Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৪ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৩ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৪৮
রাজ্জাক-সুচন্দার স্বস্তি
শোবিজ প্রতিবেদক
রাজ্জাক-সুচন্দার স্বস্তি

দীর্ঘদিন পর সিনেমা হলে দর্শকের ঢল নেমেছে। ঈদের ছবি দেখতে উপচে পড়া ভিড় জমেছে। এই খবরে স্বস্তি প্রকাশ করেছেন নায়করাজ রাজ্জাক ও চলচ্চিত্রকার সুচন্দা। তাদের কথায়, দেশীয় চলচ্চিত্রে অনেক দিন ধরে খরা চলছে। ভালো ছবি নেই। সিনেমা হলে দর্শক নেই।  শত শত নির্মাতা, শিল্পী, কলাকুশলী বেকার হয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। সিনেমা হল আশঙ্কাজনকভাবে বন্ধ হচ্ছে। এতে হুমকির মুখে পড়েছে দেশীয় চলচ্চিত্র।

রাজ্জাক ও সুচন্দা বলেন, চলচ্চিত্র হচ্ছে একটি দেশের প্রধান গণমাধ্যম। চলচ্চিত্রের মাধ্যমে সমাজ সংস্কার ও পারিবারিক বন্ধন সুদৃঢ়করণে ভূমিকা রাখা যায়। রাষ্ট্র বিনির্মাণেও সহায়ক দেশের প্রধান এই গণমাধ্যমটি। যেমন জহির রায়হানের ‘জীবন থেকে নেওয়া’ ছবিটি ভাষা আন্দোলন এবং মুক্তিযুদ্ধে প্রেরণা জুগিয়েছিল। দীর্ঘদিন পর ঈদে ‘শিকারি’ ও ‘বাদশা’ ছবি দুটি দেখতে সিনেমা হলে ফিরছে সব শ্রেণির দর্শক। টিকিটের জন্য দীর্ঘ লাইন। অনেকে টিকিট না পেয়ে হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছে। সিনেমা হলের এই চেহারা অনেক দিন ধরেই অনুপস্থিত। এমন চিত্র আবার ফিরে পেয়ে আশাবাদী হয়ে উঠছেন সিনেমা হল মালিকরা। নির্মাতারও আবার নতুন করে সম্ভাবনা দেখতে পাচ্ছেন। এটি চলচ্চিত্র জগতের জন্য আশার বাণী। তবে নির্মাতাদের মনে রাখতে হবে মানসম্মত ছবি নির্মাণের মাধ্যমেই এই সম্ভাবনার ধারা ধরে রাখা যাবে। তাই চলচ্চিত্র নির্মাণে আধুনিকতা ও মান বজায় রাখতে হবে। সময়ের পথে হাঁটতে হবে। নিজস্ব কৃষ্টি, সংস্কৃতি বজায় রেখে নিজস্ব গল্প নিয়ে নির্মাণে এগিয়ে যেতে হবে। চলচ্চিত্রের সুদিন ফিরিয়ে আনা আসলে খুব একটা দুরূহ ব্যাপার নয়। আমাদের বিশ্বাস, মানসম্মত চলচ্চিত্র নির্মাণের মাধ্যমে চলচ্চিত্রকাররা এই ধারা অব্যাহত রাখবেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow