Bangladesh Pratidin

ফোকাস

  • ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ আর নেই ( (ইন্না লিল্লাহি... রাজিউন)
  • বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকতে পারে আরও ৩ দিন
  • বিচারবর্হিভূত হত্যার মাধ্যমে অপরাধ দমন সম্ভব নয়: বিএনপি
  • নাজিমের পরিবারকে কেন কোটি টাকা দেয়া হবে না : হাইকোর্ট
  • খালেদের অভ্যুত্থানের ডাক, যুবরাজ সালমানের নীরবতা নিয়ে বাড়ছে সন্দেহ!
  • ইকার্দিকে বাদ দিয়ে আর্জেন্টিনার চূড়ান্ত দল ঘোষণা
  • রাজীবের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার আদেশ স্থগিত, তদন্তের নির্দেশ
  • ৯ জেলায় 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত ১১
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ ২৩:২৮
অপুর হাতে ডিভোর্স লেটার
আলাউদ্দীন মাজিদ
অপুর হাতে ডিভোর্স লেটার

অবশেষে অপু বিশ্বাসের হাতে এসে পৌঁছল শাকিব খান প্রেরিত ডিভোর্স লেটার। গত পরশু রাত প্রায় ৯টার দিকে অপু ডিভোর্স লেটারটি হাতে পান বলে জানান। তবে ডিভোর্স লেটারটি তিনি গতকাল দুপুরে এই প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলা পর্যন্ত খুলে দেখেননি বলেও জানান। কেন তিনি তা খুলে দেখলেন না?

এ প্রশ্নের জবাবে অপু ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, শাকিব এমন একটি ন্যক্কারজনক কাজ করবে স্বপ্নেও ভাবিনি। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সমস্যা হতেই পারে। তাই বলে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে সে আমাকে ডিভোর্স লেটার পাঠাবে তা ভাবতেও আমার ঘৃণা হচ্ছে। এই ঘৃণা থেকেই ডিভোর্স লেটারটি খুলে দেখার মানসিকতা আমি হারিয়ে ফেলেছি। এটি নিয়ে আমি আমার আইনজীবীর কাছে যাব। আইনিভাবে যা হওয়ার তাই হবে। কারণ আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলার পর সংবাদ সম্মেলন করতে পারেন বলেও জানান তিনি। এদিকে বর্তমানে হায়দরাবাদে ‘নোলক’ ছবির শুটিংয়ে থাকা শাকিব খান বলেন, আমি কেন তাকে ডিভোর্স দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি দেশের মানুষের কাছে তা এখন পরিষ্কার। আমি যদি তার সঙ্গে স্বেচ্ছাচারিতা করতাম বা খেয়াল-খুশি মতো তাকে ডিভোর্স দিতে চাইতাম তাহলে অনেক আগেই তা করতাম। চলতি বছরের ১০ এপ্রিল একটি টিভি চ্যানেলে গিয়ে আমার বিরুদ্ধে নেতিবাচক কথা বলা সত্ত্বেও আমি তাকে ক্ষমা করে দিয়েছি। তার চাল-চলনে আমি এতটাই অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছি যে, বিশেষ করে গত মাসে আমার শিশুপুত্র জয়কে ঘরে

তালাবদ্ধ করে কাজের লোকের কাছে রেখে আমাকে না জানিয়ে হঠাৎ করে দেশের বাইরে চলে যাওয়ায় আমি জয়ের নিরাপত্তা নিয়ে উৎকণ্ঠিত হয়ে পড়ি এবং বাধ্য হয়েই ডিভোর্সের পথ বেছে নেই।

শাকিব বলেন, অপুর বিষয়ে যা করার তা করে ফেলেছি। এখন আর এ বিষয় নিয়ে কোনো কথা বলতে চাই না। আমার আইনজীবীই যা বলার বলবে। আমার হাতে এখন প্রচুর ছবির কাজ। অভিনয় নিয়েই ব্যস্ত থাকতে চাই। দেশি চলচ্চিত্র শিল্পের উন্নয়নে ভালো ভালো কাজ করে যেতে চাই।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow