Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : ১ মার্চ, ২০১৭ ১৬:২৪ অনলাইন ভার্সন
আপডেট :
রাঙামাটি মাতালেন হাসান
ফাতেমা জান্নাত মুমু, রাঙামাটি
রাঙামাটি মাতালেন হাসান

রাঙামাটি মাতালেন জনপ্রিয় ব্যান্ড তারকা হাসান। তার গানের টানে পাহাড়ের দূর দূরান্ত থেকে ছুঠে আসে ভক্তরা।

প্রিয় শিল্পীকে এক নজর দেখতে ও গান শুনতে ভিড় জমায় রাঙামাটি মারী স্টেডিয়ামে। হাসানের গান শুরু হওয়ার সাথে কানায় কানায় ভরে যায় পুরো স্টেডিয়াম মাঠ। গণমানুষের ঢল সন্ধ্যার দিকে পরিণত হয় জনসমুদ্রে। গান শুনতে আসে পাহাড়ি-বাঙালী বিভিন্ন বয়সের নারী পুরুষও। হাসানের কনসার্টকে ঘিরে সম্প্রীতির মিলন মেলায় পরিণত হয় রাঙামাটি শহর। জাতি ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে গানে তালে তালে নেচে গেয়ে একাকার হয়ে যায় সবাই। মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় শুরু হওয়ার পর এ গানের উৎসবের আমেজ চলে মধ্যরাত পর্যন্ত।

অন্যান্য জেলার চেয়ে কিছুটা ভিন্ন চিত্র পার্বত্য এ জেলা রাঙামাটি। এ অঞ্চলে বসবাস করে বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর মানুষ। তাদের মধ্যে সম্প্রীতি উন্নয়ন ও পিছিয়ে পড়া মানুষগুলোকে একটু আনন্দ দিতে এ কনসার্টের আয়োজন করা হয় বলে জানালেন রাঙামাটি পৌর মেয়র আকবর হোসেন চৌধূরী। তিনি বলেন, রাঙামাটি বর্তমান পৌরসভার এক বছরপূর্তি উপলক্ষে আয়োজন করা হয় পাহাড়ের শান্তি সম্প্রীতির কনসার্ট। আমাদের আমন্ত্রণের সাড়া দেন জনপ্রিয় ব্যান্ড তারকা হাসান। তাকে পেয়ে রাঙামাটিবাসীও খুশি।

এদিকে, প্রথমবার রাঙামাটিতে প্রিয় সংগীত শিল্পীকে কাছে পেয়ে আনন্দে আত্মহারা হয়ে উঠেন শ্রোতারা। দলবন্ধ হয়ে বন্ধু-বান্ধব নিয়ে আসেন গান শুনতে। আবার অনেকে পবিবার-পরিজন নিয়ে আসেন হাসানের সাথে ছবি তুলতে। কেউ কেউ হাসানের সাথে তাল মিলিয়ে কাল রঙের শার্ট পরে গানের উৎসবে মেতে উঠেন। আতশবাজি, বাদ্যযন্ত্রে ধ্বনি কম্পিত হয় রাঙামাটি। তবে জীবনের প্রথম স্বপ্নের ড্রিম ল্যান্ড রাঙামাটিতে এসে আনন্দিত এ সঙ্গীতশিল্পী।

এ ব্যাপারে জনপ্রিয় ব্যান্ড ‘আর্ক’র তারকা সংগীত শিল্পী হাসান বলেন, রাঙামাটিতে এসে আমি আনন্দিত ও উল্লাসিত। দীর্ঘ বছরের ইচ্ছা আজ পূরণ হলো। রাঙামাটি আমার কাছে সংগীত জগতের স্বপ্নের ড্রিম ল্যান্ড। তিনি আরও বলেন, আমার গানের যারা ভক্ত, তারা সারা বাংলাদেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। সর্বপ্রথম আমি সারা পায় রাঙামাটি থেকে। এ অঞ্চলে মানুষ যথেষ্ট সংগীত অনুরাগী। দীর্ঘ ২০ বছর ধরে এ অঞ্চলের মানুষদের কাছে চিঠি পেয়েছি। সেই থেকে রাঙামাটির প্রতি আমার এত ভালবাসা ও মমতা। তাই গানে গানে রাঙামাটিবাসীর জন্য আমার ভালোবাসা উজার করে দিতে চাই। এ আসা আমার শেষ আসা নয়, আবারও আমি ফিরে আসবো কোন এক বসন্তে।

কনসার্টে প্রতিশ্রুতি, অজুত লক্ষ, সুইটি, আল্লাহ নবীজির নাম, বাংলাদেশসহ একে একে ১০টি গান পরিবেশন করেন তিনি। হাসানের গানের সাথে সুর মিলিয়ে দর্শকরাও নেচে গেয়ে মাতোয়ারা হয়ে উঠেন। তার গানের সুরে গুনজন ছড়িয়ে পড়ে পুরো রাঙামাটি শহরে। রাঙামাটি প্রায় ১০টি উপজেলা থেকে আসে তার ভক্তরা।


বিডি-প্রতিদিন/০১ মার্চ, ২০১৭/মাহবুব

 

আপনার মন্তব্য

up-arrow