Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : বুধবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:১২
এসএসসি পরীক্ষা : জীববিজ্ঞান
মেহেরুন্নেসা খাতুন
এসএসসি পরীক্ষা : জীববিজ্ঞান

(প্রথম অধ্যায় : জীবন পাঠ)

আজকের আলোচনা : জীবের শ্রেণিবিন্যাস, শ্রেণিবিন্যাসের উদ্দেশ্য, জীবজগৎ ও এর শ্রেণিবিন্যাস।

জানা,  বোঝা এবং শেখার সুবিধার্থে আজ পর্যন্ত বিভিন্ন উদ্ভিদের প্রায় চার লক্ষ (৪,০০,০০০) ও প্রাণীর প্রায় তের লক্ষ (১৩,০০,০০০) প্রজাতির নামকরণ ও বর্ণনা করা হয়েছে।

তবে এ সংখ্যা চূড়ান্ত নয়, কেননা প্রায় প্রতিদিনই আরও নতুন নতুন প্রজাতির বর্ণনা সংযুক্ত হচ্ছে। অনুমান করা হয় যে ভবিষ্যতে সব জীবের বর্ণনা শেষ হলে এর সংখ্যা দাঁড়াবে প্রায় এক কোটি। এই অসংখ্য জীব (উদ্ভিদ+প্রাণি) কে সুষ্ঠুভাবে বিন্যাস করা বা সাজানোর প্রয়োজনের তাগিদেই শ্রেণিবিন্যাস প্রক্রিয়ার সূচনা হয়।

শ্রেণিবিন্যাস

পারস্পারিক সম্পর্কের ভিত্তিতে জীবজগতকে বিভিন্ন দল বা গোষ্ঠিতে শ্রেণীবদ্ধ করার স্বাভাবিক প্রক্রিয়াকে শ্রেণীবিন্যাস বলা হয়।

শ্রেণিবিন্যাসে উল্লেখ্যযোগ্য অবদান রেখেছেন সুইডিশ প্রকৃতিবিদ ক্যারোলাস লিনিয়াস (জন্ম ১৭০৭-মৃত্যু ১৭৭৮)। তিনি সর্বপ্রথম জীবের পূর্ণ শ্রেণিবিন্যাসের এবং নামকরণের ভিত্তি প্রর্বতন করেন।

শ্রেণিবিন্যাসের লক্ষ্য মূলত একটাই। তা হচ্ছে এই বিশাল ও বৈচিত্র্যময় জীবজগতকে সহজভাবে অল্প পরিশ্রমে এবং অল্প সময়ে সঠিকভাবে জানা।

শ্রেণিবিন্যাসের উদ্দেশ্য

১.         প্রতিটি জীবের দল ও উপদল সম্ব্বন্ধে জ্ঞান আহরণ করা।

২.         জীবজগতের ভিন্নতার প্রতি আলোকপাত করে আহরিত জ্ঞানকে সঠিকভাবে সংরক্ষণ করা, পূর্ণাঙ্গ জ্ঞানকে সংক্ষিপ্তভাবে উপস্থাপন করা।

৩.         প্রতিটি জীবকে শনাক্ত করে তার নামকরণের ব্যবস্থা করা।

৪.         সর্বোপরি জীবজগৎ ও মানব কল্যাণে প্রয়োজনীয় জীবসমূহকে শনাক্ত করে তাদের সংরক্ষণে সচেতন হওয়া।

জীবজগৎ ও এর শ্রেণিবিন্যাস

শ্রেণিবিন্যাসের প্রবর্তক সুইডিশ প্রকৃতিবিদ Carolus Linnaeus (ক্যারোলাস লিনিয়াস) অসংখ্য নমুনা জীবের বৈশিষ্ট্য পর্যবেক্ষণ করে তিনি জীবজগতকে দুটি রাজ্যে ভাগ করেন—উদ্ভিদজগৎ ও প্রাণিজগৎ যা লিনিয়াস-এর সময়কাল থেকে শুরু করে বিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত বিবেচনা করা হতো।

বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রায় বর্তমানে কোষের DNA ও RNA এর প্রকারভেদ, জীবদেহে কোষের বৈশিষ্ট্য, কোষের সংখ্যা ও খাদ্যাভ্যাসের তথ্য-উপাত্তের ওপর ভিত্তি করে আর.এইচ. হুইট্টেকার (R.H. Whittaker) ১৯৬৯ সালে জীবজগতকে ঋরাব Kingdom (পাঁচটি রাজ্য) এ ভাগ করার প্রস্তাব করেন।

পরবর্তীতে Margulis (মারগুলিস) ১৯৭৪ সালে আর.এইচ. হুইট্টেকার (R.H. Whittaker) এর শ্রেণিবিন্যাসের পরিবর্তিত ও বিস্তারিত রূপ দেন। তিনি সমস্ত জীবজগতকে দুটি Super Kingdom (সুপার কিংডম) এ ভাগ করেন এবং পাঁচটি জগতকে এই দুটি সুপার কিংডমের আওতাভুক্ত করেন।

সুপার কিংডম (Super Kingdom):

১. প্রোক্যারিওটা (Prokaryota): এরা আদিকোষ (নিউক্লিয়াস সুগঠিত নয়) বিশিষ্ট এককোষী, আণুবীক্ষণিক জীব।

Kingdom (রাজ্য) ১ : Monera (মনেরা) :

বৈশিষ্ট্য :

১.         এরা এককোষী, ফিলামেন্টাস (একটির পর একটি কোষ লম্ব্বালম্ব্বিভাবে যুক্ত হয়ে ফিলামেন্ট গঠন করে), কলোনিয়াল।

২.         কোষে ক্রোমাটিন বস্তু থাকে কিন্তু নিউক্লিওলাস ও নিউক্লিয়ার পর্দা, প্লাস্টিড, মাইটোকন্ড্রিয়া, এন্ডোপ্লাজমিক জালিকা ইত্যাদি নেই কিন্তু রাইবোসোম আছে।

৩.         কোষ বিভাজন দ্বিবিভাজন প্রক্রিয়ায় সম্পন্ন হয়।

৪.         খাদ্যগ্রহণ পদ্ধতি প্রধানত শোষণ। তবে কেউ কেউ ফটোসিনথেসিস বা সালোকসংশ্লেষণ পদ্ধতিতে খাদ্য প্রস্তুত করে।

            উদাহরণ : Nostoc (নীলাভ সবুজ শৈবাল), Escherichia coli (ব্যাকটেরিয়া) প্রভৃতি।

            ১. Super Kingdom (সুপার কিংডম) ২. Eukaryota (ইউক্যারিওটা) :

            এরা প্রকৃতকোষ (নিউক্লিয়াস সুগঠিত) বিশিষ্ট এককোষী বা বহুকোষী জীব। এরা এককভাবে অথবা কলোনি আকারে দলবদ্ধভাবে বসবাস করে।

Kingdom (রাজ্য)-২: Protista (প্রোটিস্টা) :

 

বৈশিষ্ট্য :

১.         এরা এককোষী বা বহুকোষী, একক বা কলোনিয়াল (দলবদ্ধ) বা ফিলামেন্টাস।

২.         কোষে সুগঠিত নিউক্লিয়াস থাকে, ক্রোমাটিন বস্তু নিউক্লিয়ার পর্দা দ্বারা পরিবৃত্ত থাকে। ক্রোমাটিন বস্তুতে উঘঅ, জঘঅ ও প্রোটিন থাকে। কোষে সব ধরনের অঙ্গাণু থাকে।

৩.         খাদ্যগ্রহণ শোষণ, গ্রহণ বা ফটোসিনথেটিক পদ্ধতিতে ঘটে।

৪.         মাইটোসিস কোষ বিভাজনের মাধ্যমে অযৌন প্রজনন ঘটে এবং কনুজেগশনের মাধ্যমে অর্থাৎ জৈবনিকভাবে ভিন্ন কিন্তু গঠনগতভাবে এক, এইরূপ দুটি গ্যামেটের মিলনের মাধ্যমে যৌন প্রজনন ঘটে। কোন ভ্রুণ গঠিত হয় না।

            উদাহরণ : Entamoeba (অ্যামিবা) Paramecium (প্যারামেসিয়াম), Diatoms (এককোষী ও বহুকোষী শৈবাল) প্রভৃতি।

            Kingdom (রাজ্য)-৩: Fungi (ফানজাই):

            অধিকাংশই স্থলজ, মৃতজীবী বা পরজীবী। ক্লোরোপ্লাস্ট অনুপস্থিত।

বৈশিষ্ট্য:

১.         দেহ এককোষী অথবা মাইসেলিয়াম (সরু সুতার মতো অংশ) দিয়ে গঠিত।

২.         এগুলোর নিউক্লিয়াস সুঠিত। কোষপ্রাচীর কাইটিন বস্তু দিয়ে গঠিত।

৩.         খাদ্যগ্রহণ শোষণ পদ্ধতিতে ঘটে।

৪.         হ্যাপ্লয়েড স্পোর দিয়ে বংশবৃদ্ধি ঘটে।

            উদাহরণ : Saccharomyces (ইষ্ট), Penicillium (প্যানিসিলিয়াম), Agaricus (মাশরুম) প্রভৃতি। Kingdom (রাজ্য)-৪: Plantae (প্লানটি):

            এরা সপুসপক, আর্কিগোনিয়েট অর্থাৎ আর্কিগোনিয়াম বা স্ত্রীজনন অঙ্গ বিশিষ্ট উদ্ভিদ। প্রধানত স্থলজ, তবে অসংখ্য জলজ প্রজাতি আছে।

বৈশিষ্ট্য:

১.         এরা প্রকৃত নিউক্লিয়াসযুক্ত সালোক সংশ্লেষণকারী উদ্ভিদ।

২.         এদের দেহে উন্নত টিস্যুতন্ত্র বিদ্যমান।

৩.         এদের ভ্রুণ সৃষ্টি হয় এবং তা থেকে ডিপ্লয়েড পর্যায় শুরু হয়।

৪.         এদের অ্যানাইসোগ্যামাস অর্থাৎ আকার, আকৃতি অথবা শরীরবৃত্তীয় পার্থক্য বিশিষ্ট ভিন্নধর্মী দুটি গ্যামেটের মিলনের মাধ্যমে যৌন জনন সম্পন্ন হয়।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow