Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : সোমবার, ১৩ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১২ জুন, ২০১৬ ২২:৪৬
এসপিপত্নী খুনে দুজন রিমান্ডে
জঙ্গি সম্পৃক্ততার বিষয়ে নিশ্চিত নয় পুলিশ
নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম
জঙ্গি সম্পৃক্ততার বিষয়ে নিশ্চিত নয় পুলিশ
নছর ও রবিনকে গতকাল সাত দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয় —বাংলাদেশ প্রতিদিন

এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতু হত্যায় কোনো জঙ্গি সংগঠন জড়িত কি না তা নিশ্চিত নয় পুলিশ। মিতু হত্যাকাণ্ডের এক সপ্তাহ পর গতকাল চট্টগ্রামে আয়োজিত সুধী সমাবেশে এ কথা বলেন পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক।

তিনি বলেন, ‘মিতু হত্যাকাণ্ড জঙ্গিরা ঘটিয়েছে কি না সেটি আমরা নিশ্চিত নই। মামলার তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কে হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে সেটি নিশ্চিতভাবে বলা যাবে না। ’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘দেশে এ পর্যন্ত ৪১টি গুপ্তহত্যা হয়েছে, যার বেশির ভাগই ডিকেক্ট করা হয়েছে। বাংলাদেশে ছয়টি নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন তত্পর রয়েছে। তবে দেশে যত গুপ্তহত্যা হয়েছে এর সবগুলোই করেছে জেএমবি ও আনসারুল্লাহ বাংলাটিম (আনসার আল ইসলাম)। জঙ্গিবাদ মাথাচড়া দিলে মানুষ দেশে বসবাস করতে পারবে না। তাই জঙ্গিবাদ নির্মূল করতে হবে। ’ মিতু হত্যার অগ্রগতি নিয়ে পুলিশ মহাপরিদর্শক বলেন, ‘দৃশ্যমান অগ্রগতি বলতে দুজন গ্রেফতার। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তদন্ত শেষে সবকিছু ক্লিয়ার হবে। ’ জঙ্গিবাদ দমনে পুলিশের পদক্ষেপের কথা জানিয়ে পুলিশপ্রধান বলেন, ‘বিভিন্ন ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব ও আলেমদের নিয়ে আমরা বৈঠক করেছি। এক লাখ আলেমের স্বাক্ষর নিয়ে কিছুদিনের মধ্যে ঢাকায় জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে নিজেদের অবস্থানের কথা তারা জানাবেন। সাম্প্রতিক সময়ের সব ঘটনায় দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র রয়েছে। পেট্রলবোমা মেরে ক্ষমতায় যেতে যারা ব্যর্থ হয়েছে, তারাই এখন গুপ্তহত্যা করছে। এর মধ্য দিয়ে তারা দেশকে অস্থিতিশীল করে পাকিস্তান, সিরিয়া বানাতে চেষ্টা করছে। কিন্তু তাদের সে ষড়যন্ত্র সফল হবে না। ’

নছর ও রবিন সাত দিনের রিমান্ডে : মিতু হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার ‘শিবির ক্যাডার’ আবু নছর গুন্নু ও শাহ জামান ওরফে রবিনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। গতকাল এ আদেশ দেন চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম হারুনুর রশিদ। নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার নির্মলেন্দু বিকাশ চক্রবর্তী বলেন, ‘মিতু হত্যায় জড়িত অভিযোগে গ্রেফতার আবু নছর গুন্নু ও শাহ জামান রবিনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে গোয়েন্দা পুলিশ। শুনানি শেষে তাদের সাত দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। ’ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার মো. কামরুজ্জামান বলেন, ‘আদালতের আদেশের পর রবিবার বিকালে রবিনকে হেফাজতে এনে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করা হয়েছে। দু-এক দিনের মধ্যে নছরকেও হেফাজতে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। ’

তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তন : এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতু হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কাজী রকিব উদ্দিনকে মামলার তদন্ত থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। তার স্থলে নতুন তদন্ত কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে গোয়েন্দা শাখার (দক্ষিণ) সহকারী কমিশনার মো. কামরুজ্জামানকে। শনিবার রাতে এ আদেশ দেন সিএমপি কমিশনার ইকবাল বাহার। মিতু হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তনের কথা নিশ্চিত করেছেন সিএমপির অতিরিক্ত উপকমিশনার (জনসংযোগ) আনোয়ার হোসেন।

অবশেষে পাঁচ সহায়ক কমিটি : মিতু হত্যার সাত দিনের মাথায় পাঁচটি সহায়ক কমিটি গঠন করেছে সিএমপি। গতকাল দুপুরে সিএমপিতে এক সভায় পুলিশ মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হকের উপস্থিতিতে পাঁচটি কমিটির ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। গঠিত পাঁচ কমিটি হচ্ছে— অভিযান, আসামিকে জেরা, কেস ডকেট পর্যালোচনা, ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ ও পর্যালোচনা এবং গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ কমিটি। এসব কমিটিতে সর্বনিম্ন পাঁচজন থেকে সর্বোচ্চ নয়জন চৌকস কর্মকর্তা রাখা হয়েছে। সহায়ক কমিটি গঠনের কথা নিশ্চিত করে সিএমপির অতিরিক্ত উপকমিশনার (জনসংযোগ) আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘মিতু হত্যাকাণ্ড নিয়ে কাজ করা অন্য সংস্থারগুলোর মতো এ কমিটিগুলো তদন্ত কর্মকর্তাদের সহায়তা করবে। ’ সিএমপি সূত্রে জানা যায়, ঘটনার পর এক সপ্তাহ অতিবাহিত হয়ে গেলেও দুজনকে গ্রেফতার এবং হত্যায় ব্যবহূত মোটরসাইকেল ও সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে সন্দেহভাজন কালো রঙের মাইক্রোবাস জব্দ করা ছাড়া দৃশ্যমান কোনো অগ্রগতি হয়নি। উদ্ঘাটন হয়নি ঘটনার আসল ‘রহস্য’। তাই এ কমিটি গঠন করা হয়। প্রসঙ্গত, ৫ জুন নগরীর জিইসির মোড় এলাকায় ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার পথে দুর্বৃত্তদের হাতে খুন হন এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু। এ ঘটনার ক্লু উদ্ঘাটন এবং আসামিদের গ্রেফতারে কাজ করছে ডিবি, র‌্যাব, সিআইডি, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ও কাউন্টার টেররিজম ইউনিটসহ (সিটিআই) আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অন্য সংস্থাগুলো।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow