Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৫২
ইতিহাস
রুশ ফেডারেশন

১৯৯১ সালের ডিসেম্বরে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর রাশিয়া একটি স্বতন্ত্র রাষ্ট্রে পরিণত হয়। রাশিয়া সোভিয়েত ইউনিয়নের উত্তরসূরি রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে, কিন্তু রাশিয়ার সামরিক ও অর্থনৈতিক সামর্থ্য বহুলাংশে হ্রাস পায়। রুশ ফেডারেশনের অধিবাসীর ৮০%-এর বেশিই ছিল রুশ জাতিভুক্ত, কিন্তু তাৎপর্যপূর্ণ জাতিগত ও ধর্মীয় পার্থক্য রাশিয়ার কিছু কিছু অঞ্চলে প্রকটভাবে বিদ্যমান ছিল, যা রাশিয়ার অখ-তাকে হুমকির সম্মুখীন করেছিল। সোভিয়েত শাসনামলে রাশিয়ার ১০০টির বেশি জাতিকে বিভিন্ন মাত্রায় স্বায়ত্তশাসন প্রদান করা হয়েছিল। এসব স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলের সঙ্গে কেন্দ্রের সম্পর্ক এবং তাদের পরিপূর্ণ স্বায়ত্তশাসনের দাবি ১৯৯০-এর দশকের প্রথম দিকে রাশিয়ায় একটি প্রধান রাজনৈতিক ইস্যুতে পরিণত হয়। বোরিস ইয়েলৎসিন তার ১৯৯০ সালের নির্বাচনী প্রচারণায় এ সমস্যাটির প্রতি আলোকপাত করেন এবং সমস্যাটির সমাধানকে গুরুত্বপূর্ণ বলে অভিহিত করেন।

এসব অঞ্চলের ক্ষমতা নির্দিষ্টকরণের জন্য একটি আইন প্রণয়ন করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে পড়েছিল। এজন্য ইয়েলৎসিন ও রুশ সুপ্রিম সোভিয়েতের সভাপতি রুসলান খাসবুলাতভ (যিনি নিজেই ছিলেন একজন চেচেন) রাশিয়ার ৮৮টি ফেডারেল অঞ্চলের মধ্যে ৮৬টির সঙ্গে দ্বিপক্ষীয়ভাবে ফেডারেশন চুক্তি স্বাক্ষর করেন এবং ১৯৯২ সালের ৩১ মার্চ এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় একটি আইন প্রণীত হয়। প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই বিস্তৃত স্বায়ত্তশাসন কিংবা স্বাধীনতার পরিবর্তে স্থানীয় স্বায়ত্তশাসন ও করসংক্রান্ত সুবিধা প্রদান করে অঞ্চলগুলোকে সন্তুষ্ট করা হয়। প্রাথমিকভাবে কেবল চেচনিয়া ও তাতারস্তান ছাড়া রাশিয়ার অন্যসব অঞ্চলের সঙ্গে চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হয়। ১৯৯৪ সালের বসন্তকালে ইয়েলৎসিন তাতারস্তানের রাষ্ট্রপতি মিন্তিমার শামায়েভের সঙ্গে একটি বিশেষ রাজনৈতিক চুক্তি স্বাক্ষর করেন এবং রাশিয়ার অভ্যন্তরে প্রজাতন্ত্রটি বিস্তৃত স্বায়ত্তশাসন লাভ করে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow