Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৩ এপ্রিল, ২০১৭ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১২ এপ্রিল, ২০১৭ ২৩:১০
আমি চাই অপু শুধু রান্নাবান্না করুক : শাকিব খান
হঠাৎ করেই সবার সামনে চলে আসে শাকিব-অপুর বিয়ে আর সন্তানের গোপন রহস্য। অপুর বক্তব্যের পর মঙ্গলবার ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভির ‘আজকের বাংলাদেশ’ অনুষ্ঠানে হাজির হন শাকিব খান। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন খালেদ মুহিউদ্দিন। অপুর সঙ্গে শাকিবের প্রেম বিয়ে আর সন্তানকে নিয়ে তিনি বিভিন্ন প্রশ্নের খোলামেলা জবাব দেন। তার সাক্ষাৎকারটির চুম্বকাংশ এখানে তুলে ধরা হলো—
আমি চাই অপু শুধু রান্নাবান্না করুক : শাকিব খান
bd-pratidin

শাকিব খান, আপনি বলেছেন, ‘গতকাল (সোমবার) মাথা গরম করে যা কিছুই বলি না কেন, এটা আমার ঘর, আমার সংসার, আমার সন্তান। আমাকে তাদের সঙ্গেই থাকতে হবে।’ বিষয়টি বিস্তারিত বলবেন?

এই অনুষ্ঠানে আমি এর আগে যতবারই এসেছি প্রতিবারই কোনো ভালো কিছু নিয়েই এসেছি। তবে আজকের বিষয়টা এমন নাও হতে পারত। আরও অনেক সুন্দর হতে পারত। আমার ছেলেকে এটলিস্ট আমি এমনভাবে প্রেজেন্টেশন দিতে চাইনি। আমি চেয়েছি শাকিব খানের ছেলের প্রেজেন্টেশনটা শাকিব খানের মতই হবে। হয়তো পারিবারিক ঝামেলার কারণেই বিষয়টা এমন হয়েছে।

 

আপনার সন্তানের জন্য পরিকল্পনা কেমন ছিল?

শুধু আবরামের কারণেই কিন্তু আমি অনেক কিছু মেনে নিয়েছি। অনেক চুপ রয়েছি। বিকজ আই লাভ মাই সান। মাশাল্লাহ, আমার ছেলে দেখতেও অনেক সুন্দর হয়েছে।

 

এক কথায় জানতে চাই, অপু বিশ্বাসের সঙ্গে আপনার সম্পর্কটা কী ছিল, কী আছে বা কী থাকবে?

অপু বিশ্বাস যেহেতু আমার ছেলের মা। অফকোর্স সে আমার স্ত্রীও এবং আমার সন্তানের মা হিসেবে অপুর অবস্থানটা অনেক উপরে। আসলে অনেক সিনিয়র বলছেন, আমার মতো এমন অবস্থা সম্পন্ন মানুষের পেছনে অদৃশ্য কিছু অশুভ শক্তি থাকে। যারা সবসময়ই চেষ্টা করে যে তাকে কীভাবে হেয় করা যায়। আর এ কাজগুলোতে খুব কাছের মানুষকে ব্যবহার করা হয়। এ ছাড়া আমি বাংলাদেশ-ভারত কো-প্রোডাকশনের চলচ্চিত্র করছি। আমার বেশ কিছু অর্জনও আছে। এমন সময় আমার শত্রু সংখ্যা অনেক হবে— এটাই স্বাভাবিক। সেই মানুষগুলো আমার কাছের মানুষটাকে দিয়েই সুযোগটা নেবে এটা বুঝতে পারিনি। গত সোমবার ঘটনাটা কে ঘটিয়েছে, কী কারণে ঘটেছে জানি না। আপনি অপুর কথাগুলোতে মনোযোগ দেন। ও কী বলেছে, আমি তাকে মর্যাদা দেইনি? দিয়েছি। আবরামকেও মর্যাদা দিয়েছি। আমি শুটিং শেষেও আমার ছেলেকে দেখতে গেছি। আমি চেয়েছি আমার স্ত্রী অন্য দশজন স্ত্রীর মতো ঘর-সংসার, রান্না-বান্না করুক। কিন্তু সে চায় অভিনয় করতে, নায়িকা হতে। সে আসলে খুবই লোভী একটা মেয়ে।

আপনি কিন্তু কখনো বলেননি যে আপনি একটি সন্তানের পিতা। একজন নারীর স্বামী।

এটা আসলে ওকে জিজ্ঞেস করা উচিত কারণ তখন আমার ক্যারিয়ারের চেয়ে অপুর ক্যারিয়ার মুখ্য বিষয় ছিল। প্ল্যান করাই ছিল বিষয়টা। আজকে প্রত্যেকটি সুপারস্টার হিরোরই কিন্তু স্ত্রী ছেলে মেয়ে আছে। আমি অপুকে অনেকবার বলেছি তুমি কাজ ছেড়ে দাও। কিন্তু অপু মানতে চায়নি। সে সন্তানের জন্মের পরেও এসে সে কাজ করবে। গতকালের ঘটনাটাও কিন্তু একটি সিনেমাকে কেন্দ্র করেই হয়েছে।  সে ট্র্যাপে পড়ে বোকামিটা করে ফেলেছে। দর্শক এখন আর শাকিব-অপু জুটি অনস্ক্রিন দেখতে চাইবে না। সাধারণ মানুষ কিন্তু স্বামী-স্ত্রীর অনস্ক্রিন রোমান্স পছন্দ করেন না।

আপনাদের মধ্যে ঝামেলা মিটে গেছে বলে শোনা যাচ্ছে। অপু বলেছে, আপনি তার রিয়েল লাইফেও হিরো—

‘এটা অপুর কথা না। কারণ অপু এত সুন্দর করে কথা বলতে পারে না। তাকে কেউ হয়তো শিখিয়ে দিচ্ছে। আর আমার ফেরার কথা আসছে কেন কারণ, আমি তো ছিলামই। গত পরশু রাতেও আমরা একসঙ্গে ঘুরেছি। ১২ লাখ টাকাও দিয়েছি। আর যা হয়েছে আমি কোনো কিছুই অস্বীকার করছি না। কারণ আই লাভ মাই সান।’

ইউ অনলি লাভ ইউর সান? নট ইউর ওয়াইফ?

সে আমার সন্তানের মা। তাকে অবশ্যই আমি রেসপেক্ট করি। 

অপু কী আপনার ওয়াইফ নাকি শুধুই সন্তানের মা?

অবশ্যই অপু আমার ওয়াইফ। আমার সন্তান তো অবৈধ না।

অপু বলছিল আপনার ক্যারিয়ারের কথা ভেবে তিনি চুপ করে ছিলেন আর আপনি বলছেন অপুর ক্যারিয়ার ভেবেই আপনি চুপ করে ছিলেন— কোনটা ঠিক?

এতদিন আমার ক্যারিয়ারের কথা ভেবেছে আর গতকাল (সোমবার) সে আমার ক্যারিয়ার খুব উজ্জ্বল করেছে? সবার মনে একটু হলেও তো প্রশ্ন জেগেছে, একটু হলেও তো সমালোচিত হয়েছি। লোকজন ভাববে, বাংলা সিনেমাকে আন্তর্জাতিকভাবে তুলে ধরার জন্য শাকিব এত কিছু করেছে অথচ সে এমন একটা ঘটনা ঘটাতে পারে? আর ঘটনাটা যখন ঘটে আমি তখন খুব ক্লান্ত ছিলাম। বাসায় ঘুমাচ্ছিলাম। যখন বাসার অন্যরা আমাকে টিভিতে দেখাল ওটা দেখে আমার মাথা ঠিক ছিল না। পৃথিবীর কোনো বাবার মাথাই ঠিক থাকার কথা না। আমি আমার ছেলেকে একটা টিভি স্ক্রিনে এভাবে অসহায়ের মতো বসে থাকতে দেখতে চাইনি।

অনুুষ্ঠান যখন চলছিল তখন কি সেই টেলিভিশন থেকে আপনার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়েছিল?

আমার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়নি।

আপনি ষড়যন্ত্রের কথা বলছিলেন। সে ষড়যন্ত্রটা কী?

রাজনৈতিক হোক কিংবা বিজনেস ম্যাগনেট হোক বা স্টার হোক— প্রত্যেকের পেছনে একটি অদৃশ্য, অশুভ শক্তি কাজ করে। সুযোগ খুঁজতে থাকে। হয়তো গতকালের (সোমবার) দিনটা আমার ছিল না। 

 

গতকাল (সোমবার) আপনি বলেছেন সন্তানের দায়িত্ব নেবেন কিন্তু স্ত্রীর দায়িত্ব নেবেন না। আপনি আজ বলছেন, আপনি রাগের মাথায় কথাগুলো বলেছেন—

ডেফিনেটলি। আমি অনেক বাজে ব্যবহারও করেছি অনেকের সঙ্গে, যা আমি কখনো করি না। ঘুম থেকে উঠে এভাবে আমার ছেলেকে টিভিতে দেখব এটা আমি ভাবতে পারিনি। আমার মাথা কাজ করছিল না।  

সন্তানের জন্মের সময় আপনার মতো একজন পিতা সন্তানের পাশে ছিলেন না। সন্তানের চেয়ে তার কাজ কী করে বড় হয়ে যায়?

 ইন্ডিয়াতে যখন ডেলিভারির ব্যবস্থা করা হলো তখন আমার ছবি সেখানে রিলিজ পেয়েছে। আমাকে সেখানে অনেকেই চিনে। অনেক বাঙালির সেখানে যাতায়াত রয়েছে। আবার অপুও সিনেমা করতে চাচ্ছিল। তাই আমার বিষয়টি হাইড করতে চেয়েছিলাম।

ছেলেকে প্রথম দেখলেন কখন? 

ওরা যখন দেশে ফেরে তখন আমি ইন্ডিয়াতে ছিলাম।

ছেলের মুখ দেখতে দুই-তিন মাস সময় লেগে গেল?

এমনই হবে।

আপনাদের মাঝে বুবলীর কথাও চলে আসছে গণমাধ্যমে। রংবাজ নামের একটি ছবিতে অপুর বদলে বুবলিকে নেওয়া হয়েছে। সে খবর দেখেই অপুর এমন প্রতিক্রিয়ার কথা শোনা যাচ্ছে—

অপুর তো এই চলচ্চিত্রে কাজ করার কথাই ছিল না। তার কামব্যাক করার কথা ছিল কোরবানির ঈদে বসগিরি টু নামের একটি  ছবিতে। সেভাবেই আমাদের প্ল্যান ছিল। এখন তার ফিজিক্যাল ফিটনেসও নেই। এতটুকু একটা বাচ্চা রেখে সে আউটডোরে গিয়ে থাকবে ২০-২৫ দিন?

বুবলীর প্রতি আপনার অতিরিক্ত কোনো পক্ষপাতিত্ব আছে কিনা—

বুবলী ফিল্মে এসেছে সেই দিন মাত্র। ও কিন্তু এসেই দুটি ব্যবসাসফল চলচ্চিত্র দিয়েছে। যার একটি গান ‘দিল দিল’ কোটি ভিউয়ার্স ক্রস করেছে। আজ যখন একজন প্রযোজক সিনেমা বানাতে যায় সে শাকিব খানের বাইরে গিয়েও অনেক কিছু চিন্তা করে।

তার মানে রংবাজ সিনেমায় বুবলী থাকবে এটা প্রযোজকের সিদ্ধান্ত, শাকিবের না?

এটা প্রযোজকদের দাবি ছিল।

অপুকে নিয়ে আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী?

ভবিষ্যতের পরিকল্পনাটা আসলে ভবিষ্যতের ওপরই ছেড়ে দিই। আর দুর্ঘটনা যেটা ঘটে গেছে, কিছু ভুল অপু করেছে। আমি আজ সকালেই আবরামের কথা চিন্তা করে আমার স্ত্রী অপুকে মন থেকে মাফ করে দিয়েছি। আমার বিশ্বাস অপু ভবিষ্যতে আর কখনো এ ধরনের ভুল করবে না। অন্তত একবার চিন্তা করবে কথাটা কার বিরুদ্ধে বলছি। আসলে আমি তো শুধু আমি নই, আমি একজন সুপারস্টার। আমি শাকিব খান ধ্বংস হয়ে যাওয়া মানে বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি ধ্বংস হয়ে যাওয়া।

আমাদের দর্শকরা শাকিব খান ও তার স্ত্রী অপু বিশ্বাস এবং তাদের সন্তান আবরাম এভাবে মিডিয়ায় আসুক, আলোচিত হোক এমনটি কেউ চান না।

সেটা আমার জন্য কোনো দিন কাম্য ছিল না। আমি নিজেও কখনো চাইনি। যাই হোক যে দুর্ঘটনাটি ঘটে গেছে সেটি তো আর ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়। তবে যাই ঘটেছে আমার দর্শক যারা আমাকে পছন্দ করেন, আমাকে ভালোবাসেন, যাদের কারণে আজকে আমি শাকিব খান তাদেরকে আমি বলতে চাই যে, এ সম্পূর্ণ ঘটনাটি একটা গেম ছিল। আর সেই গেমের মধ্যে অপু না বুঝেই পা দিয়েছে।

আপনি সংবাদ সম্মেলন ক্যানসেল করলেন কেন?

এটাও একটা অপপ্রচার। আর এই অপপ্রচারটাও করেছে যারা এই পুরো গেমটা সাজিয়েছে। সেই গেমটাই এমন ছিল যে শাকিব খান একটা সংবাদ সম্মেলন ডাকছেন, তার বিপরীতে অপু বিশ্বাসকেও একটি সংবাদ সম্মেলন ডাকতে হবে। সকালে আমি এত সুন্দরভাবে বিষয়টি হ্যান্ডেল করার চেষ্টা করেছি, ওই যে তাকে খেপিয়ে  দেওয়া হয়েছে। আমি নিজেও জানি না আজ আমার সংবাদ সম্মেলন।

গতকাল থেকে ঘটে যাওয়া ঘটনায় কী আপনার ক্যারিয়ার হুমকির মুখে পড়েছে নাকি সেই শঙ্কা কেটে গেছে?

সেটা নিয়ে আসলে এখন আমি ভাবছি না। কারণ আমি চতুর্পাশ থেকে যেভাবে সাড়া পেয়েছি, আমার সিনিয়ররা বলছেন, আমার সহকর্মীরা বলছে এবং বিভিন্ন মানুষ যেভাবে বলছেন ফেসবুকে কিংবা টুইটারে। আসলে প্রত্যেকটা সাকসেসফুল মানুষের পেছনে এ ধরনের ষড়যন্ত্র হয়েছে। আমাদের দেশেও হয়েছে, খ্যাতিমান মানুষের কিন্তু অনেকের অনেক রকম ঘটনা ঘটেছে পারিবারিক জীবনে। তাদের নিয়ে নানা স্ক্যান্ডাল হয়েছে। সফল মানুষগুলো বিষয়টিকে ওভাবেই ফিল করে যে, এটা তার ব্যক্তিজীবন আর ওটা তার ক্যারিয়ার।

আমাদের এই অনুষ্ঠানে অপু বিশ্বাস কথা বলতে চাইছেন

— অপু আপনি বলেন আমরা শুনছি—

গতকাল থেকে আমাদের এসব কথা নিয়ে রিউমার হচ্ছে তখন বুবলী তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে আমাকে প্রেসার দিয়ে বলে, কেন সে আগে বলেনি? কেন সে বাচ্চার কথা আনেনি? একটা হিরোইন হয়ে কেন সে এটা করেছে? আমি শাকিব খানের স্ত্রী হিসেবে একটা কথা বলব, আমাদের পারিবারিক সংক্রান্ত বিষয়ে একজন জুনিয়র আর্টিস্ট নাক গলাচ্ছে। শাকিব কিন্তু বিষয়টির উত্তর দিতে পারত।

শাকিব খান আপনি যদি এই প্রশ্নের জবাব দিতেন—

ফেসবুক স্ট্যাটাসে অনেকেই লিখেছে। যেহেতু বুবলীর নাম এসেছে, আপনারা জানেন এর আগে বুবলীর সঙ্গে একটু ক্ল্যাশ হয়েছে। অপুই করেছে সেটা। আসলে আমি বুঝতে পারি না যে কিসের মধ্যে পড়ে গেল? কী হচ্ছে বিষয়গুলো?

অপু আসলে স্ত্রী হিসেবে আপনার কাছে একটি দাবি করেছে—

আমার স্ত্রী নিজেই একজন সুপারস্টার। তিনি চাইবেন না হয়তো আরেকজন সুপারস্টার হোক।

বুবলী ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, অপু চায় না শাকিব খান ও বুবলী একসঙ্গে কাজ করুক—

এটা একটা অযৌক্তিক চাওয়া। তাহলে আমি কাজ করব কার সঙ্গে!

আপনি কেন যেন বুবলিকে একটু আপনার দিকে টানছেন মনে হচ্ছে আরকি!

বুবলী একটা ভালো ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে এসেছে। ইউনিভার্সিটিতে পড়াশোনা করছে। সে একটা স্বনামধন্য নিউজ চ্যানেলের নিউজ প্রেজেন্টার ছিল। একটা এডুকেটেড মেয়ে একটা ভালো ফ্যামিলি থেকে এসেছে। তার গান অলরেডি এক কোটি ভিউয়ারসও হয়েছে। তো সেই ক্ষেত্রে তাকে প্রডিউসার কাস্ট করতেই পারে আমার বিপরীতে। এটা তো অস্বাভাবিক কিছু নয়।

 

অপু এমন কোনো আশঙ্ক কী করছে যে শাকিব খান বুবলীর প্রেমে পড়ে গেলেও যেতে পারে। এরকম কোনো কিছু?

বুবলীর সঙ্গে আমার তেমন কোনো, কোনো রকম সম্পর্ক নেই।

দর্শক বা অপুর উদ্দেশে আপনি কি কিছু বলবেন কিনা—

আসলে যে ঘটনাটি ঘটে গেছে সেটা আমার জন্য অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। এ ধরনের বাজে সিচিউশনে যখন কেউ পড়ে আসলে বিভ্রান্তির কোনো কারণ নেই। যে কোনো কিছু সুপারস্টারকে নিয়েই হবে। নাম-বদনাম দুটোই পাশাপাশি চলে। একটা সুপারস্টারের ব্যক্তিজীবন, একটা সুপারস্টারের ক্যারিয়ার দুটোই কিন্তু আলাদা।

up-arrow