Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : সোমবার, ৬ জুলাই, ২০১৫ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৬ জুলাই, ২০১৫ ০০:০০
বংশটি যত শিগগির ক্ষমা চাইবে ততই ভারতের মঙ্গল
কুলদীপ নায়ার

জরুরি অবস্থা প্রসঙ্গে পরপর দুই সপ্তাহ লিখছি, এ জন্য আমি দুঃখিত। শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধীর অত্যন্ত বিশ্বাসভাজন আর কে ধাওয়ান প্রকাশ করেছেন যে, জরুরি অবস্থা সম্বন্ধে সোনিয়া গান্ধীর কোনো সন্দেহচিত্ততা ছিল না। এ তথ্যটি জরুরি অবস্থা জারির সময়টায় যা শুনেছিলাম, ঠিক তার উল্টো। ওই সময় জানা গিয়েছিল যে, সোনিয়া ও তার স্বামী রাজীব গান্ধী দুজনই তাদের সন্তানদের ‘মুক্ত পরিবেশে’ গড়ে তোলার জন্য ইতালি যাওয়ার কথা ভাবছিলেন।
সোনিয়া সম্পর্কে ধাওয়ানের যে পর্যবেক্ষণ তাতে করে জরুরি অবস্থা বিষয়ে সোনিয়ার কী অবস্থান ছিল তা ব্যাখ্যা করাটা সোনিয়ার জন্য আরও বাধ্যতামূলক হয়ে পড়ে। গণতন্ত্রের বাতি কেন নিভিয়ে দেওয়া হয়েছিল, ইন্দিরা বংশ সে বিষয়ে ঘটনার ৪০ বছর পরও স্পষ্ট করে কিছু বলতে চাইছে না। যা ঘটেছে তার জন্য শুধু এই বংশটি দায়ী। নির্বাচনে অনিয়ম সংক্রান্ত মামলায় ইন্দিরা গান্ধীকে দোষী সাব্যস্ত এবং সরকারি ব্যবস্থাপনার অপব্যবহারের দায়ে সংসদে তার আসনটি বাতিল করে দেন এলাহাবাদ হাইকোর্ট। সুপ্রিমকোর্ট ওই রায় বাস্তবায়ন স্থগিত করেছিলেন। ধাওয়ানের মন্তব্য থেকে দেখা যাচ্ছে, বংশটির মধ্যে কোনো অনুতাপ নেই। ড. মনমোহন সিং অবশ্য ইন্দিরা বংশের ইচ্ছাকৃত নীরবতার পক্ষে সাফাই গাওয়ার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু তারা যত শিগগির জাতির কাছে ক্ষমা চাইবে ততই তাদের ও দেশের মঙ্গল।
জরুরি অবস্থার সময়ে বাড়াবাড়ির ঘটনাগুলো তদন্তের জন্য জনতা পার্টির সরকার নিযুক্ত শাহ কমিশনের কাছে জবানবন্দিতে আর কে ধাওয়ান যা বলেছিলেন এখন তা থেকে অনেক দূরে সরে এসেছেন। কমিশনকে তিনি বলেছিলেন, ইন্দিরা বংশের বিরুদ্ধে তিনি কিছু বলতে চান না। সব দোষ তিনি পশ্চিমবঙ্গের তদানীন্তন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধার্থ শংকর রায়ের ওপর চাপিয়েছেন। ধাওয়ান যা যা ফাঁস করেছেন সেই আলোকে জরুরি অবস্থার বিষয়টি খতিয়ে দেখা উচিত। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে কীভাবে কলুষিত করা হয়েছিল আর কেমন করে সব ক্ষমতা ইন্দিরা গান্ধীর হাতে কেন্দ্রীভূত হয়েছিল, তার তদন্ত হওয়া প্রয়োজন। ‘দেশে আবার জরুরি অবস্থা জারি হতে পারে’- বিজেপির সিনিয়র নেতা এল কে আদভানির এই হুঁশিয়ারি বেশ তাৎপর্যময়। তিনি কারও নামোল্লেখ করেননি। কিন্তু কথাগুলো যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ইঙ্গিত করেই বলা, তা বোঝাই যায়। অন্যসব প্রতিষ্ঠান অবহেলা করে মোদি সর্বাত্মক আস্থা স্থাপন করেছেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের (প্রমকা) ওপর। বলা যায়, সত্যিকারের ক্ষমতার কেন্দ্র হয়ে উঠেছে প্রমকা। জরুরি অবস্থা আবার জারি হবে আমি মনে করি না। জনতা সরকার সংবিধানে সংশোধনী কার্যকর করায় জরুরি অবস্থা জারি অসম্ভব। তারপরও পরিস্থিতি তৈরি করা যেতে পারে, যার ফলে আইনি অনুমোদন ছাড়াই জরুরি অবস্থা অপরিহার্য হয়ে উঠতে পারে।
মোদির শাসন অশুভ হয়ে উঠছে, এই অর্থে যে বিজেপি সরকারে কোনো কেবিনেট মন্ত্রীর গুরুত্ব নেই। মন্ত্রিসভায় যৌথ শলাপরামর্শ হয়, এটা শুধু কাগজে লেখা তথ্য। জরুরি অবস্থা-সদৃশ শাসন চালু হওয়ার আগেই তা রুখে দেওয়ার জন্য সব রাজনৈতিক দলের একাট্টা হওয়া উচিত। কয়েক দশক আগে ইন্দিরা গান্ধীর এক ব্যক্তির শাসন বলবৎ ছিল, আজ ওই শাসন নরেন্দ্র মোদির। অধিকাংশ সংবাদপত্র ও টেলিভিশন চ্যানেল মোদির চিন্তাধারার সঙ্গে না হলেও কর্মপদ্ধতির সঙ্গে নিজেদের খাপ খাইয়ে নিয়েছে, যেমনটা তারা করেছিল ইন্দিরার আমলে। এই প্রেক্ষাপটে, সুষ্ঠু প্রশাসনে সমৃদ্ধ মধ্যপ্রদেশে একজন সাংবাদিক হত্যায় আমি বিস্মিত নই। হত্যার কারণ সাংবাদিক সন্দ্বীপ কোঠারি অধিপতি গোষ্ঠীর দেওয়া সীমারেখা লঙ্ঘনের সাহস দেখিয়েছিলেন। ওরা বাকস্বাধীনতা বরদাস্ত করেনি, কারণ তাতে অপকর্মে লিপ্ত ব্যক্তিদের স্বার্থ বিঘিœত হয়। বালু ব্যবসার মাফিয়ারা যে পুলিশের মদদেপুষ্ট তা ফাঁস করেছিলেন ৪৪ বছর বয়সী কোঠারি। এ জন্যই পুলিশ বলছে, কোঠারির মৃত্যু সাংবাদিকতার সঙ্গে সম্পৃক্ত নয়। আন্দোলনকারীরা খুনিদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছিল, কিন্তু কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। বালু মাফিয়া তাদের বালু উত্তোলনের এলাকা বাড়িয়ে চলেছে আর দিনভর ট্রাকে ভরছে। এক সময় তারা রাতে কাজ করত, এখন করে দিনে। কর্তাব্যক্তিদের তারা বেশি বেশি করে ‘কিনছে’, তাই ভয় আর দ্বিধা চলে গেছে। কয়েক সপ্তাহ আগে এক শুক্রবারে, মধ্যপ্রদেশের বালাঘাট জেলার কাতাদি শহরের নিজবাড়ি থেকে নিখোঁজ হন সন্দ্বীপ কোঠারি। বাড়ির লোকরা ব্যাপারটি পুলিশকে জানায়। সংবাদ বেরিয়েছে, বালু মাফিয়ার ঘনিষ্ঠ তিন যুবক কোঠারিকে অপহরণ ও হত্যা করে। তদন্তকালে পুলিশ তিন যুবককে গ্রেফতার করে। তারা বলেছে, নাগপুর জেলার জঙ্গলে কোঠারির গায়ে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে তারা গোর দিয়েছে। খুন করার পর পোড়ানো হয়েছে নাকি জ্যান্ত পুড়িয়ে তারপর পুঁতে ফেলা হয়েছে- পুলিশ এখনো তা নিশ্চিত হতে পারছে না।
ঘটনার সব কিছু প্রকাশ না পাওয়ায় কার দোষ কতটা তা স্থির করা কষ্টকর। কিন্তু সাংবাদিকতার কারণেই যে কোঠারিকে খুন করা হয়েছে তা অনস্বীকার্য। করপোরেট সেক্টর দিন দিন প্রভাবশালী ও সর্বগ্রাসী হয়ে উঠছে। তাদের অন্যায় আচরণের সামনে দাঁড়ানো সাংবাদিকদের শায়েস্তা করতে মাস্তান পুষতেও তারা দ্বিধা করে না। মাফিয়া ও এস্টাবলিশমেন্ট মিলে কোঠারির ওপর যে নিষ্ঠুরতা চালাল তা হতে পারল রাজনৈতিক দলগুলোর বিচ্যুতির কারণে। তারা ছোটখাটো বিষয়ে নিজেদের মধ্যে বৈরিতা জিইয়ে রাখায় গণতান্ত্রিক বাতাবরণ বিকৃত হয়েছে। গণতন্ত্র পরিপন্থী কার্যকলাপের সঙ্গে আপস করেছে আর এস্টাবলিশমেন্টের ওপর একব্যক্তির শাসন চলছে পাকিস্তান ও বাংলাদেশে।
দেশ দুটি দৃষ্টান্ত দেখায় যে ভারতে সমালোচনা দমন করা হয়। প্রক্রিয়াটি বেশ কার্যকর হয়েছে বাংলাদেশে, যেখানে একদা উদারনীতিক শেখ হাসিনা স্বৈরাচারীতে পরিণত হয়েছেন এবং নির্বাচন না হওয়ার মতো অবস্থাও করেছেন। দেশে যে অবস্থা তাতে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না, এই বোধ থেকে বিএনপি গত সাধারণ নির্বাচন বর্জন করে।

up-arrow