Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : সোমবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:২৪
একাত্তরের মহান বীর জেনারেল ড. ভিকে সিং
প্রফেসর ড. আবু ইউসুফ মো. আব্দুলস্নাহ
একাত্তরের মহান বীর জেনারেল ড. ভিকে সিং

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভারতীয় মিত্রবাহিনীর বীরত্বপূর্ণ যুদ্ধের কথা আমরা প্রত্যেক বাঙালি জানি। বাঙালি জাতি অনাদিকাল ধরে তা গভীর কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করে যাবে। স্মরণ করবে ১৯৭১ সালের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে বাংলাদেশ ও ভারতের সম্মিলিত মিত্রবাহিনীর নেতৃত্বদানকারী জেনারেল মানেকশ, ভারতীয় ইস্টার্ন কমান্ডের প্রধান জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরাসহ মিত্রবাহিনীর শত-সহস্র অফিসার ও জওয়ানকে। যারা বাংলাদেশের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে রণাঙ্গনে বীর বিক্রমে যুদ্ধ করেছেন এবং যাদের পুণ্য রক্তে বাংলাদেশের মাঠ-ঘাট, বন-বনানী, রক্তাত হয়েছে। বাংলাদেশ স্বাধীন করার জন্য এ দেশের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে মিত্রবাহিনীর অগণিত বীর নারী-পুরুষ যোদ্ধা নিঃস্বার্থভাবে আত্মাহুতি দিয়েছেন, যারা বাঙালির ইতিহাসে চির অমর হয়ে আছেন।

২০১৭ সালের এপ্রিলে ভারতের দিলিস্নতে মানেকশ অডিটরিয়ামে বাংলাদেশ ও ভারত উভয় দেশের সরকারপ্রধানদের উপস্থিতিতে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে জীবন উৎসর্গকারী ভারতীয় সাত পরিবারের সদস্যদের বিশেষ সম্মাননা দেওয়া হয়। সে অনুষ্ঠানে আমার অংশগ্রহণের সৌভাগ্য হয়েছিল। সেখানে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারতীয় বীরযোদ্ধাদের অবিস্মরণীয় ভূমিকা ও আত্মত্যাগের কথা গভীরভাবে স্মরণ করা হয়। দি টাইমস অব ইন্ডিয়ার মতে, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে কমপক্ষে ১ হাজার ৬৬৮ জন অফিসার এবং জওয়ান জীবন দিয়েছেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে ভারতীয় মিত্রবাহিনীর বীর সদস্যরা বাংলাদেশের বিভিন্ন ফ্রন্টে, বনে-জঙ্গলে যুদ্ধ করে বুলেটের সামনে বুক পেতে অকাতরে জীবন বিলিয়ে দিয়েছেন।

এ দেশের অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধার মতোই রণাঙ্গনে মিত্রবাহিনীর অনেক শহীদের লাশ শনাক্ত করা যায়নি। এ দেশের বহু যুদ্ধক্ষেত্রে, পথে-প্রান্তরে সেসব শহীদের লাশ এ মাটির সঙ্গে মিশে এ ভূমিকে আরও পুণ্যময় করে তুলেছে। সত্যিকার অর্থেই তারা ছিলেন আমাদের অকৃত্রিম বন্ধু। ওইসব মুক্তিযোদ্ধার জীবন উৎসর্গের ফলে আমাদের বিজয় অর্জন ত্বরান্বিত হয়েছিল। সেসব বীর শহীদের অনেকের বিধবা স্ত্রী, পিতাহারা সন্তানকে দেখা এবং তাদের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ আমার হয়েছে। সেদিন আমাদের কাছে পেয়ে প্রিয়জনকে ফিরে পাওয়ার ব্যাকুলতা আমি তাদের চোখেমুখে দেখেছি। সে সময়ের সে আবেগঘন মুহূর্তের কথা আমাকে এখনো আবেগাপস্নুত করে।

১৯৭১ সালের মিত্রবাহিনীর সেই মহান বীরদের একজন জেনারেল ড. ভিকে সিং। যার বীরত্বগাথা শুনতে গত এপ্রিলে নয়াদিলিস্নর এপিজে আবদুল কালাম রোডস্থ তার বাসায় গিয়েছিলাম। তার সঙ্গে একই বাঙ্কারে কুমিলস্না ফ্রন্টে যুদ্ধ করেছেন মুসা সাদিক (বাংলাদেশ সরকারের সাবেক সচিব) যিনি আমাকে তার বাসায় নিয়ে গিয়েছিলেন। আমি যখন তার সামনে দাঁড়ালাম, সেই মুহূর্তে আমি গর্বিত বলে ভাবছিলাম। কারণ একাত্তরের রণাঙ্গনের মিত্রবাহিনীর একজন মহান বীরের সামনে আমি দাঁড়িয়ে। তাকে অভিনন্দন জানিয়ে বললাম, ‘স্যার আপনাকে অভিনন্দনের মাধ্যমে আমি মিত্রবাহিনীর সব বীর যোদ্ধাকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। সেসব মুক্তিযোদ্ধার বীরত্বপূর্ণ অবদানে বাংলাদেশ এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে মাত্র নয় মাসে স্বাধীনতা অর্জনে সক্ষম হয়েছিল। জেনারেল ড. ভিকে সিং আনন্দচিত্তে হাসিমুখে ‘জয় বাংলা’ বলে আমার দিকে হাত বাড়িয়ে দিলেন। আমিও সাগ্রহে হাত বাড়িয়ে হ্যান্ডশেক করলাম।’

জনাব মুসা তার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে আমার দিকে ইঙ্গিত করে বললেন, ইনি প্রফেসর ড. আব্দুলস্নাহ, তার পিতা আমার পরম শ্রদ্ধেয় শিক্ষক আনসার আলী মাস্টার, বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মুক্তিযুদ্ধের একজন মহান সংগঠক। তিনি সাতক্ষীরা জেলার সর্বজনশ্রদ্ধেয় শিক্ষক হওয়ায় তার কথায় বহু বাবা-মা তাদের প্রিয় সন্তানদের মাথায় হাত দিয়ে ‘ফি আমানিলস্নাহ’ বলে বিভিন্ন রণাঙ্গনে পাঠিয়েছেন। তাকেও পাক হানাদার বাহিনী অন্যদের সঙ্গে ধরে বধ্যভূমিতে নিয়ে গুলি করে। সেখানে তিনজন নিহত হন কিন্তু তিনি মহান আলস্নাহর কৃপায় বেঁচে যান।

আমার পরিচিতি জেনে ৭১-এর মিত্রবাহিনীর বীর জেনারেল ড. ভিকে সিং আমাকে বুকে জড়িয়ে ধরে আলিঙ্গন করলেন। সুঠাম দেহী, সৌম্য সুপুরুষ তার আয়ত চোখ মেলে আমাকে বললেন, ‘তোমার বাবাকে বলবে, আমি বাংলাদেশের একজন মুক্তিযোদ্ধা। তোমার মহান শিক্ষক পিতা তার ছাত্রদের ৭১ সালে যেসব রণাঙ্গনে পাঠিয়ের্িছলেন সেসব রণাঙ্গনে আমি মিত্রবাহিনীর হয়ে তাদের সহযোদ্ধা ছিলাম। বাংলাদেশের বীর মুক্তিযোদ্ধারা যেদিনগুলোতে দেশমাতৃকার সম্মান রক্ষায় অকাতরে জীবন দিয়েছিলেন, আমিও সেদিন ভারতীয় মিত্রবাহিনীর হয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য জীবন উৎসর্গের অঙ্গীকার করেছিলাম এবং শহীদ হওয়ার জন্য প্রস্তুত ছিলাম’।

তার সঙ্গে পরিচয় হয়ে মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যাপারে আমার জানার ব্যাপ্তি ঘটল। জানতে পারলাম পাশের দেশের ভাই-বন্ধুরা কীভাবে আমাদের মুক্তির জন্য নিঃস্বার্থভাবে লড়েছিল। জেনারেল ড. ভিকে সিং বাংলাদেশের একজন জীবিত মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে কাছে পেয়ে খুব আনন্দিত হলেন। তিনি আরও বেশি আনন্দিত হলেন এজন্য যে, তিনি দেখলেন বাংলাদেশের মানুষ এবং নতুন প্রজন্ম এখনো তাকে স্মরণ করে।

তিনি বলছিলেন বাংলাদেশের লাখ লাখ মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে ভারতের মিত্রবাহিনীর হাজার হাজার অফিসার ও জওয়ান সেদিন শহীদ হয়েছেন। সেদিন বাংলাদেশের পথে প্রান্তরে, জনপদে, পদ্মা-মেঘনার কূলে কূলে বাংলাদেশ ও ভারতের হিন্দু-মুসলমান, বৌদ্ধ-খ্রিস্টান সবাই একদেহে লীন হয়ে গিয়েছিল। আজ বিশ্ববাসী বাঙালি জাতিকে যেমন বীরের জাতির স্বীকৃতি দিয়েছে, তেমনি বাংলাদেশ সব ধর্মের পুণ্যময় মিলনকেন্দ্রে পরিণত হয়েছে।

বিমুগ্ধ চিত্তে তার কথা শুনে তার প্রতি আমার সুগভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে বললাম যে, ‘বাংলাদেশের রণাঙ্গনে আপনার বীরত্বপূর্ণ যুদ্ধের কথা আমরা বহু মুক্তিযোদ্ধার কাছে শুনেছি। সেক্টর কমান্ডার মেজর খালেদ মোশাররফের সহযোদ্ধারাও আপনার বীরত্বের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন। আমরা ইতিহাস থেকে জেনেছি, কুমিলস্না রণাঙ্গনে ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে বাংলাদেশের তদানীন্তন ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম সফরে এলে আপনার সঙ্গে তার গুরুত্বপূর্ণ কথোপকথন হয়।

সেখানে যুদ্ধরত মিত্রবাহিনীর অফিসার ও জওয়ানদের সঙ্গে করমর্দনের সময় সৈয়দ নজরুল ইসলাম আপনাকে প্রশ্ন করেছিলেন,  'How long you will fight ?' আপনি দৃঢ়চিত্তে বলেছিলেন, 'Sir,  so long I am alive.' আপনার দৃঢ় এবং সাহসী উত্তর শুনে বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি বিমোহিত হয়ে পড়েন এবং তিনি সেখানে যুদ্ধরত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বলেন যে, ‘বাংলাদেশে যেখানে কিছু বেইমান বাঙালি আমাদের মা-বোনদের ধরে পাক সেনাদের হাতে তুলে দিচ্ছে ও গণহত্যা চালাচ্ছে, সেখানে এই ভিনদেশি তরুণ বীর যোদ্ধাকে দেখ এবং সে কী কথা বলছে, শোনো। সে বলছে, ‘যতক্ষণ বেঁচে আছে ততক্ষণ সে বাংলাদেশের জন্য যুদ্ধ করবে’।

ভিকে সিং যিনি পরবর্তীকালে ভারতের সেনাবাহিনীর প্রধান হয়েছিলেন এবং বর্তমানে তিনি ভারতের বিজেপি সরকারের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আমাকে সস্নেহে বললেন, ‘৭১-এর রণাঙ্গনে বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সেদিন মিত্রবাহিনীর সবার সঙ্গে আন্তরিকতা ও মমত্ব নিয়ে যেভাবে কথা বলছিলেন, তা শুধু পিতার সঙ্গে সন্তানের স্নেহ-মমতার কথা রণাঙ্গনে আমাদের স্মরণ করিয়ে দিচ্ছিল। আমরা তার কথায় শতগুণে উৎসাহিত হয়ে প্রাণপণে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলাম।

বাংলাদেশের রণাঙ্গনে মিত্রবাহিনীর মহান বীর যোদ্ধা জেনারেল ড. ভিকে সিংয়ের কথাগুলো মন্ত্রমুগ্ধের ন্যায় শুনে শিহরিত হয়ে উঠছিলাম। মনে মনে আফসোস করছিলাম এ মহান বীর মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে আরও আগে কেন আমার সাক্ষাৎ হয়নি। তার মতো বিজ্ঞ ও প্রতিভাবান ব্যক্তিত্বের কাছ থেকে দেশপ্রেম ও আত্মত্যাগের মর্মকথা শুনে এবং তার পরম স্নেহ-মমতায় ধন্য হয়ে যখন তার বাসা থেকে বেরিয়ে এলাম তখন মনে হলো তার পরশে আমি দেশপ্রেমের নতুন চেতনাসমৃদ্ধ এক মানুষ।

জেনারেল ড. ভিকে সিং আমাদের বিদায়লগ্নে উভয়ের সঙ্গে কোলাকুলি করে ‘জয় বাংলা’ বলে হাত নাড়লেন। আমরাও সশ্রদ্ধচিত্তে ‘জয় বাংলা’ বলে ভারতীয় মিত্রবাহিনীর মহান সেই বীর মুক্তিযোদ্ধাকে বিদায় জানিয়ে চলে এলাম। স্বাধীন বাংলাদেশে দাঁড়িয়ে একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে নির্ভীকচিত্তে তাই বলি, ভারতীয় মিত্রবাহিনীর সব বীর যোদ্ধার কাছে বাঙালি জাতি অপ্রতিশোধ্য ঋণে আবদ্ধ।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে ভারতীয় মিত্রবাহিনীর অবদান এ দেশের নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে। নতুন প্রজন্মকে জানাতে হবে যে শুধু আমাদের মুক্তির জন্য নিঃস্বার্থভাবে তারা জীবন দিয়েছে। আমরা যুদ্ধ করেছি আমাদের মুক্তির জন্য কিন্তু তারা এখানে এসে যুদ্ধ করেছে আমাদের মুক্তির জন্য, তাদের কোনো স্বার্থের জন্য নয়। এর চেয়ে বড় স্বার্থত্যাগ এবং মহত্তর ঘটনা পৃথিবীতে আর হতে পারে না।

আমাদের কাছে তো তাদের কোনো চাওয়া-পাওয়া নেই। কিন্তু ভালোবাসা এবং সম্মানটুকু অবশ্যই তাদের প্রাপ্য। আমরা এবং নতুন প্রজন্ম তাদের সেই আত্মত্যাগের স্বীকৃতি এবং তাদের ঋণের কথা যেন কখনো ভুলে না যাই।

লেখক : অধ্যাপক, আইবিএ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; চেয়ারম্যান, নর্দান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ ও উপাচার্য- নর্দান ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজি খুলনা।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow