Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৭ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৬ জুন, ২০১৬ ২৩:২৬
পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ
কাসেমের মৃত্যু পরোয়ানা জারি
নিজস্ব প্রতিবেদক
কাসেমের মৃত্যু পরোয়ানা জারি

মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও একাত্তরের বদর-নেতা মীর কাসেম আলীর মৃত্যু পরোয়ানা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। গতকাল দুপুরে সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশ করে।

৮ মার্চ ফাঁসি বহাল রেখে রায় দেয় আপিল বিভাগ। পূর্ণাঙ্গ রায়ের কপি প্রথমে ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়। সেখান থেকে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে কপি যায়। সন্ধ্যায় মীর কাসেমের মৃত্যু পরোয়ানা ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। সেখান থেকে মৃত্যু পরোয়ানা পাঠানোর কথা গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে। মীর কাসেম কাশিমপুর কারাগারে বন্দী রয়েছেন। এদিকে মীর কাসেম এখন আইন অনুযায়ী রিভিউ আবেদনের সুযোগ পাবেন। আসামিপক্ষ জানিয়েছে আপিলের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপির সত্যায়িত কপি পেয়ে তারা রিভিউ আবেদন করবেন। ১৫ দিনের মধ্যে আপিল বিভাগে রিভিউ আবেদন করতে হবে। রিভিউ আবেদন করলে তা নিষ্পত্তির আগে দণ্ড কার্যকর করা যাবে না। এর আগে মৃত্যু পরোয়ানায় স্বাক্ষর করেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হক, বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলাম ও বিচারপতি মো. সোহরাওয়ার্দী। ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার শহীদুল আলম ঝিনুক সাংবাদিকদের জানান, ট্রাইব্যুনালের তিন বিচারক সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে মৃত্যু পরোয়ানায় স্বাক্ষর করেছেন। এরপর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে লাল কাপড়ে মোড়ানো মৃত্যু পরোয়ানা কারাগারে পাঠানো হয়। দুপুরে মীর কাসেমের ফাঁসির পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়। এই রায় পাওয়া যায় সুপ্রিমকোর্টের ওয়েবসাইটেও। ২৪৪ পৃষ্ঠার রায়টি লিখেছেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। তার সঙ্গে একমত পোষণ করেছেন বেঞ্চের অন্য চার বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি মোহাম্মদ বজলুর রহমান। গত ৮ মার্চ মীর কাসেমের আপিল আংশিক মঞ্জুর করে মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে সংক্ষিপ্ত রায় দেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ। বিচারিক আদালতে প্রমাণিত দশ অভিযোগের মধ্যে অপহরণ, আটক, নির্যাতন ও হত্যার একাদশ অভিযোগে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দেওয়া মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখেছে আপিল বিভাগ। এ ছাড়া দ্বিতীয়, তৃতীয়, সপ্তম, নবম, দশম ও চতুর্দশ অভিযোগে ট্রাইব্যুনালের দেওয়া মোট ৫৮ বছরের দণ্ড বহাল রাখা হয়েছে আপিল বিভাগে। তবে চতুর্থ, ষষ্ঠ ও দ্বাদশ অভিযোগ থেকে খালাস পেয়েছেন মীর কাসেম। পূর্ণাঙ্গ রায়ে বলা হয়, আসামিপক্ষ বলতে চেয়েছে, রাজাকার মতিউর রহমান ওরফে মইত্তা গুণ্ডার অধীনে চট্টগ্রামে ডালিম হোটেল ছিল। এর নিচতলায় পাকিস্তানি সেনাদের একটি ক্যাম্প ছিল। কিন্তু বিষয়টি তারা প্রমাণ করতে পারেনি। ট্রাইব্যুনাল ২০১৩ সালের ১১ ডিসেম্বর সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু করেন। প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ প্রসিকিউশনের পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন। ওই দিন তিনি প্রসিকিউশনের ১ নম্বর সাক্ষীর সাক্ষ্য ট্রাইব্যুনালে উপস্থাপন করেন। এই প্রসিকিউটর ভিন্ন ভিন্ন তারিখে প্রসিকিউশনের ২ ও ৩ নম্বর সাক্ষীকেও ট্রাইব্যুনালে উপস্থাপন করেন। ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম প্রসিকিউশনের চতুর্থ সাক্ষীকে ট্রাইব্যুনালে উপস্থাপন করেন। তিনি প্রসিকিউশনের ৫, ৬, ৮, ৯, ১০, ১১, ১২, ১৩, ১৪, ১৫, ১৬, ১৭, ১৮, ১৯, ২০, ২১, ২২ ও ২৩ নম্বর সাক্ষীকে ভিন্ন ভিন্ন তারিখে ট্রাইব্যুনালে উপস্থাপন করেন। ২৪ নম্বর সাক্ষীকে অন্য একদিন ট্রাইব্যুনালে উপস্থাপন করেন প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ। সুতরাং প্রসিকিউশনের পক্ষে দুই প্রসিকিউটর মামলাটি পরিচালনা করেন। যৌথভাবে মামলাটি পরিচালনা করলেও তারা তা করেছেন খণ্ডিতভাবে (পিসমিল বেসিস)। মামলা পরিচালনার সময় একজন প্রসিকিউটর অভিযোগ প্রমাণের স্বপক্ষে কোন কোন সাক্ষী আনবেন এসব বিষয় তিনি পরিকল্পনা আকারে লিখে রাখেন। এটা বিরতিসহ একটি নাটকের মতো। যেখানে প্রথম দৃশ্যের সঙ্গে শেষ দৃশ্যের মিল থাকতে হয়। দুজন পরিচালক নাটকটি পৃথকভাবে পরিচালনা করলে ঘটনার ধারাবাহিকতার ক্ষেত্রে ত্রুটি বা অমিল থাকে। এই মামলাটির ক্ষেত্রেও তাই ঘটেছে। দুজন প্রসিসিকিউটর মামলাটি পরিচালনা করেছেন এটা দোষের কিছু নয়। বরং একাধিক প্রসিকিউটর দ্বারা একটি মামলা পরিচালনা করা ভালো। তবে একাধিক প্রসিকিউটর একটি মামলায় যৌথভাবে যুক্ত থাকলে তাদের মধ্যে পরামর্শ, আলোচনা ও সমন্বয় থাকতে হবে। ওই দুজন প্রসিকিউটরের এই মামলাটি যৌথভাবে (সমন্বয় না করে) পরিচালনা না করাটা একটি ভুল। একজন প্রসিকিউটর কিছু সাক্ষী উপস্থাপন করেছেন, আরেকজন প্রসিকিউর কিছু সাক্ষী উপস্থাপন করেছেন। এতে তাদের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব (ল্যাক অব সিকুয়েন্স) তৈরি হয়েছে। মামলা পরিচালনাকারী দুজন প্রসিকিউটর সাক্ষ্য ও জেরার সময় একসঙ্গে ট্রাইব্যুনালে উপস্থিত ছিলেন না। সাক্ষ্য পর্যালোচনা করে আমরা এ কথা নির্দ্বিধায় বলতে পারি, দুই প্রসিকিউটরের মধ্যে মামলা পরিচালনায় কোনো সমন্বয় ছিল না। অ্যাটর্নি জেনারেলের কাছ থেকে আমরা জেনেছি, এ ধরনের মামলা পরিচালনার ক্ষেত্রে খুবই অভিজ্ঞ ও দক্ষ দুজন প্রসিকিউটর প্রসিকিউশনে আছেন। কিন্তু রহস্যজনকভাবে তারা এই মামলায় নেই। বিদেশে লবিস্ট নিয়োগের বিষয়ে রায়ে বলা হয়, অ্যাটর্নি জেনারেল তার শুনানিতে বলেছেন, মীর কাসেম আলী মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার বানচাল করতে বিদেশে লবিস্ট নিয়োগ করেছিলেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সরকারের প্রভাব খাটিয়ে ওই লবিস্ট ফার্মকে ২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার দিয়েছেন মীর কাসেম। যদিও আসামি পক্ষ বলেছে, এ অভিযোগের ভিত্তি নেই। তবে লবিস্ট নিয়োগ করা হয়েছে কি হয়নি সেটা বিচার্য বিষয়। লবিস্ট ফার্মকে মীর কাসেমের ২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার দেওয়ার বিষয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল একটি রশিদ দাখিল করেন, এর দ্বারা প্রমাণিত হয় আসামি খুবই অর্থশালী ব্যক্তি। ২০১২ সালের ১৯ জুন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে আসামির দাখিল করা জামিন আবেদনে এর প্রমাণ মেলে। জামিন আবেদনে বলা হয়, তিনি (মীর কাসেম) একজন সফল ব্যবসায়ী। এসব কিছু প্রমাণ করে তিনি মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার বানচাল করতে ২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিনিময়ে লবিস্ট ফার্ম নিয়োগ করার সামর্থ্য রাখেন। এদিকে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সাংবাদিকদের বলেছেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধে মীর কাসেম আলীর লবিস্ট নিয়োগের বিষয়ে শুনানির সময় একটি কাগজ দাখিল করেছিলাম। আদালত বলেছে, বিচার বন্ধে ২৫ মিলিয়ন ডলার খরচ করেছেন কি করেননি সেটা প্রমাণসাপেক্ষে। তবে লবিস্টদের দেওয়া রশিদ বিবেচনায় নিয়ে বলেছেন, মীর কাসেম আলী খুবই প্রভাবশালী ব্যক্তি এবং বিচারকে নষ্ট করার জন্য প্রচেষ্টা চালিয়েছেন। রায়ের পর তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন। মাহবুবে আলম বলেন, মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে দেওয়া রায়টির পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশ করেছে আপিল বিভাগ। রায়ের পর্যবেক্ষণে মামলা পরিচালনার ক্ষেত্রে প্রসিকিউটরদের প্রতি অসন্তোষ প্রকাশ করেছে আদালত।

up-arrow