Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : রবিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:১৪
ভিসির কথা
শিক্ষাগ্রহণের মূল উদ্দেশ্য হতে হবে জনগণ ও দেশমাতৃকার কল্যাণ
শিক্ষাগ্রহণের মূল উদ্দেশ্য হতে হবে জনগণ ও দেশমাতৃকার কল্যাণ

২০১১ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি বরিশাল সদর উপজেলার কর্ণকাঠীতে ৫০ একর জমির ওপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। ২০১২ সালের ২৪ জানুয়ারি বরিশাল জিলা স্কুলের কলেজ ভবনে অস্থায়ী ক্যাম্পাসে ৪ অনুষদের ৬টি বিভাগ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়।

বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬ অনুষদে ২০টি বিভাগে শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় সাড়ে ৪ হাজার। বিশ্ববিদ্যালয়টির বর্তমান ভিসি প্রফেসর ড. এসএম ইমামুল হক। দেশের উচ্চশিক্ষার সামগ্রিক মানোন্নয়নে করণীয় কী এসব নিয়ে তিনি সম্প্রতি কথা বলেছেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল— রাহাত খান।

 

প্রশ্ন : দেশের উচ্চশিক্ষার মান নিয়ে বিতর্ক ও প্রশ্ন আছে। এ বিষয়ে আপনার মতামত কী?

ভিসি : উচ্চশিক্ষার মান আগের তুলনায় কমেনি বরং বেড়েছে। তবে উচ্চশিক্ষা গ্রহণকারীদের মান, আগ্রহ ও ঐকান্তিকতা আগের মতো নেই। তদুপরি নিবেদিত শিক্ষকের অভাবও পরিলক্ষিত হয়। কখনো কখনো শিক্ষা উপকরণের স্বল্পতা এর পেছনের কারণ।

প্রশ্ন : দেশে গুণগত উচ্চশিক্ষা নিশ্চিত না হওয়ার পেছনে প্রধান অন্তরায়গুলো কী কী?

ভিসি : ১. অনেকগুলো অন্তরায় রয়েছে যেমন নিবেদিতপ্রাণ শিক্ষার্থীর অভাব (প্রাক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার গুণগত মান আরও      উন্নত হওয়া প্রয়োজন), বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষক নিয়োগে স্বচ্ছতার অভাব, কারিকুলামে তাত্ত্বিক ও প্রয়োগিক উভয় বিষয় সমন্বয়হীনতা, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার অনুপস্থিতি এবং গবেষণা অনুদানের স্বল্পতা ও গবেষণা সুবিধার অপ্রতুলতা।

প্রশ্ন : উচ্চশিক্ষার বৈশ্বিক মানের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হলে স্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কী ধরনের সংস্কার আনা উচিত বলে আপনি মনে করেন?

ভিসি : রাজনীতিমুক্ত পরিবেশ ও ছুটির দিনের সংখ্যা কমিয়ে এনে জবাবদিহিমূলক প্রশাসন ব্যবস্থা চালু করতে হবে। দেশের আর্থসামাজিক অবস্থা বিবেচনায় রেখে শিক্ষা কাঠামো ঢেলে সাজাতে হবে। অধিকতর গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনায় শিক্ষায়তন-সমাজ (academia-community)সম্পর্ক সৃষ্টি করা, শিক্ষায়তন-ইন্ডাস্ট্রি যোগাযোগ গড়ে তুলতে হবে।

প্রশ্ন : বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষা ও গবেষণার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন দেশের ৬১টি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশ্বব্যাংকের সহযোগিতায় ‘কোয়ালিটি অ্যাস্যুরেন্স প্রকল্প’ গ্রহণ করেছে? বিষয়টিকে আপনি কীভাবে দেখেন?

ভিসি : এটির প্রয়োজনীয়তা অস্বীকার করা যাবে না। বিষয়টি আরও আগে থেকে বিবেচনায় আনা প্রয়োজন ছিল। কোয়ালিটি অ্যাস্যুরেন্স চালু থাকলে আমাদের শিক্ষার মান বৈশ্বিক মানের সমতুল্য হবে এবং শিক্ষার্থীদের আত্মনির্ভরতার উন্নয়ন ঘটবে।

প্রশ্ন : বিশ্ববিদ্যালয় ডিগ্রিধারীরাও চাকরি লাভের ক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়ছে। বলা হচ্ছে, কর্মক্ষেত্রে প্রবেশের জন্য চাহিদামাফিক যোগ্যতা নেই তাদের। এ থেকে উত্তরণে স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষার্থীসহ সংশ্লিষ্ট সবার করণীয় কী?

ভিসি : কেবল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলাফলের ভিত্তিতে যদি ডিগ্রিধারীদের যাচাই করা হয় সে ক্ষেত্রে এটিই স্বাভাবিক। চাহিদামাফিক যোগ্যতা না থাকলে কেউ যে কোনো পদের জন্য আবেদন করে কীভাবে? বিষয়টি হচ্ছে এমন, রসায়নে পাস করে সে বিষয়ে চাকরির সুযোগ না পেয়ে অন্য চাকরির জন্য আবেদন। এ দেশে কর্মক্ষেত্রের চাহিদা মোতাবেক গ্রাজুয়েট প্রস্তুত করার প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। কোন সেক্টরে কোন বিষয়ের চাহিদা রয়েছে তার সঠিক পরিসংখ্যান নেই। সাধারণ উচ্চশিক্ষার ওপর গুরুত্ব কমিয়ে কারিগরি ও ভোকেশনাল শিক্ষার ওপর দৃষ্টি দিতে হবে। কর্মক্ষেত্রে প্রবেশের অধিকতর সুযোগ সৃষ্টির জন্য প্রাক্তন শিক্ষার্থী (alumni) এবং নিয়োগকারীদের (employer) সঙ্গে প্রতিষ্ঠানের একটি যোগসূত্র স্থাপন অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। শিক্ষার্থীদেরও ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা এবং ক্যারিয়ার উন্নয়ন সম্পর্কে আগ্রহ থাকতে হবে এবং তা নির্দিষ্ট করে নিয়ে সে লক্ষ্যে নিজেদের গড়ে তুলতে হবে।  

প্রশ্ন : গুণগত ও মানসম্পন্ন উচ্চশিক্ষা প্রদানের লক্ষ্যে আপনার প্রতিষ্ঠান কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ   করেছে?

ভিসি : জবাবদিহিতার ব্যবস্থাকরণ, কোর্স কারিকুলাম উন্নত ও যুগোপযোগীকরণ, গবেষণা প্রকল্প গ্রহণ, কম্যুনিটি একাডেমিয়া সংশ্লেষ সৃষ্টি, outreach program-এ শিক্ষার্থীদের উৎসাহ প্রদান ও সহশিক্ষা কার্যক্রম জোরদার করে মানসম্পন্ন গবেষণার সুযোগ সৃষ্টি করা হয়েছে।

প্রশ্ন : বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে শিক্ষার্থীর সংখ্যা কত? আপনার প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা নিয়মিত সহশিক্ষা কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে?

ভিসি : শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ৪ হাজার ৫০০ জন। আমার শিক্ষার্থীরা নিয়মিত প্রায় সব ধরনের সহশিক্ষা কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে তারা জাতীয়ভাবে পুরস্কৃতও হচ্ছে।

প্রশ্ন : আপনার শিক্ষাজীবনের কোনো মধুর স্মৃতি থাকলে বলুন?

ভিসি : পুরো শিক্ষাজীবনটাই মধুরতায় ভরপুর। এক্ষেত্রে বিশেষ করে কি আর বলবো।

প্রশ্ন : বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে আপনার পরামর্শ কী?

ভিসি : যে বিষয়ে পড়াশোনা করছ তা অনুধাবনের জন্য সচেষ্ট থেকে বিষয়টিতে দক্ষ হতে হবে। মনে রাখতে হবে তোমাদের শিক্ষা ব্যয়ের সিংহভাগ জোগান দিচ্ছে দেশের জনগণ। তোমাদের শিক্ষা গ্রহণের উদ্দেশ্য ও মূল লক্ষ্য থাকতে হবে জনগণ ও দেশ মাতৃকার কল্যাণ। তবেই তোমাদের শিক্ষাজীবন সার্থক হবে। দেশ, সমাজ ও জনগণের কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত করার ব্রত নিয়ে জ্ঞান আহরণ কর আর বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে এগিয়ে আস।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow