Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ১৯ অক্টোবর, ২০১৬ ১৫:০৩
এক কাপ চমৎকার কফি তৈরির পেছনের গল্প
অনলাইন ডেস্ক
এক কাপ চমৎকার কফি তৈরির পেছনের গল্প

বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল কফি 'লুয়াক কফি' তৈরি হয় সিভেট ক্যাট বা গন্ধগোকুল নামের প্রাণীর বিষ্ঠা থেকে। পারফেক্ট স্বাদ ও গন্ধের জন্য সারা বিশ্বের কফিপ্রেমী মানুষদের কাছে লুয়াক কফি অনেক বেশি জনপ্রিয়। বাগান থেকে রসালো কফি ফল সংগ্রহ করার পর গন্ধগোকুলকে তা খেতে দেয়া হয়। বেছে বেছে গুণগত মানসম্পন্ন ফলগুলোই গন্ধগোকুল খায়। এর মাঝেই লুকিয়ে আছে লুয়াক কফির ঠিকঠাক স্বাদের মূল রহস্য।

সহজাত প্রবণতার কারণেই গন্ধগোকুল সেরা মানের কফি ফলগুলো খায়। খুব কমই এটার ব্যতিক্রম ঘটে। গন্ধগোকুলের অপরিপক্ক কফি ফল খাওয়ার সম্ভাবনা মাত্র ১ শতাংশ। ৮-১২ ঘন্টা গন্ধগোকুলের পাকস্থলীতে হজম হওয়ার পর মল আকারে বেরিয়ে আসে কফি ফলের দানাগুলি। যেটি পরে সংগ্রহ করা হয় লুয়াক কফি তৈরির উদ্দেশ্যে।  

বোঝাই যাচ্ছে, লুয়াক কফি তৈরির প্রক্রিয়া অনেক জটিল। তাই বিশাল পরিসরে এই কফির উৎপাদন সম্ভব নয়। সে জন্যই লুয়াক কফি এতটা ব্যয়বহুল। জনপ্রিয়তা ও বিশাল মুনাফার কারণে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে কফি চাষীরা এখন গন্ধগোকুল পালন শুরু করেছেন। বালিতে উৎপাদিত পণ্যের তালিকায় লুয়াক কফি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করেছে। এ কফির উৎপাদন প্রক্রিয়া পর্যটকদেরও আকৃষ্ট করছে। কাছ থেকে বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল কফির উৎপাদন দেখতে প্রতিদিনই অনেক পর্যটক ছুটে আসছেন বালিতে।  

লুয়াক কফি তৈরির পেছনে জড়িয়ে আছে অমানবিকতাও। খুব কম মানুষই তার খবর রাখেন। গন্ধগোকুল প্রাণীটি সর্বভুক। কিন্তু লুয়াক কফি তৈরিতে কাজে লাগানোর জন্য এগুলোকে ধরে খাঁচার বন্দী করা হয় এবং শুধু কফি ফল খেতে বাধ্য করা হয়। অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ গবেষণা ইউনিট এবং বিশ্ব বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ সংস্থার এক গবেষণায় দেখা গেছে, বর্তমানে লুয়াক কফির তৈরির উদ্দেশ্যে ৫০টি বন্য গন্ধগোকুলকে বালির ১৬টি কফি উৎপাদন কেন্দ্রে বন্দী রাখা হয়েছে। এসব গন্ধগোকুলের যত্নও খুব একটা নেয়া হয় না বলে দাবি করা হয়েছে গবেষণায়।  

 

বিডি প্রতিদিন/১৯ অক্টোবর, ২০১৬/ফারজানা

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow