Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৭ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ৬ জুন, ২০১৬ ২৩:১৫
আতঙ্ক সৃষ্টি করতেই খুন
আগেও হামলা হয়েছিল এসপি বাবুলের ওপর, ছিল হুমকি
নিজস্ব প্রতিবেদক
আতঙ্ক সৃষ্টি করতেই খুন

আতঙ্ক তৈরির জন্যই সারা দেশে হামলার ঘটনা ঘটাচ্ছে দুর্বৃত্তরা। টার্গেট করেই খুন করছে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার নিরীহ মানুষ। বাদ দেওয়া হচ্ছে না বাংলাদেশে বসবাসরত বিদেশিদেরও। তবে দুর্বৃত্তদের বিশেষ টার্গেটে রয়েছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকজন এবং বিভিন্ন পেশাজীবী। এরই মধ্যে বিষয়টি সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলকে অবহিত করেছেন গোয়েন্দারা। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য দেওয়া হয়েছে বিশেষ পরামর্শ। গোয়েন্দা কর্মকর্তারা বলছেন, দুর্বৃত্তদের ধারণা, আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্য কিংবা তাদের পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলা করলেই বাহিনীর মনোবল ভেঙে যাবে। জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরেই টার্গেটে ছিলেন এসপি বাবুল আক্তার। তার ওপর একবার হামলাও হয়েছিল। তাকে কয়েকবার হুমকি দেওয়া হয়েছিল বলেও জানা যায়। পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ধারণা, জঙ্গি দমনসহ বিভিন্ন সময়ে সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে সফল নেতৃত্ব দেওয়ায় দুর্বৃত্তরা তার ওপর ক্রুদ্ধ। তবে এসপি বাবুলের স্ত্রীকে খুন করা হবে— তা তারা কখনো কল্পনা করেননি বলে গতকাল পুলিশ সদর দফতরে উচ্চ পর্যায়ে বিশেষ বৈঠকে বলেছেন।

জঙ্গিগোষ্ঠী নতুন মাত্রায় সক্রিয় হওয়ার পর গত বছরের জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত সারা দেশে ৪৫টি হামলা ঘটেছে। এতে নিহত হন ৪৭ জন। এসব ঘটনার অনেকটিরই দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস (ইসলামিক স্টেট) ও আল-কায়েদার ভারতীয় উপমহাদেশের কথিত বাংলাদেশ শাখা আনসার আল ইসলাম। যদিও বাংলাদেশ সরকার ও পুলিশের পক্ষ থেকে বরাবরই বলা হচ্ছে, দেশে আইএস বা আল-কায়েদার কোনো সাংগঠনিক অবস্থান নেই। দেশীয় জঙ্গি সংগঠন জেএমবি বা আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের (বর্তমান নাম আনসার আল ইসলাম) সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে অনেক ঘটনায়। এদিকে, গতকাল বেলা সোয়া ১১টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত পুলিশ সদর দফতরে অনুষ্ঠিত পুলিশের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে জঙ্গি দমনে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে সমন্বয় করে উদ্যোগ নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। অপরাধীদের নিবৃত্ত করতে জিরো টলারেন্স এবং সাঁড়াশি অভিযান চালানোর কথা বলেন কর্মকর্তারা। বৈঠকে রবিবার চট্টগ্রামে পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী খুনের ঘটনাটিকে কাপুরুষোচিত ঘটনা বলে অভিহিত করা হয়। পরে ভারপ্রাপ্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক জাবেদ পাটোয়ারী পুলিশ সদস্যদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট ইউনিটের প্রধানদের নির্দেশ দেন। এর আগে রবিবার বিকালেই মোবাইল ফোনে খুদে বার্তার মাধ্যমে পুলিশের জেলা পর্যায়সহ বিভিন্ন ইউনিটের কর্মকর্তার নিরাপত্তা নিশ্চিত এবং সতর্ক থাকার নির্দেশনাসংক্রান্ত বার্তা পাঠায় পুলিশ সদর দফতর।

ভারপ্রাপ্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক জাবেদ পাটোয়ারী এ প্রতিবেদককে বলেন, বাবুলের স্ত্রীকে হত্যা একটি ন্যক্কারজনক ঘটনা। এটা কাপুরুষের কাজ। তবে জঙ্গি তথা অপরাধীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থাসহ পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের তথ্যের সমন্বয় করে সমন্বিত অভিযান চালানো হবে। দেশের মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য পুলিশবাহিনীর প্রত্যেক সদস্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

জানা গেছে, পুলিশের চাকরিতে যোগদানের পরই বিভিন্ন দুঃসাহসিক অভিযানের কারণে আলোচনায় আসেন বাবুল আক্তার। গত বছরের অক্টোবরে চট্টগ্রামের খোয়াজনগরে একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে অস্ত্র-গুলিসহ পাঁচ জঙ্গিকে গ্রেফতার করেছিলেন এসপি বাবুল। তাদের মধ্যে জাবেদ জেএমবি চট্টগ্রামের সামরিক প্রধান ছিলেন বলে দাবি করেছিল পুলিশ। পরদিন জাবেদকে নিয়ে অভিযানে গেলে জঙ্গিদের তৈরি গ্রেনেড বিস্ফোরণে তিনি মারা যান। এর পরপরই আশুলিয়ায় জঙ্গিরা পুলিশ সদস্যদের ওপর হামলা চালায়। ধারণা করা হয়, চট্টগ্রামে হামলার প্রতিশোধ নিতেই ওই হামলা চালায় জঙ্গিরা। হামলায় এক পুলিশ কনস্টেবল নিহত হন। সর্বশেষ গত ২৭ ডিসেম্বর হাটহাজারীতে দুঃসাহসিক অভিযান চালিয়ে জেএমবির চট্টগ্রাম অঞ্চলের প্রধান রাইসুল ইসলাম খান ওরফে ফারদিনের একটি আস্তানার সন্ধান পায় বাবুল আক্তারের নেতৃত্বাধীন দল। উদ্ধার করে বিপুল অস্ত্র, গুলি এবং সেনাবাহিনীর ১২টি পোশাক ও এক জোড়া র্যাংক ব্যাজ। একই দিন ফারদিনের সহযোগী চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের তিন ছাত্রকে গ্রেফতার করা হয়। এরা সবাই চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঊর্ধ্বতন এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, জঙ্গিবিরোধী বাবুলের বিভিন্ন অভিযানের কারণে চট্টগ্রাম অঞ্চলে জঙ্গিরা খুব একটা সুবিধা করতে পারেনি। এসব অভিযানের কারণে বাবুল জঙ্গিদের নিশানায় পরিণত হতে পারেন বলে নিজেই আশঙ্কা করছিলেন। চট্টগ্রামে উদ্ধারকৃত গ্রেনেড, বগুড়ায় গ্রেনেড বিস্ফোরণে দুজনের মৃত্যু ঘটনাগুলো একটার সঙ্গে অন্যটা লিঙ্কড।

পুনরায় র‌্যাবে আসতে চেয়েছিলেন বাবুল

নিরাপত্তা শঙ্কার কথা ভেবে তিন মাস আগে দ্বিতীয় দফায় র‌্যাবে আসতে চেয়েছিলেন বাবুল আক্তার। এ বিষয়টি তিনি শেয়ার করেছিলেন র‌্যাবের তৎকালীন অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল জিয়াউল আহসান (বর্তমানে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল)-এর সঙ্গে। পরে তিনি র‌্যাব মহাপরিচালকের সঙ্গে কথা বলেন। র‌্যাব মহাপরিচালকও পুলিশ মহাপরিদর্শককে বিষয়টি অবহিত করেন। মিলেছিল সম্মতিসূচক সিগন্যালও। তবে পরবর্তীতে পদোন্নতি পাওয়ার কারণে আর র‌্যাবে যাওয়া হয়নি বাবুল আক্তারের। এর সত্যতা মিলেছে র‌্যাবের কয়েকজন কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে।

র‌্যাবের সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিচালক বর্তমানে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জিয়াউল আহসান এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘কিছুদিন ধরে নিজের এবং পরিবারের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিলেন বাবুল। র‌্যাবে থাককালে তিনি পুনরায় র‌্যাবে আসার ইচ্ছা পোষণ করে আমাকে বিষয়টি জানিয়েছিলেন। পরে ডিজি এবং আইজিপি স্যারকে অবহিত করা হয়েছিল।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক জিয়া রহমান বলেন, ‘স্পর্শকাতর এসব হত্যাকাণ্ডের তদন্তে লম্বা সময় নিলে চলবে না। কোনো হত্যাকাণ্ডকেই বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলে মনে করলে চলবে না। দ্রুততর সময়ের মধ্যে অন্তত দু-একটি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত প্রকৃত অপরাধীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। এতে অন্য অপরাধীরা ভয় পাবে। নেপথ্য মদদদাতারাও তাদের পলিসি থেকে সরে আসতে বাধ্য হবে।’

২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে গণজাগরণ মঞ্চের কর্মী রাজীব হায়দার খুনের পর থেকে গত দুই বছরে একের পর এক হত্যা করা হয়েছে বিভিন্ন পেশার মানুষ। ৩০ এপ্রিল টাঙ্গাইলের গোপালপুরে দর্জি নিখিলচন্দ্র জোয়ারদার নৃশংসভাবে খুন হন। এর মাত্র পাঁচ দিন আগে ২৫ এপ্রিল খুন হন ইউএসএআইডির কর্মকর্তা জুলহাজ মান্নান ও তার বন্ধু নাট্যকর্মী মাহবুব রাব্বি তনয়। এর ঠিক দুই দিন আগে রাজশাহীতে বিশ্ববিদ্যালয়শিক্ষক ও সাংস্কৃতিক কর্মী এ এফ এম রেজাউল করিম সিদ্দিকীকে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এর আগের দিন গোপালগঞ্জে কুপিয়ে মেরে ফেলা হয় পরমানন্দ সাধু নামে এক পুরোহিতকে। এপ্রিলেই ঢাকায় একইভাবে হত্যাকাণ্ডের শিকার হন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নাজিমুদ্দিন সামাদ। একেকটি হত্যাকাণ্ড ঘটলেই তিনি মুক্তমনা ব্লগার কিনা, কিংবা তিনি নাস্তিক কিনা, এ ধরনের বিষয় সামনে চলে আসছে। আত্মস্বীকৃত হত্যাকারী ‘জঙ্গিগোষ্ঠী’ বরাবরই বলেছে, নাস্তিকতা এবং সেই ঘরানার লেখালেখি কিংবা তাদের ঘরানার হওয়ার কারণেই টার্গেট করা হয়েছিল তাদের। সর্বশেষ ২০ মে কুষ্টিয়ায় হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক মীর সানাউর রহমানকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে খুন করে দুর্বৃত্তরা। ভাগ্যক্রমে প্রাণে বেঁচে যান গুরুতর আহত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মো. সাইফুজ্জামান। এদের দুজনই লালনভক্ত ছিলেন। ওই দিনই ইসলামিক স্টেট (আইএস)-এর নাম করে হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে একটি ওয়েবসাইটে বক্তব্য চলে আসে। আর তা গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ করে সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ। সর্বশেষ রবিবার চট্টগ্রামে এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী এবং নাটোরে খ্রিস্টধর্মাবলম্বী সুনীল গমেজকে একই কায়দায় হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিস কেন্দ্রের (আসক) নির্বাহী পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) নূর খান লিটন বলেন, ‘এমন অবস্থা তৈরির জন্য আমরা সবাই দায়ী। জনগণকে এখনো সচেতন করা হচ্ছে না। নিরাপত্তা বলয় তৈরিতে সম্পৃক্ত করা হচ্ছে না। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের এখনো দক্ষ করে তৈরি করা হয়নি। দেশে যদি গণতন্ত্রকে সংকুচিত করা হয়, রাষ্ট্রের জবাবদিহিতা না থাকে তখন জঙ্গি উত্থানের মাত্রা বেড়ে যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যদের মনোবল ভেঙে দেওয়ার জন্যই এমন হামলা চালিয়েছে জঙ্গিরা। যদিও ইসলামে বলা আছে কারও অপরাধের জন্য অন্য কাউকে ক্ষতি করা যাবে না। রবিবারের হত্যাকাণ্ডটির মাধ্যমে নতুন মাত্রা যুক্ত হলো।’




up-arrow