Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ৮ জুন, ২০১৬ ১০:৫৪
সিগারেটের প্যাকেটে ভয়ানক ছবি কমাচ্ছে ধূমপান!
অনলাইন ডেস্ক
সিগারেটের প্যাকেটে ভয়ানক ছবি কমাচ্ছে ধূমপান!

এত দিন পর্যন্ত বিধিসম্মত সতর্কীকরণ ছিল শুধুই নাম মাত্র! দেখা যেত খুব নিরীহ একটা আবছা ছবি, যেখানে নজরে পড়ত বিপদের মুখে ফুসফুস! সঙ্গে লেখা, ধূমপান কর্কট রোগের কারণ!

পুরনো এই সিগারেটের প্যাকেটগুলো নিশ্চয়ই ভুলে যাননি? খুব বেশি দিন তো হয়নি বাজার থেকে সেগুলো উধাও হয়েছে। তবে সেই ছবিতে তেমন পাত্তা দিতেন না ধূমপায়ীরা। তাই তাদের ভয় দেখিয়ে সতর্ক করার জন্য নতুন আইনে সিগারেট এবং অন্য তামাকজাত দ্রব্যের প্যাকেটের ৮০ ভাগ জুড়েই এল ভয়ানক এক ছবি। সেখানে দেখা যাচ্ছে, এক ব্যক্তির গলায় দুরারোগ্য এক ক্ষত। যার জন্য একান্ত ভাবেই দায়ী সিগারেট। বিশ্বের অধিকাংশ দেশগুলোই এই আইন জারি করেছে।

এখন প্রশ্ন হল এতেও কি কোন কাজ হয়েছে। আসলে কিছু মানুষ থাকেনই যাদের ভয় দেখিয়ে হোক বা বুঝিয়ে, কিছুতেই পথে আনা যায় না। কিন্তু এ দলের বাকিদের জন্য ছবিটা কিন্তু অন্য রকম। এক সমীক্ষা বলছে, সিগারেটের প্যাকেটের এই ভয়ানক ছবি ধূমপানের আকাঙ্ক্ষা অনেকটাই কমিয়ে এনেছে ধূমপায়ীদের মধ্যে। শুধু প্যাকেটের এই ছবির জন্যই নাকি ২৯ শতাংশ মানুষ ধূমপান ছেড়েছেন!

সম্প্রতি এমনই এক সমীক্ষার রিপোর্ট পেশ করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্টের এক সংস্থা। ২ হাজার ১৫০ জনের মধ্যে সমীক্ষা চালিয়ে সংস্থাটি দেখেছে, সিগারেটের প্যাকেটে এই ভয়ঙ্কর ছবির জন্য ধূমপান ছেড়ে দিয়েছেন ২৯ শতাংশ মানুষ!

সমীক্ষকরা প্রতিদিন এই ২ হাজার ১৫০ জনকে যে প্যাকেটে সিগারেট দিতেন, তার উপরের হলোগ্রামটা ছিঁড়ে লাগিয়ে দিতেন ভয়ানক কোন ছবি। ধূমপানের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সংক্রান্ত সেই ছবি দেখেই না কি বীতস্পৃহ হয়ে পড়েছেন ধূমপায়ীরা, দাবি সংস্থার!

তবে বাংলাদেশ বা ভারতে এখনও পর্যন্ত এমন কোন সমীক্ষা হয়নি ঠিকই! কিন্তু নতুন সিগারেটের প্যাকেট নিয়ে মোটেই সন্তুষ্ট নন ধূমপায়ীরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ধূমপায়ী জানিয়েছেন, 'এমনিতে প্যাকেটটা আলগোছে পড়ে থাকে বিছানায় বা টেবিলে! কিন্তু যখনই সে দিকে চোখ যায়, খুব ভয় হয়'।

তবে এর বিপরীতেও অনেকে শক্ত অবস্থানে রয়েছেন। কেউ কেউ বলেছেন, ও সবে কিছু যায় আসে না! যার খাওয়ার, তিনি ঠিকই খাবেন!

এদিকে একটা ব্যাপার পরিষ্কার- কোন একটা জায়গায় গিয়ে সিগারেটের প্যাকেটের এই ভয়ানক ছবি নতুন করে ভাবতে বাধ্য করছে মানুষকে। সেটাই বা কম কী!

সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন


বিডি প্রতিদিন/০৮ জুন ২০১৬/হিমেল-০৫




আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow