Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : রবিবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৫ অক্টোবর, ২০১৬ ২২:১২
শাবনূর এখন কোথায়
আলাউদ্দীন মাজিদ
শাবনূর এখন কোথায়

জনপ্রিয় নায়িকা শাবনূরের দেখা নেই। দীর্ঘদিন ধরে বড়পর্দায় অনুপস্থিত তিনি।

তাকে খুঁজে ফিরছেন তার প্রিয় দর্শক-ভক্ত আর নির্মাতারা। ১৯৯৩ সালে প্রখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা এহতেশামের হাত ধরে বড়পর্দায় এলো ছিপছিপে গড়নের একটি মেয়ে। ডাগর চোখের সেই মেয়ের নাম নূপুর। নূপুরের নিক্কনে বড় পর্দায় ঝড় তুলল মেয়েটি। গুরুর দেওয়া শাবনূর নাম নিয়ে চলচ্চিত্রের উঠোনে তির তির করে হেঁটে চলল মেয়েটি। সাফল্য ছিল তার নিত্যসঙ্গী। প্রায় ২৩ বছরের অনবরত হাঁটায় শাবনূর আজ আর সেই ছিপছিপে নেই। চলচ্চিত্রেও অনুপস্থিত। এখন মুটিয়ে যাওয়া এক সংসারী মেয়ের নাম হলো শাবনূর। তাহলে কী চলচ্চিত্রের অন্যতম জনপ্রিয় নায়িকা শাবনূরের চলচ্চিত্র অধ্যায় শেষ হওয়ার পথে? এমন প্রশ্ন এখন দর্শক-ভক্ত আর নির্মাতার। অসংখ্য হিট সুপার হিট ছবির এই নায়িকা অভিনীত মাত্র দুটি ছবি অবশিষ্ট আছে।   ছবি দুটি হলো মোস্তাফিজুর রহমান বাবু পরিচালিত ‘অবুঝ ভালোবাসা’ এবং নজরুল ইসলাম খান পরিচালিত ‘স্বপ্নের বিদেশ’। ‘অবুঝ ভালোবাসা’ ছবিটি অনিশ্চিত হয়ে গেছে ছবির প্রযোজক নাজিমউদ্দিন চেয়ারম্যানের আকস্মিক মৃত্যুর কারণে। আর ‘স্বপ্নের বিদেশ’ অনিশ্চিত হয়ে আছে দুটি কারণে। প্রথমত, ছবির নায়ক শাকিব খানের সঙ্গে তার মানসিক দূরত্ব। দ্বিতীয়ত, ছবির লন্ডন প্রবাসী প্রযোজকের আগ্রহ কম। প্রযোজক নিজেও এ ছবির আরেক নায়ক। বিপরীতে নায়িকা নদী। নদীও প্রায় নিখোঁজ। এ আবস্থায় এই ছবির আলোর মুখ দেখা প্রায় অনিশ্চিত। তার ওপর আবার শাবনূরের বিয়ে, মা হওয়া, অস্ট্রেলিয়ায় অধিক সময় বসবাস করা- সব মিলিয়ে এই সময়ে শাবনূরকে নিয়ে ছবি নির্মাণের মতো প্রযোজক পরিচালকও নেই। শাবনূরও এটা বুঝতে পেরে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন। অভিনয় নিয়ে তার মাথাব্যথা নেই। যখনই দেশে এসেছেন তখনই নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ছেন। অল্প সময় দেশে থেকে আবারও অস্ট্রেলিয়া চলে যান। সর্বশেষ ২০১৩ সালে মুক্তি পায় মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত ‘কিছু আশা কিছু ভালোবাসা’। এ ছবিটি শেষ করেই ২০১৩ সালের অক্টোবরে শাবনূর পাড়ি জমান অস্ট্রেলিয়ায়। আর এ সময়েই ফাঁস হয়ে যায় শাবনূরের গোপন বিয়ের খবর। এর কয়েক মাস পরেই ২০১৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর ছেলেসন্তানের মা হন শাবনূর। এরপর থেকেই শোনা যাচ্ছিল দেশে ফিরবেন তিনি। আসি আসি করেও শাবনূর এলেন ২০১৪ সালের ১ অক্টোবর। ছেলে আইজানকে নিয়ে দীর্ঘদিন দেশে থাকলেও সন্তানকে নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ায় কোনো ছবির শুটিং করতে পারেননি শাবনূর। অস্ট্রেলিয়ায় যাওয়ার আগে শাবনূর বেশকিছু ছবির কাজ অসমাপ্ত রেখে গিয়েছিলেন। এর মধ্যে এম এম সরকারের ‘পাগল মানুষ’, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুর ‘অবুঝ ভালোবাসা’ আর নজরুল ইসলাম খান পরিচালিত ‘স্বপ্নের বিদেশ’। কথা ছিল অস্ট্রেলিয়া থেকে ফিরেই শাবনূর এ ছবিগুলোর কাজ শেষ করবেন। কিন্তু বিয়ে করে সন্তান নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন সংসার জীবনে। ফলে দীর্ঘদিন ধরেই আটকে আছে এই ছবিগুলোর কাজ।

এদিকে অপেক্ষায় থাকা পরিচালকদের মধ্যে প্রয়াত এম এম সরকারের ‘পাগল মানুষ’ ছবির কাজ শেষ করার উদ্যোগ নেন বদিউল আলম খোকন। বেশ বিলম্বে গত বছরের ১ আগস্ট ছবিটির শুটিংয়ে অংশ নিয়েছেন তিনি।

এর মধ্যে সালাউদ্দিন লাভলুর একটি ছবিতে অভিনয় করার কথা ছিল শাবনূরের। ছবিটি করবেন করবেন বলে করা হচ্ছে না তার। শুটিং শুরু করার আগেই চলে যাচ্ছেন আবারও অস্ট্রেলিয়ায়। শাবনূর যদিও আশ্বাস দিয়েছেন তিনি স্লিম হয়ে আবার দেশে ফিরে আসবেন। এসেই নতুন ছবি শুরু করবেন। আসলেই কি তিনি ফিরবেন? নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পরিচালক বলেন, ‘শাবনূর তো এর আগেও বলেছিলেন, মাত্র কয়েক মাসের জন্য অস্ট্রেলিয়া যাচ্ছি, ফিরেই কাজ শেষ করব। কিন্তু ফিরলেন তো প্রায় দুই বছর পর। এবারও মনে হচ্ছে তাই হবে।

up-arrow