Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : সোমবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:২৬
ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর অভিযোগে হামলা প্রসঙ্গ
তপন কুমার ঘোষ
ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর অভিযোগে হামলা প্রসঙ্গ

ডাক্তারের বদলে ক্লিনিক মালিকের অস্ত্রোপচারে মারা গেলেন প্রসূতি। গত ২৫ আগস্ট বাংলাদেশ প্রতিদিনে প্রকাশিত একটি খবরের শিরোনাম ছিল এটি। গোপালগঞ্জের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে ডাক্তার না থাকায় মালিক নিজেই এক প্রসূতির অস্ত্রোপচার করেছেন। ফলে যা ঘটার তাই ঘটেছে। মারা গেছেন সেই প্রসূতি। কী ভয়ানক কথা! এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। পরনে সাদা অ্যাপ্রোন। গলায় ঝুলানো স্টেথিস্কোপ। প্রায়ই হাসপাতালের ওয়ার্ডগুলো পরিদর্শন করে রোগী দেখেন তিনি। হাসপাতালের বেশির ভাগ লোকই তাকে চিকিৎসক হিসেবেই চেনেন। অথচ তিনি মাদ্রাসা থেকে আলিম পাস করেছেন মাত্র। বরিশালের শেরেবাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় হাসপাতালে রোগীদের সঙ্গে এভাবে দীর্ঘদিন ধরে প্রতারণা করে আসছিলেন ওই ব্যক্তি। এটাও সম্ভব? ভেবে অবাক হতে হয়! ওই ভুয়া চিকিৎসককে আটক করেছে পুলিশ।

অবহেলা ও ভুল চিকিৎসায় শিশু মৃত্যুর অভিযোগে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ছয় চিকিৎসক এবং এক নার্সের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন এক অভিভাবক। ডাক্তারের পরামর্শ মোতাবেক মেরুদ-ের পরীক্ষা করানো হয়েছে। কিন্তু রোগীর ব্রেইন ক্যান্সার হয়েছে মর্মে ভুল রিপোর্ট দিয়েছে চট্টগ্রাম নগরীর একটি অভিজাত ক্লিনিক, অভিযোগ রোগীর। এসবই সাম্প্রতিক ঘটনা। যাচ্ছেতাই অবস্থা। পত্রিকার পাতা খুললে ভুল চিকিৎসা বা অবহেলায় মৃত্যুর অভিযোগের খবর প্রায়শই চোখে পড়ে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে এসব অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। কাজেই ডাক্তারদের গাফিলতি নেই, এটা বলা যাবে না। আবার ডাক্তারদের বিরুদ্ধে ঢালাওভাবে অভিযোগ করাও ঠিক নয়। আমাদের দেশে অনেক ভালো ডাক্তার আছেন। মানুষের মুখে মুখে তাদের সুনাম। আমরা বিশ্বাস করতে চাই, ডাক্তারদের মধ্যে ভালো মানুষের সংখ্যাই বেশি। নইলে তো সর্বনাশ!

সুচিকিৎসার জন্য চাই সুচিকিৎসক। সামগ্রিকভাবে আমাদের দেশের ডাক্তারকুলের ভাবমূর্তি খুব উজ্জ্বল, এমন কথা বলা যাবে না জোর দিয়ে। এক সময় শুধু মেধাবীরাই ডাক্তারি পড়ার সুযোগ পেত। এখন আর সে অবস্থা নেই। দেশের কোনো ভালো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুযোগ না পেলেও টাকার জোরে কিছু বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ হচ্ছে। এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার মান নিয়ে প্রশ্ন আছে। এদিকটায় নজর দিতে হবে। সরকারি মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা জনগণের টাকায় ডাক্তারি পড়েন। বলতে গেলে নিখরচায়। সমাজের প্রতি তাদের দায়বদ্ধতার বিষয়টি ভুলে গেলে চলবে না। ডাক্তারদের কাছে আন্তরিকতা, সহমর্মিতা ও মানবিকতা সমাজ আশা করে। ডাক্তাররা গ্রামে থাকতে চান না। বড় ডাক্তাররা বড় শহরে থাকতে চান। বড় শহরেই রমরমা ব্যবসা। বিগত কয়েক দশকে আমাদের দেশে চিকিৎসা পরিসেবার যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে। বিশেষায়িত হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। অনেক জটিল অস্ত্রোপচার হচ্ছে দেশে। হৃদরোগের ভালো চিকিৎসা হচ্ছে। তবে সবকিছু রাজধানীকেন্দ্রিক। আমাদের দেশে রোগীর তুলনায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক অপ্রতুল। সারা দেশ থেকে রোগীরা ঢাকায় আসেন উন্নত চিকিৎসাসেবা পাওয়ার আশায়। রোগীর চাপ সামলাতে অনেক কিছু বিসর্জন দিয়ে নামিদামি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা মধ্যরাত অবধি চেম্বারে বসে রোগী দেখেন। ডাক্তারদের বিরুদ্ধে ওষুধ কোম্পানি ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কাছ থেকে সুবিধা নেওয়ার অভিযোগ আছে। এ অভিযোগের কোনো সত্যতা নেই, সে কথা জোর দিয়ে বলা যাবে না। সাধারণ মানুষের মনে এ ধারণা বদ্ধমূল হয়েছে যে, রোগ নির্ণয়ের নামে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার একটা লম্বা ফর্দ রোগীর হাতে ধরিয়ে দেওয়া হয় যার অনেকগুলো অপ্রয়োজনীয়। আবার ব্যবস্থাপত্রে প্রয়োজনের অতিরিক্ত ওষুধের নাম লিখে দেওয়া হয়। হাসপাতালে গেলে চোখে পড়ে ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিদের দাপট। ডাক্তারের চেম্বার থেকে রোগী বেরোলেই ব্যবস্থাপত্র চেয়ে নিয়ে পরীক্ষা করে দেখা হয় কোন কোম্পানির ওষুধ প্রেসক্রাইব করা হয়েছে। ডাক্তারদের সবাই ধোয়া তুলসির পাতা নন। এসব কারণে ডাক্তারদের একাংশের প্রতি সাধারণ মানুষের আস্থাহীনতা সৃষ্টি হয়েছে। যেনতেন প্রকারে অর্থ উপার্জনই যদি একমাত্র লক্ষ্য হয় তবে চিকিৎসার মতো এ মহান পেশায় কেন? এ প্রশ্ন প্রাসঙ্গিক। কিছু ব্যক্তি আছেন যারা হাসপাতালে গিয়ে কারণে-অকারণে  হৈচৈ করেন। রোগীর ঠিকমতো চিকিৎসা হচ্ছে না— এ অভিযোগ করে কর্তব্যরত চিকিৎসক-নার্সদের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন। অবহেলা বা ভুল চিকিৎসার অভিযোগ এনে অনেক সময় তাদের গায়ে হাত তোলা হয়। ভাঙচুর করা হয়। হাসপাতালের ওয়ার্ডে ইন্টার্ন ডাক্তাররাই সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করেন। ঝড়ঝাপ্টা তাদের ওপর দিয়েই যায়। এহেন পরিস্থিতিতে ইন্টার্ন ডাক্তারদের ধৈর্যচ্যুতি ঘটা স্বাভাবিক। এর পরিণতি কিন্তু ভালো হয় না। হামলা-পাল্টা হামলা-কর্মবিরতি-থানা-পুলিশ-মামলা শেষে আবার সেই তো কাজে ফিরে যাওয়া। হাসপাতালের অসহায় রোগীদের দুর্ভোগের কথা কেউ মনে রাখে না। যে কোনো পরিস্থিতি ধৈর্যের সঙ্গে মোকাবিলা করার শক্তি ও দক্ষতা অর্জন করতে হবে তরুণ চিকিৎসকদের। রোগীর স্বজনরা অনেক সময় এ সত্যটি বুঝতে চান না যে, সব মৃত্যুই ভুল চিকিৎসা বা অবহেলার কারণে হয় না। জীবনের অনিবার্য পরিণতি মৃত্যু। একটা সময় আসে যখন রোগীকে বাঁচানোর সব চেষ্টাই ব্যর্থ হয়। বিশ্বের নামকরা হাসপাতালে বিশ্বসেরা ডাক্তারদের হাতেও রোগীর মৃত্যু হয়। আবার ভুল চিকিৎসা সবসময় ডাক্তারের ভুলের কারণেও হয় না। চিকিৎসা ব্যবস্থার সঙ্গে ডাক্তার, নার্স, ওষুধপত্র, ডায়াগনস্টিক রিপোর্ট, চিকিৎসা সরঞ্জামাদি, পরিকাঠামো- এ সবকিছুই সম্পর্কিত। ভুলটা কার? এটা নির্ধারণ করতে হবে সবার আগে। তদন্ত ছাড়া কাউকে দায়ী করা ঠিক নয়। সব পক্ষকেই সহনশীল হতে হবে। এক হাতে তালি বাজে না। আবার আগুন দিয়ে আগুন নেভানোও যায় না। ভুল চিকিৎসার অভিযোগে মামলা হবে, হামলা হবে কেন? এ পুরনো প্রশ্নের উত্তরটা পাওয়া জরুরি।

            লেখক : সাবেক উপব্যবস্থাপনা পরিচালক, জনতা ব্যাংক লিমিটেড।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow