Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৪৭
নবম শ্রেণির পড়া : শারীরিক শিক্ষা
সুধীর বরণ মাঝি
নবম শ্রেণির পড়া : শারীরিক শিক্ষা

প্রথম অধ্যায়

২। নালন্দা উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রতিদিন শরীরচর্চা ও খেলাধুলার জন্য ২ পিরিয়ড বরাদ্দ থাকে।

বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে অবস্থানকালীন সময়ে পুষ্টিমান সমৃদ্ধ  খাবার সরবরাহ করে। দৈনন্দিন কার্যক্রম মেনে চলার জন্য তাদের একটি তালিকা দেওয়া হয়। এছাড়া স্কুল কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন বিতর্ক প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও জাতীয় দিবসের অনুষ্ঠান করে থাকে। এতে দেখা যায় ওরা যে কোনো স্থানে সহজে সবার সাথে মিশতে পারে।

ক) আন্তঃক্রীড়াসূচি কী ?                          

খ) অত্যাবশ্যকীয় কর্মসূচি বলতে কী বুঝায়—ব্যাখ্যা কর।

গ) নালন্দা  উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রথম কাজ কোনটি উদ্দীপকের আলোকে ব্যাখ্যা কর।           

ঘ) চারিত্রিক মূল্যবোধের উন্নতি ও সামাজিক গুণের বিকাশের মাধ্যমেই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের প্রকৃত অর্থইে সামাজিক জীবে পরিণত করা সম্ভব হয়েছে-মূল্যায়ন কর।

ক) উত্তর ঃ আন্তঃক্রীড়াসূচির  ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো EXTRA MURAL. EXTRA অর্থ বাহিরে আর MURAL অর্থ দেয়াল অর্থাৎ দেয়ালের বাহিরে যে সমস্ত খেলাধুলা হয় তাকে আন্তঃক্রীড়াসূচি বলে। যে সমস্ত খেলাধুলা বা প্রতিযোগিতা এক স্কুলের সাথে অন্য স্কুল এবং এক কলেজের সাথে অন্য কলেজের খেলা হয় তাকে আন্তঃক্রীড়াসূচি বলে।

খ) উত্তর ঃ শারীরিক শিক্ষার কর্মসূচি তিনটি। তার মধ্যে প্রথম কর্মসূচি হলো অত্যাবশ্যকীয় কর্মসূচি। একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শারীরিক শিক্ষা সরকারি নির্দেশাবলি, শারীরিক শিক্ষা বিষয়ক ক্লাস, প্রতিযোগিতা, সমাবেশ ও স্থানীয় নির্দেশনা ইত্যাদি সবই অত্যাবশ্যকীয় কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত। অর্থাৎ যে সব ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক কর্মসূচি বিদ্যালয়ে অবশ্যই পালন করতে হয় তাকে অত্যাবশ্যকীয় কর্মসূচি বলে। এই কর্মসূচিগুলো একজন শারীরিক  শিক্ষাকে অবশ্যই পালন করতে হয়।

গ) উত্তর ঃ নালন্দা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রথম কাজটি হলো শিক্ষার্থীর ব্যক্তিগত বিকাশ সাধন। যা উদ্দীপকের আলোকে ব্যাখ্যা হলো। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান একটি সামাজিক প্রতিষ্ঠান। তাই সমাজ সংরক্ষণ, সমাজ সংস্কার ও ইতিবাচক সামাজিক পরিবর্তনের কাজে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমাজ ও দেশের কাছে দায়বদ্ধ। দেশের মানব সম্পদকে সঠিকভাবে বিকশিত করা এবং আজকের শিশুকে আগামী দিনের সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার দায়িত্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উপর ন্যস্ত। সেই বিবেচনায় নালন্দা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রথম কাজটি হলো শিক্ষার্থীর ব্যক্তিগত বিকাশ সাধন। যার মধ্যে শারীরিক, মানসিক  ও আত্মিক দিক অন্তর্ভুক্ত। বিদ্যালয়ের প্রথম কাজটির মাধ্যমে শিক্ষার্থীকে এমনভাবে গড়ে তোলা  হয়, যাতে শিক্ষার্থীরা যে কোনো পরিবেশে নিজেদের খাপখাওয়াতে পারে এবং ধৈর্যের সঙ্গে যে কোনো সমস্যা মোকাবিলা করতে পারে। শারীরিক শিক্ষা শিক্ষার্থীর জৈবিক প্রয়োজন পূরণ করে।

ঘ) উত্তর ঃ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম চারিত্রিক মূল্যবোধের উন্নতি ও সামাজিক গুণের বিকাশের মাধ্যমেই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের প্রকৃত অর্থইে সামাজিক জীবে পরিণত করা সম্ভব। শিক্ষার্থীর জৈবিক সত্তাকে সামাজিক সত্তায় রূপান্তরিত করা। এর মধ্যে শিক্ষার্থীর চারিত্রিক ও মূল্যবোধের উন্নতি এবং সামাজিক বিকাশ অন্তর্ভুক্ত। শিক্ষার্থীর সর্বাঙ্গীন বিকাশের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শারীরিক শিক্ষার প্রয়োজন হয়। শিক্ষার্থীর  শারীরিক ও শরীরবৃত্তীয় প্রয়োজন পূরণে শারীরিক  শিক্ষা প্রত্যক্ষভাবে কাজ করে। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীর শারীরিক শিক্ষা সক্ষমতা ও কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি পায় এবং গতিশীল কাজের জৈবিক চাহিদা পূরণ হয়। শিক্ষার্থীরা খেলাধুলার  কৌশল শেখার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মধ্যে আনুগত্যবোধ জাগ্রত হয়। মানসিক ও বুদ্ধিমত্তার ভীত গড়ে ওঠে।

আত্মসচেতনতা, আত্মনির্ভরশীলতা, আত্মোপলদ্ধি বৃদ্ধি পাওয়ার মাধ্যমে শিক্ষার্থীর  চারিত্রিক গুণাবলি বিকশিত হয়। খেলাধুলায় সামাজিক সম্পর্কের প্রতিফলন ঘটে। এখানে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ভেদাভেদ থাকে না, প্রত্যেকেই নিজেদের আপন মনে করে। মানবিক গুণ অর্জন এবং নেতৃত্বদানের ক্ষমতার বিকাশ ঘটে। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ভ্রাতৃত্ববোধ, উদার মানসিকতা ও সমাজের প্রতি দায়িত্ববোধ জাগ্রত হয়। পরিবেশের সাথে মানিয়ে চলার শিক্ষা অর্জিত হয়।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow