Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : ৯ মার্চ, ২০১৭ ১৯:৪৯ অনলাইন ভার্সন
আপডেট :
করণ তো ভাড়া করা সঞ্চালক মাত্র, বিস্ফোরক কঙ্গনা
অনলাইন ডেস্ক
করণ তো ভাড়া করা সঞ্চালক মাত্র, বিস্ফোরক কঙ্গনা
ফাইল ছবি

কঙ্গনা রানাউত বরাবরই ঠোঁটকাটা স্বভাবের। উচিত কথায় কাউকে ছাড় দেন না।

আর এটা করতে গিয়ে মাঝেমধ্যেই বিতর্কে জড়িয়ে ফেলেন নিজেকে। তবে কে কী মনে করলো তাতে পরোয়া নেই তার। বিভিন্ন সময় বহু বিতর্কে জড়িয়েছেন তিনি। এ বার তার বাক্‌যুদ্ধ পরিচালক ও উপস্থাপক করণ জোহরের সঙ্গে।

সম্প্রতি করণ দাবি করেন, ‘ভিকটিম কার্ড’ আর ‘ওম্যান কার্ড’ ব্যবহার করে নাকি কেরিয়ারে সুবিধা পেতে চাইছেন কঙ্গনা। জবাবে বেশ কোমর বেঁধেই লড়াইয়ে নেমেছেন নায়িকা। তার প্রশ্ন, ‘ওম্যান কার্ড’ আর ‘ভিকটিম কার্ড’ ঠিক কী? করণ কি একজন নারীকে তার অস্তিত্ব নিয়ে লজ্জা দিচ্ছেন? উইম্বলডন বা অলিম্পিক পদক জয়ে ‘ওম্যান কার্ড’ সাহায্য করবে না ঠিকই। কিন্তু ভিড়ে ঠাসা বাসে লেডিজ সিটে জায়গা পেতে কোনও অন্তঃসত্ত্বাকে ওই কার্ড সাহায্য তো করেই। কঙ্গনার বোন রঙ্গোলির উপর যখন অ্যাসিড হামলা হয়েছিল, তখন বিচার পেতে আদালতে ‘ভিকটিম কার্ড’ ব্যবহার করা কি অন্যায় ছিল?

কঙ্গনা জানিয়েছেন, তিনি প্রয়োজন মত প্রতিটি কার্ড ব্যবহার করেন।

কাজের ক্ষেত্রে কড়া প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখে ব্যবহার করেন ‘ব্যাডঅ্যাস কার্ড’। বিশ্বের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে ব্যবহার করেন ‘ডিগনিটি কার্ড’। আবার পরিবারে তার কাজে লাগে ‘লাভ কার্ড’।

‘কফি উইথ করণ’-এ কঙ্গনার উপস্থিতি নিয়ে করণ জানিয়েছিলেন, তিনি নাকি কঙ্গনাকে তার বিরুদ্ধে কথা বলার জায়গা দিয়েছেন। চাইলেই কঙ্গনার বিভিন্ন মন্তব্য এডিট করে বাদ দিতে পারতেন। এতে কঙ্গনা অপমানিত বোধ করেন। তার মনে হয় শিল্পী হিসেবে তাকে ছোট করে দেখানো হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘‘করণের টিম আমার ডেট চেয়ে মাসের পর মাস অনুরোধ করে। আর প্রতিটি চ্যানেলই টিআরপি চায়। করণ তো স্রেফ একজন পয়সা দিয়ে ভাড়া করা সঞ্চালক মাত্র!’’

কঙ্গনার কথায়, ‘‘আমি যখন কফি উইথ করণ-এ গিয়েছিলাম তখন করণ আমাকে এমন কিছু অ্যাটিচিউড দেখিয়েছিল যার কোনও প্রয়োজন ছিল না। তাও আমি কিছু বলিনি। আর সত্যি বলতে কি, আমি তো করণ জোহরের সঙ্গে লড়াই করছি না। আমার লড়াইটা উগ্র পুরুষবাদের বিরুদ্ধে। একটা নির্দিষ্ট মানসিকতার বিরুদ্ধে। ’’


বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ

আপনার মন্তব্য

up-arrow