Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : রবিবার, ১২ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ১১ জুন, ২০১৬ ২২:৪১
এসপিপত্নীর ‘খুনি’ আটক
মুহাম্মদ সেলিম, চট্টগ্রাম
এসপিপত্নীর ‘খুনি’ আটক
রবিন নামে এই যুবককে আটক করেছে পুলিশ। ছবি : ভিডিও ফুটেজের

এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু কিলিং মিশনে অংশ নিয়েছে ভাড়াটে খুনি! মিতুকে আঘাতের ধরন, ঘটনার পারিপার্শ্বিকতা ও আলামত দেখে এমনই  ধারণা করছেন মামলার তদন্ত-সংশ্লিষ্ট কর্তাকর্তারা। এ ছাড়া কিলিং মিশনে অংশ নেওয়ার অভিযোগে গতকাল গ্রেফতার করা হয়েছে শাহ জামান ওরফে রবিন নামে এক যুবককে। তাকে ভাড়াটে খুনি হিসেবে মনে করছেন তদন্ত কর্মকর্তারা। আর এ কারণে ভাড়াটে খুনি দিয়ে কিলিং মিশন সম্পন্ন হওয়ার বিষয়টি জোরালো হয়েছে তদন্ত কর্মকর্তাদের মধ্যে। তবে ভাড়াটে খুনিদের দিয়ে এ হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হলেও এর পেছনে কোনো মাফিয়া চক্র কিংবা কোনো জঙ্গি সংগঠন জড়িত এটা একরকম নিশ্চিত হয়েছে প্রশাসন। তদন্ত-সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা বলেন, গুলি করার আগে মিতুকে পেটসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে ছুরিকাঘাত করা হয়। আর খুনের পর তার ব্যবহার করা মুঠোফোন দুর্বৃত্তরা নিয়ে যায়, যা বিগত সময়ের জঙ্গি সংগঠনের সংঘটিত খুনের সঙ্গে মেলে না। এ ছাড়া ঘটনার আরও কিছু আলামত দেখে মনে হচ্ছে খুনিরা পেশাদার। তবে এটা নিশ্চিত, এ হত্যাকাণ্ডের পেছনে কোনো জঙ্গি সংগঠন কিংবা দেশি-বিদেশি মাফিয়া চক্র জড়িত। তারাই ভাড়াটে খুনি দিয়ে এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। মিতুর কিলিং মিশনে অংশ নিয়েছে এমন সন্দেহে মো. শাহ জামান ওরফে রবিন (২৮) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল নগরের বায়েজিদ বোস্তামী থানার শীতলঝরনা আবাসিক এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার রবিন কুমিল্লা জেলার লাকসাম থানার মো. শাহজাহানের ছেলে। রবিনকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ (সিএমপি) কমিশনার ইকবাল বাহার বলেন, ‘মিতু হত্যার সময় ঘটনাস্থলে মোবাইলে কথা বলতে বলতে রাস্তা পার হওয়া যুবক রবিন বলে সন্দেহ করছি। জিজ্ঞাসাবাদে এ ব্যাপারে তথ্য আদায়ের চেষ্টা করা হচ্ছে।’ তিনি বলেন, ‘রবিন কোন পেশায় জড়িত তা জানা যায়নি। এলাকায় তার গতিবিধি সন্দেহজনক বলেও জানতে পেরেছি। সে অষ্টম শ্রেণি পাস।’ মিতু হত্যার ঘটনায় এ নিয়ে দুজনকে গ্রেফতার করা হলো। এর আগে হত্যাকাণ্ডে জড়িত অভিযোগে মঙ্গলবার গভীর রাতে আবু নছর গুন্নুকে হাটহাজারীর ফরহাদাবাদ এলাকার মুসাবিয়ার মাজার থেকে আটক করে নগর গোয়েন্দা পুলিশ। সিএমপি কমিশনার ইকবাল বাহার বলেন, ‘আমরা ধারণা করছি, গ্রেফতার রবিন কিলিং মিশনে অংশ নেওয়াদের একজন। সে কোনো মতাদর্শে বিশ্বাসী কিংবা ভাড়াটে খুনি হতে পারে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।’ প্রসঙ্গত, ৫ জুন সকালে নগরীর জিইজির মোড় এলাকায় ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার পথে দুর্বৃত্তদের হাতে নির্মমভাবে খুন হন এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু। পুলিশের ধারণা, বাবুল আক্তারের জঙ্গিবিরোধী তত্পরতার কারণে টার্গেট কিলিংয়ের শিকার হন তার স্ত্রী মিতু। মামলা তদন্তের মূল দায়িত্বে আছে নগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। তবে র‌্যাব, সিআইডি, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ও কাউন্টার টেররিজম ইউনিট (সিটিআই) তদন্তে সহায়তা করছে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ




up-arrow