Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১২:২৮
আপডেট : ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১২:২৯
আনন্দ মাটি হলো সুটকেস খোলার পর
-অধ্যাপক আলী রীয়াজ
আনন্দ মাটি হলো সুটকেস খোলার পর

বাংলাদেশ থেকে চব্বিশ ঘন্টার বেশি পথ পেরিয়ে বাড়ি ফেরার আনন্দের এক-তৃতীয়াংশ মাটি হলো সুটকেস খোলার পর; শিকাগো এয়ারপোর্টেই লাগেজের চেহারা বিশেষত তালার দিকে তাকিয়ে আশংকা হয়েছিল - সেটাই সত্য হলো বাড়ি ফিরে৷ সুটকেসটা খোলা হয়েছে এবং তাড়াহুড়ো করে সব কাপড়গুলো ফেরত রাখতে গিয়ে জোর করে ঠেলে দেয়া হয়েছে- পরিণতি হচ্ছে স্যুটগুলো হয়েছে কাপড়ের দলা - কিন্তু শুধু তাই নয় সেখান থেকে উধাও হয়েছে একটা মূল্যবান জিনিস; অর্থমূল্যে তা বেশি নয়, কিন্তু দরকারি জিনিস৷

এমন ঘটনা ঢাকা বিমানবন্দরে এই নিয়ে দুইবার ঘটলো গত ছয়মাসে৷ আমার উদ্বেগটা চুরি করে নেয়ায় যতটা তারচেয়ে বেশি নিরাপত্তা নিয়ে - আপনার ব্যাগ থেকে চুরি সম্ভব হলে সেখানে অনাকাঙ্খিত এমনকি নিষিদ্ধ জিনিস ঢুকিয়ে দেয়াও সম্ভব৷ সেটা আবিষ্কৃত হবে ভিন্ন দেশে, বাকিটা কল্পনা করতে পারেন৷ যাত্রীর কী হবে সেটা বাংলাদেশের কর্তাব্যক্তিরা না ভাবতে পারেন, কিন্তু বিমানবন্দর হিসেবে ঢাকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে আগেও প্রশ্ন উঠেছিল, দ্বিতীয় বার উঠলে তার পরিণতি দেশের জন্যে ইতিবাচক হবে না৷ ঘটনা ঘটার পর এই নিয়ে আলোচনার ঝড় না তুলে এখনই পদক্ষেপ নিন৷ আমার কত ক্ষতি হলো সেটা খুব সামান্য বিষয়, বাংলাদেশের কত ক্ষতির আশংকা সেই ভেবেই এই কথাগুলো৷ (লেখকের ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

লেখক পরিচিতি: যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির সরকার এবং রাজনীতি বিভাগের অধ্যাপক এবং বিভাগীয় প্রধান।

বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow