে পাড়ি জমাতে হবে। আমাদের মৃত্যু যেন মুমিনের মৃত্যু হয়। পরকালে রাহমাতুল্লিল আলামিনের সাফায়াত নসিব হয়, সেভাবে জীবন গঠন করি। মহান রব্বুল আলামিন আমাদের সবাইকে প্রকৃত মুমিন হয়ে সবার মহব্বত অর্জন করার তৌফিক দান করুন। আমিন।

লেখক : মুহাদ্দিস, মুফাসসির ও খতিব, বারিধারা, ঢাকা।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow