Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ৩ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২ জুন, ২০১৬ ২৩:৫৬
মাদক ব্যবসায়ীরা ছাড়া পাওয়ায় হতাশা
বিশেষ প্রতিনিধি
মাদক ব্যবসায়ীরা ছাড়া পাওয়ায় হতাশা

গ্রেফতার হওয়ার দুই মাসের মধ্যে মাদক ব্যবসায়ীরা জামিনে ছাড়া পেয়ে যাওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ। তিনি বলেন, আমরা ধরব আর ছাড়া পেয়ে তারা আমাদের সামনে দিয়ে হাসতে হাসতে চলে যায় এটি দুঃখজনক।

মাদক ব্যবসায়ীদের কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। তিনি বলেন, মাদক পাচার রোধে বিজিবির আন্তরিকতার কমতি নেই। গতকাল দুপুরে পিলখানায় বিজিবি সদর দফতরের সম্মেলনকক্ষে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে মহাপরিচালক চলতি বছরে বিজিবির সার্বিক কর্মকাণ্ড ও সফলতা তুলে ধরেন। এ সময় বিজিবির অফিশিয়াল ফেসবুক পেইজের উদ্বোধন করেন তিনি। তিনি বলেন, আমাদের মূল উদ্বেগের বিষয় হলো ইয়াবা ও ফেনসিডিল। এখন মাছের পেটে, মরিচের মধ্যে, ফুলের মধ্যে এমনকি সবজির মধ্যে করে ইয়াবা আসছে। আমাদের একার পক্ষে এটি আটকানো সম্ভব নয়। প্রতিবেশী দেশ, গণমাধ্যমসহ সমাজের সবার সহযোগিতা প্রয়োজন। দেশে মাদকের ব্যবহার কমাতে পারলে আমদানিও কমে যাবে। টেকনাফে ইয়াবার সঙ্গে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা ও প্রভাবশালী ব্যক্তিরা জড়িত বলে বিভিন্ন সময় প্রকাশ পেয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, কারও জিম্মায় মাদকদ্রব্য না পাওয়া গেলে তাকে ধরতে পারি না। এটুকু বলতে পারি, কারও বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সরকারের পক্ষ থেকে বাধা নেই। অনেকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। অনেকে এলাকাছাড়া হয়েছে। সীমান্তে প্রাণঘাতী অস্ত্র ব্যবহার করা হবে না বলে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল। এরপরও হত্যাকাণ্ড চলছে বিষয়ে জানতে চাইলে আজিজ আহমেদ বলেন, এ জন্য গরু চোরাচালান বন্ধ করতে হবে। ভারতের গরুর দিকে তাকানো যাবে না। ২০১৫ সালে সীমান্তে ৪৩ জন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ১৮ জন ভারতের সিভিলিয়ানদের হাতে। আমাদের সীমান্তগুলো এ রকম যে একজনের রান্নাঘর ভারতে আর ঘুমানোর ঘর বাংলাদেশের মাটিতে। আবার ভারতে অনেকের আত্মীয়স্বজন থাকে। দেখা গেছে, প্রেম করতে ওপারে গিয়ে প্রেমিকার আরেক প্রেমিকের হাতে নিহত হয়েছে, এমন ঘটনাও ঘটেছে। সীমান্ত ব্যাংকের বিষয়ে তিনি জানান, জুলাই মাস থেকে ব্যাংকের কার্যক্রম শুরু করা যায় সে লক্ষ্যে কাজ চলছে। প্রাথমিক পর্যায়ে ৭ থেকে ১০টি শাখা হবে। বিজিবির এয়ার উইং প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আগামী রবিবার চট্টগ্রামের বাইতুল ইজ্জতে ইউংয়ের সদর দফতরের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন হবে। প্রাথমিক পর্যায়ে তিনটি হেলিকপ্টর নিয়ে উইংয়ের যাত্রা শুরু হবে। ডিজি বলেন, পাঁচ মাসে এক লাখ পাঁচ হাজার ৪৩৪ বোতল ফেনসিডিল, ২৪ লাখ ৮১ হাজার ৪৪৯ পিস ইয়াবা উদ্ধার ও ১৬৪ জন ইয়াবা পাচারকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পাঁচ মাসে ১৪টি পিস্তল, ৮টি বন্দুক, ৯টি ম্যাগাজিন ও ১৩৭ রাউন্ড গুলি উদ্ধার হয়েছে। এ ছাড়া ১৭১ জন নারী শিশু উদ্ধার করা হয়েছে। আর ৪৯ জন ভারতীয় নাগরিক আটক হয়েছে। মিয়ানমারের ২ হাজার ২৯৭ জন নাগরিকের অনুপ্রবেশ প্রতিহত করা হয়েছে।

up-arrow