Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বুধবার, ১ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ৩১ মে, ২০১৬ ২৩:০৩
দাবি মান, না মানলে উড়বে না বিমান
মির্জা মেহেদী তমাল

ঘটনা এক. ‘দেশের আকাশপথের যোগাযোগ-ব্যবস্থা বন্ধ করে দেওয়া হলো। লণ্ডভণ্ড হলো শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ফ্লাইট শিডিউল। একে একে বাতিল হতে থাকল দেশি-বিদেশি ফ্লাইট। উড়োজাহাজের ভিতর ও বিমানবন্দরে যাত্রীরা অবরুদ্ধ। জিম্মি কয়েক হাজার যাত্রীর মধ্যে তখন অজানা আতঙ্ক।’ পেশাদার কোনো সন্ত্রাসী গ্রুপের জিম্মি নাটকের ঘটনা এটি নয়। এ জিম্মি নাটকের নায়ক খোদ বিমানের ক্ষমতাধর সিবিএ নেতারা। গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং বন্ধ করে তারা এ জিম্মি নাটকের ঘটনা ঘটান। নেতাদের চাকরিচ্যুতি করা হতে পারে— শুধু এমন সন্দেহ থেকেই তিন বছর আগে আগাম ব্যবস্থা হিসেবে তাদের এ জিম্মি নাটক ছিল এভিয়েশন দুনিয়ার আলোচিত ঘটনা। ঘটনা দুই. গত ফেব্রুয়ারিতে কাজ ফেলে বনভোজনে চলে যান শাহজালালের গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং বিমানকর্মীরা। এতে ফ্লাইট শিডিউল ভেঙে পড়ে। কর্তৃপক্ষ দুজনকে শোকজ করলে আবারও সেই জিম্মি নাটক। সিবিএ নেতাদের ডাকে শুরু হয় ধর্মঘট। প্রতিটি ফ্লাইটে বিদ্যুৎ-পানি ও জ্বালানি বন্ধ করে দেওয়া হয়। যথাসময়ে বোর্ডিং ব্রিজ তৈরি না করায় ফ্লাইট ভিড়তে পারে না। বাস সার্ভিস বিলম্ব করে যাত্রীদের ফ্লাইটে উঠতে দেওয়া হয় না। তাদের এক কথা, দাবি মানো, না হয় উড়বে না বিমান। এমন দাবিতে উড়োজাহাজের ওঠানামা বন্ধ হয়ে যায়। শোকজ প্রত্যাহার করার পর বিমানকর্মীরা কাজে যোগ দেন। জিম্মি করে দাবি আদায় শুধু নয়, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের দুর্নীতি আর অনিয়মের নাটের গুরুই হলেন ক্ষমতাসীন দলের সিবিএ নেতারা। কথায় কথায় এরা সরকারের প্রভাবশালী মন্ত্রী, এমপি ও সংসদীয় নেতাদের দোহাই দিয়ে অবৈধ কর্মকাণ্ড চালাচ্ছেন। এ কারণে কেউ ভয়ে তাদের বিরুদ্ধে কথা বলে না। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও তাদের কাছে অসহায়। তাদের কথার বাইরে গেলেই এরা সভা-সমাবেশ ও জ্বালাও-পোড়াও করে বিমানে আতঙ্কজনক পরিবেশ তৈরি করে। পরিচালকদের কক্ষে তালা ঝুলিয়ে তাদের অবরুদ্ধ করে রাখার ঘটনাও ঘটেছে অসংখ্যবার। দিনে দিনে এসব সিবিএ নেতা আরও ক্ষমতাধর হয়ে উঠেছেন। তাদের সম্মতি ছাড়া বিমানে কোনো সিদ্ধান্ত কার্যকর হয় না। তাদের কথাই এখানে শেষ কথা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নানা চেষ্টা-তদবির ও একাধিক পরিকল্পনা গ্রহণ করেও সিবিএ নেতাদের দুর্নীতি বন্ধ করা যাচ্ছে না। সিবিএ নেতারা বিমানবন্দর এবং অন্যান্য স্পর্শকাতর এলাকায় প্রবেশ করে প্রতি মাসে বিপুল অঙ্কের টাকা চাঁদাবাজি করছেন। বাংলাদেশ বিমানের ১০ বিভাগের ৪০ ঘাটে প্রতি বছর শত কোটি টাকার চাঁদাবাজি ও লুটপাট হচ্ছে। বিমান শ্রমিক লীগের শীর্ষ নেতাদের নেতৃত্বে প্রতি মাসে এ লুটপাটের ঘটনা ঘটছে। সিবিএ ও বিমান শ্রমিক লীগের সভাপতি মশিকুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক মান্তাসার রহমানের নেতৃত্বেই ঘটছে নজিরবিহীন এই কাণ্ড।

বিমান পরিচালনা পর্ষদের একজন পরিচালক জানান, বিমান ও বিমানবন্দরকে সিবিএ চক্র তাদের পৈতৃক সম্পদ ভেবে বসেছে এবং যেভাবে খুশি সেভাবে পরিচালনা করছে। তাদের অপকর্ম ও অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কোনো শক্তি নেই। ওই কর্মকর্তা বলেন, একজন কর্মচারী বিমান থেকে যে বেতন-ভাতা পান তার সঙ্গে সংগতিহীন তাদের রাজকীয় জীবনযাপন। বেতনের বাইরেও তাদের কোটি কোটি টাকার অবৈধ ব্যাংক ব্যালান্স ও সম্পদ রয়েছে। শুধু চাঁদাবাজির মাধ্যমে বিমান শ্রমিক লীগের অন্তত ৫০ নেতা আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ বনে গেছেন। চাঁদার টাকার ভাগ-বাটোয়ারা হয় সরকারের অনেক প্রভাবশালীর মধ্যেও। এ কারণে বড় কোনো অ্যাকশন হচ্ছে না অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে। তিনি বলেন, সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও বিমান জয়েন্ট ভেঞ্চারে গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং ছেড়ে দেওয়ার কোনো অগ্রগতি দেখাতে পারছে না। এ নিয়ে খোদ সংসদীয় কমিটিও চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে। সিবিএর দুই নেতার কারণেই গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিংয়ের দায়িত্ব কোনো প্রতিষ্ঠানকে দেওয়াও সম্ভব হচ্ছে না। যোগাযোগ করা হলে সিবিএ সভাপতি মশিকুর রহমান তাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, দুর্নীতি আর অনিয়মের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, এশিয়ার অন্যান্য বিমানবন্দরের চেয়ে শাহজালাল বিমানবন্দরের অবস্থা অনেক ভালো। গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিংয়ের দায়িত্ব বিদেশি কোম্পানির হাতে দেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ম্যানেজমেন্ট তো বলছে সিবিএর সঙ্গে আলাপ ও সমঝোতার মাধ্যমেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। একতরফাভাবে গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং বিদেশিদের কাছে ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত মানা হবে না। প্রয়োজনে আন্দোলন গড়া হবে। তবুও এ সিদ্ধান্ত মানা যাবে না।

জানা গেছে, সরকার সমর্থিত বিমান শ্রমিক লীগ নেতা ও সিবিএ সভাপতি মশিকুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক মান্তাসার রহমানসহ একাধিক শীর্ষ নেতা রয়েছেন যারা ছেলে, মেয়ে, আত্মীয়স্বজন এমনকি স্বনামে ট্রেড লাইসেন্স করে বিমানের বিভিন্ন শাখায় টেন্ডারবাজি ও ব্যবসা করছেন। এরাই বিভিন্নভাবে নিয়োগ, পদোন্নতি, বদলি ও টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ করছেন। নেতাদের অফিস করা দূরের কথা, উল্টো অনেকে অফিস না করেও বছরে লাখ লাখ টাকার ওভারটাইম বিল হাতিয়ে নিচ্ছেন। বিমান সূত্র জানায়, এর আগে এই সিবিএ নেতাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে বিমান বর্তৃপক্ষ অনুরোধ করে দুর্নীতি দমন কমিশনের কাছে। দুদক সিবিএর ১৭ নেতার বিরুদ্ধে তদন্ত করছে।

সিবিএ নেতাদের চাঁদাবাজি : বিমান সূত্রগুলো জানায়, সিবিএ নেতারা বিমানের মতিঝিল সেলস অফিস, কার্গো বিভাগ, এয়ারপোর্ট সার্ভিস বিভাগ, বিক্রয় ও বিপণন পরিদফতর, সম্ভার ও ক্রয় পরিদফতর, যানবাহন উপবিভাগ, সিকিউরিটি ও তদন্ত বিভাগ, বিএফসিসি, বিমানের কর্মচারী নিয়োগ ও কর্মচারীদের পদোন্নতি, চুক্তি নবায়ন শাখা থেকে নিয়মিত চাঁদা আদায় করছে। সূত্র জানায়, শ্রমিক-কর্মচারীদের ওভারটাইমের নামে বিমানে চলছে হরিলুট। গত বছর শুধু এ ওভারটাইম খাতে বিমানকে গুনতে হয়েছে ৫০ কোটি টাকারও বেশি। সিবিএ নেতারাই এ ওভারটাইমের টাকা কর্মচারীদের দেওয়ার ব্যবস্থা করেন। আর এজন্য ১৮০০ কর্মী নিয়মিত চাঁদা দিচ্ছেন সিবিএ নেতাদের। সূত্র জানায়, সিবিএ নেতারা বিমানের কার্গো বিভাগের রপ্তানি শাখার স্পেস কন্ট্রোল, কার্গো ওজন চেকিং, কার্গো আমদানি শাখার মেইন ওয়্যারহাউস, ডেলিভারি গেট ও কার্গো প্রসিডিউরস শাখায় শ্রমিকদের ডিউটি রোস্টারের নামে প্রতিদিন গড়ে ৫ থেকে ১০ লাখ টাকা চাঁদা ওঠাচ্ছেন। বিমানের এয়ারপোর্ট ট্রাফিক শাখার পাসপোর্ট চেকিং ইউনিট (পিসিইউ) শাখার কর্মীদের প্রতিদিন গড়ে ২ থেকে ৩ হাজার টাকা চাঁদা দিতে হয় সিবিএকে।




এই পাতার আরো খবর
up-arrow