Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : সোমবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৪৫
বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়
জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা
মো. হাসানুল কায়সার

সৃজনশীল প্রশ্ন

ঔপনিবেশিক যুগ ও বাংলার স্বাধীনতা সংগ্রাম

উদ্দীপকটি পড়ে নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও  :

এ দেশে এক সময় বিভিন্ন দেশের ব্যবসায়ীরা বাণিজ্য করত। বাণিজ্যকে কেন্দ্র করে তারা এ অঞ্চলের মানুষকে শাসন-শোষণ করতে শুরু করে।

তারা তাদের স্বার্থ হাসিলে নানা কৌশল অবলম্বন করতে থাকে। তবে এতে একটি দেশের ব্যবসায়ীরা বেশি লাভবান হয় এবং এক পর্যায়ে তারা এ দেশের রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করে।

ক. ওয়েস্টফালিয়ার চুক্তি কত সালে সম্পাদিত হয়?

খ. পুঁজি পাচার বলতে কী বুঝায়?

গ. লাভবানকৃত দেশটির বাণিজ্য বিস্তারের কারণ ব্যাখ্যা কর।

ঘ.         ‘বাংলার অভ্যন্তরীণ কোন্দলই উক্ত দেশটির বিজয়ের পিছনে কাজ করেছে—বিশ্লেষণ কর।

উত্তর :

            ক. ১৬৪৮ সালে।

            খ. অননুমোদিতভাবে কোনো দেশ থেকে অর্থ অন্য দেশে স্থানান্তর করাকে পুঁজি পাচার বলে। কোনো দেশে ব্যবসায় করতে হলে সে দেশের সরকারের অনুমতির প্রয়োজন হয়। এই অনুমোদনের জন্য ব্যবসায়ের আয়ের একটি অংশ সরকারকে কর হিসেবে দিতে হয়। এ কর ফাঁকি দিয়ে ওই ব্যবসায়ী যদি অর্থ অন্য দেশে পাঠিয়ে দেয়, তবে তাকে পুঁজি পাচার বলে।

            গ. এখানে লাভবানকৃত দেশটি হলো ইংল্যান্ড। নিম্নে এ দেশে ইংল্যান্ডের বাণিজ্য বিস্তারের কারণগুলো ব্যাখ্যা করা হলো—

            উন্নত কারিগরি জ্ঞান আর পুঁজির জোর—এ দুটি বিষয়কে সমন্বয় করে ক্রমে ক্রমে বিদেশি বণিকরা এ দেশে স্থানীয় শ্রমিকদের খাটিয়ে বড় বড় শিল্প-কারখানা স্থাপন করে প্রচুর মুনাফা করতে থাকে। ধীরে ধীরে পর্তুগিজদের চেয়ে ব্যাপক হয়ে দাঁড়ায় এ দেশে ইংরেজ ব্যবসায়ীদের ভূমিকা। দীর্ঘদিনের ব্যবসায়ের অভিজ্ঞতা থেকে ইংরেজ ব্যবসায়ীরা বুঝতে পারল, বাংলায় স্থায়ীভাবে বসতি স্থাপন করেই সবচেয়ে বেশি ফায়দা উসুল করা সম্ভব। এ সময় কলকাতা, চন্দননগর, চুঁচুড়া, কাশিমবাজার প্রভৃতি স্থানে ইউরোপীয় বাণিজ্যকেন্দ্রগুলো ফুলে-ফেঁপে উঠতে থাকে। আর এদের মাধ্যমে বাংলা থেকে পুঁজিও পাচার হতে থাকে। পলাশীর যুদ্ধের আগে এবং মীর জাফর ও মীর কাশিমের আমলে বাংলার প্রচুর সম্পদ ইংল্যান্ডে পাচার হয়ে যায়। স্বয়ং ক্লাইভও এ সম্পদের প্রাচুর্যের কথা ইংল্যান্ডের পার্লামেন্টে বিস্ময়ের সঙ্গে উল্লেখ করেছিলেন।

            বাংলার ইংরেজ কোম্পানিগুলোর গভর্নর হিসেবে উইলিয়াম হেজেজ ১৬৮২ সালে হুগলিতে আসেন। এ সময় বাংলার মোগল কর্মচারীদের অনেকে রাজস্বসংক্রান্ত দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ে। এর ফলে ইংরেজদের ব্যবসায় ক্ষতি হয়। এ অবস্থায় হেজেজ ইংল্যান্ডের রাজা দ্বিতীয় জেমসকে বিষয়টি বুঝিয়ে ১৬৮৬ সালে স্বদেশ থেকে সৈন্য এনে যুদ্ধের প্রস্তুতি নেন। ১৬৮৭ থেকে ১৬৯০ সাল পর্যন্ত ইংরেজদের সঙ্গে মোগল শক্তির বেশ কয়েকটি খণ্ড যুদ্ধ হয় এবং শেষ পর্যন্ত ইংরেজরা তাদের ব্যবসায়িক সুবিধা আদায় করে এক ঢিলে দুই পাখি মারে। তারা এখানে তাদের কুঠি ও কারখানা তৈরির এবং সৈন্য রেখে ব্যবসায়ের অধিকার পায়।

            মূল কথা হলো—পুঁজির জোর আর উন্নত কারিগরি জ্ঞান ও কূটকৌশল-এর সমন্বয় করার মাধ্যমে এ দেশে ইংরেজরা তাদের বাণিজ্য বিস্তার করতে সক্ষম হয়।

            ঘ. বাংলার অভ্যন্তরীণ কোন্দলই উক্ত দেশটির বিজয়ের পেছনে কাজ করেছে। নিম্নে এ বিষয়টি বিশ্লেষণ করা হলো—

            নবাব আলিবর্দী খাঁর মৃত্যুর পর তার প্রিয় নাতি সিরাজউদ্দৌলা মাত্র ২২ বছর বয়সে যখন সিংহাসনে বসলেন তখন তার সামনে একদিকে উদীয়মান ইংরেজ শক্তি ও হামলাকারী বর্গিদের সামলানো কঠিন কাজ, অন্যদিকে বড় খালা ঘসেটি বেগম ও সিপাহসালার মীর জাফর আলী খানের মতো ঘনিষ্ঠজনদের ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করার কাজ। সিরাজের বিরুদ্ধে তৃতীয় আরেকটি পক্ষও কাজ করেছে।

            অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের বিস্তার ঘটার সঙ্গে সঙ্গে ভারতের বড় ব্যবসাকেন্দ্রগুলোতে ক্ষমতালোভী ভারতীয় বণিক সমাজের অভ্যুদয় ঘটে। রাজপুতনা থেকে আসা মারোয়াড়িরা এ ক্ষমতাবান বণিক। তারাও ব্যবসায়িক স্বার্থে ইংরেজ বণিকদের পক্ষে যোগ দেয় এবং বাংলার নবাবের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। এরই ফল হলো পলাশীর যুদ্ধে বাংলা-বিহার-উড়িষ্যার নবাবের পরাজয় ও নির্মম মৃত্যু এবং ইংরেজদের হাতে বাংলার পতন। এভাবে শুরু হলো বাংলার ইতিহাসে ইংরেজদের প্রত্যক্ষ শাসনের কাল। এ ছাড়া বাংলার অভ্যন্তরীণ কোন্দলের আরও কিছু উল্লেখযোগ্য বিষয় ছিল। নিম্নে তার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো তুলে ধরা হলো—

১. সুদীর্ঘকাল ধরে বাংলা থেকে পুঁজি পাচারের ফলে বাংলার দারিদ্র্য ও গ্রাম সমাজের স্থবিরতা এতই প্রকট ও গভীর ছিল যে, বাণিজ্য বিস্তারের ফলে সৃষ্ট নতুন সুযোগ কাজে লাগানোর মতো উদ্দীপনা তাদের মধ্যে ছিল না।

২. প্রায় ২০০ বছরের স্বাধীন সুলতানি আমল ছাড়া বহিরাগত শাসকদের দীর্ঘ শাসনকালে বাংলার সাধারণ মানুষ চরম অর্থনৈতিক শোষণ ও নির্যাতনের স্বীকার হয়েছে। তারা শাসকদের প্রতি বিমুখ ও উদাসীন ছিল। ফলে ইংরেজ আক্রমণে নবাবের পতন কিংবা স্বাধীনতার অবসান সম্পর্কে তাদের কোনো ধারণা বা আগ্রহ ছিল না।

৩. ক্রমবিকাশমান অর্থনৈতিক ও সামরিক শক্তি হিসেবে ইংরেজদের উত্তরোত্তর শক্তি বৃদ্ধি এবং তাদের ধূর্ত পরিকল্পনা বোঝার মতো কোনো রাজনৈতিক ও সামাজিক শক্তি এ দেশে ছিল না।

৪.         বাংলার অভ্যন্তরীণ শাসকশ্রেণি, বেনিয়া-ব্যবসায়ী গোষ্ঠী ও নবাব পরিবারের সুযোগসন্ধানী বিশ্বাসঘাতক চাটুকারদের কোন্দল ও চক্রান্ত এত গভীর ও ছলনাপরায়ণ ছিল যে তরুণ অনভিজ্ঞ সিরাজের পক্ষে তা মোকাবিলা করা সম্ভব হয়নি।

পরিশেষে বলা যায়, বাংলার অভ্যন্তরের সুযোগসন্ধানী ব্যবসায়ীদের চক্রান্ত, নবাব পরিবারের লুকায়িত কোন্দল, অভ্যন্তরীণ শাসকশ্রেণির বিশ্বাসঘাতকতা ও ক্ষমতালিপ্সা এবং দেশের অস্থিতিশীল পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে ইংরেজরা এ দেশ বিজয় করতে সক্ষম হয়।   

up-arrow