Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : রবিবার, ১৯ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ১৮ জুন, ২০১৬ ২২:৩৮
ইসলামে জঙ্গিবাদ হারাম
এক লাখ আলেমের ফতোয়া
নিজস্ব প্রতিবেদক

‘ইসলামে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড হারাম’ এই ফতোয়া দিয়েছেন বাংলাদেশের প্রখ্যাত এক লাখ আলেম-ওলামা। রাজধানীতে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে গতকাল এ তথ্য দিয়েছেন ফতোয়া কমিটির আহ্বায়ক আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ। বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার উদ্যোগে এক লাখ আলেম, মুফতি ও ইমামের ফতোয়া ও স্বাক্ষর সংগ্রহ কমিটি এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজক। অনুষ্ঠানে গণমাধ্যমের জন্য পুরুষ আলেম ও মহিলা আলেমদের স্বাক্ষরিত ফতোয়া প্রকাশ করা হয়। ফরীদ উদ্দীন মাসঊদের নেতৃত্বে দস্তখত সংগ্রহ কমিটিতে ছিলেন সদস্যসচিব আবদুর রহিম কাসেমী, যুগ্ম সদস্যসচিব সদরুদ্দীন মাকুনুন, সদস্য আল্লামা আলীম উদ্দীন দুর্লভপুরী, হোসাইন আহমদ, দেলোয়ার হোসাইন সাঈফী, ইমদাদুল্লাহ কাসেমী, আইয়ুব আনসারী, ইবরাহিম শিলাস্থানী, আবদুল কাইয়ুম খান, যাকারিয়া নোমান ফয়জী। মাওলানা মাসঊদ জানান, দেশের এক লাখ এক হাজার ৫২৪ জন মুফতি, আলেম-ওলামা এই ‘ফতোয়া’য় দস্তখত করেছেন। বিভাগীয় শহরগুলোর নামে ২৬টি এবং শুধু নারী আলেমদের স্বাক্ষরে ‘ফতোয়া’র চারটি খণ্ড তৈরি হয়েছে। সব খণ্ডেই জঙ্গিবাদ নিয়ে মূল ফতোয়ার সঙ্গে দারুল উলুম দেওবন্দ, মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসা, ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার, চরমোনাই জামিয়া রশিদিয়া ইসলামিয়া, শায়খ জাকারিয়া রিসার্চ সেন্টার ও জামিয়াতুল আসআদ মাদ্রাসাসহ হেফাজতে ইসলামের নেতাদের ফতোয়াও সংযুক্ত করা হয়েছে। বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান ও ঐতিহাসিক শোলাকিয়ার গ্রান্ড ইমাম আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেন, ফতোয়ায় সন্ত্রাসী-জঙ্গিদের মেরুদণ্ড ও মানসিক শক্তি ভেঙে পড়বে। প্রশ্ন হতে পারে ফতোয়ায় কি সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ ঠেকানো যাবে? আমরা দৃঢ়কণ্ঠে বলতে চাই লক্ষ অস্ত্রের চেয়েও ফতোয়ার শক্তি অনেক ধারালো। মনোচেতনা মানবকর্মের মূল উৎস। সঠিক ফতোয়া সেই মনোচেতনাকে শুদ্ধ করে, আলোড়িত করে, মানবতাবাদী বানায়। মুসলিম সমাজে ফতোয়ার ব্যাপক ও সুদূরপ্রসারী প্রভাব অনস্বীকার্য মন্তব্য করে তিনি বলেন, ধর্মের নামে সন্ত্রাস যারা করছে তারা বেহেস্তলাভের প্রেরণায় উদ্বুদ্ধ হয়ে তা করছে। এটা যে বেহেস্তের নয়, জাহান্নামের পথ, তা যখন বুঝতে পারবে নিশ্চয় তারা এ পথে পা বাড়াবে না। সুতরাং মানবকল্যাণ ও শান্তির ফতোয়ার এই বারতা সন্ত্রাস পুরোপুরি ঠেকাতে না পারলেও এতে যে তা বহুলাংশে হ্রাস পাবে তাতে সন্দেহ নেই। সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন, সন্ত্রাসের মদদদাতারা এতে হতোদ্যম হবে, দ্বিধাহীনভাবে তা বলা যায়। কিন্তু যারা জাগতিক স্বার্থ সামনে রেখে অর্থ, নারী, ক্ষমতার জন্য হিংস্রতা-বর্বরতাকে অবলম্বন বানিয়েছে, কোরআনের ভাষায় অন্তরে যাদের মরচে পড়েছে তাদের কথা স্বতন্ত্র। আল্লাহ সবাইকে হেফাজত করুন। আর কোনো সময় এমন কাজ হয়নি জানিয়ে আল্লামা মাসঊদ বলেন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বিপুলসংখ্যক ধর্মীয় ব্যক্তিত্বের এই ব্যাখ্যা অবশ্যই বিরাট অবদান রাখবে এবং আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশের মর্যাদা শীর্ষমার্গে নিয়ে যাবে। এ ধরনের বিরাট কাজ আজ পর্যন্ত পৃথিবীর আর কোথাও কখনো হয়েছে বলে আমাদের জানা নেই। এত দিন পরে কেন এই ফতোয়া— সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে আল্লামা মাসঊদ বলেন, আমরা সব সময় সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বলে আসছি। আজকের ফতোয়া প্রকাশ ভিন্ন প্রক্রিয়ামাত্র। কী আছে এই ফতোয়ায়— সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের জবাবে জমিয়ত চেয়ারম্যান বলেন, এই সন্ত্রাসবিরোধী ফতোয়ার প্রধান দুটি বৈশিষ্ট্য হলো, জঙ্গিবাদীরা যে চেতনা থেকে বিভ্রান্ত হচ্ছে এবং বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে সেগুলো অপনোদনের চেষ্টা করা হয়েছে। ব্যাখ্যাসহ সবিস্তার দলিল-প্রমাণ উল্লেখ করা হয়েছে। মহিলা আলেম ও মুফতিদেরও সমর্থন নেওয়া হয়েছে। এটি আজ পর্যন্ত কোনো ফতোয়ায় করা হয়েছে কিনা জানা নেই। এক লাখ আলেম, মুফতি ও ইমামের স্বাক্ষর আদায় করতে গিয়ে কোনো বাধার সম্মুখীন হয়েছেন কিনা— জানতে চাইলে আল্লামা মাসঊদ বলেন, কিছু কিছু সমস্যার সম্মুখীন যে হতে হয়নি তা নয়। তিন শ্রেণি থেকে আমাদের বাধাগ্রস্ত হতে হয়েছে। জামায়াত-শিবির ও জঙ্গিবাদী গোষ্ঠী— আমরা জিহাদের বিরুদ্ধে কাজ করছি এই অপবাদ তুলে ফেসবুকসহ সামাজিক মাধ্যমগুলোয় এরা নানা ধরনের অপপ্রচার চালিয়েছে। আরেক দল এমন যারা বিষয়টি সমর্থন করেছে কিন্তু জঙ্গিবাদের হামলার শিকার হওয়ার আতঙ্কে দস্তখত করতে চায়নি। আর এ আতঙ্ক তারা প্রচার করেছে। আরেক শ্রেণি হলো হিংসুক। আল্লামা মাসঊদ বলেন, জঙ্গি, সন্ত্রাসীদের ‘হৃদয়বৈকল্য’ দূর করা না গেলে শুধু আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দিয়ে এদের দমন করা সম্ভব নয়।

এই সন্ত্রাসীরা ধর্মের নামে আত্মদানে প্রস্তুত। তাদের চৈতন্যের বিভ্রম দূর করা দরকার সবার আগে। ইসলামের সঠিক ও বিশুদ্ধ ব্যাখ্যা তুলে ধরে ধর্মীয় নেতৃবৃন্দের পক্ষে তা করা সম্ভব। ফতোয়ার মূল অংশ পুস্তক আকারে প্রকাশ করে সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে দেশের বিত্তবানদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে মাওলানা মাসঊদ বলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম। ইসলামের নাম ব্যবহার করে কতিপয় সন্ত্রাসী গোষ্ঠী নিজেদের হীনস্বার্থ চরিতার্থের উদ্দেশ্যে মহাগ্রন্থ কোরআন ও হাদিসের অপব্যাখ্যা দিয়ে বিভিন্ন স্থানে সন্ত্রাস ও আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। মানুষের চোখে ইসলামকে একটা বর্বর, নিষ্ঠুর ও সন্ত্রাসী ধর্মরূপে চিত্রিত করছে। এতে সরলমনা কেউ কেউ বিভ্রান্তির শিকার হচ্ছে। জঙ্গিদের অনেককেই ‘জিহাদি’ বললেও তারা আসলে ‘সন্ত্রাসী’। জঙ্গিদের জানাজা পড়াও হারাম, যারা জঙ্গিদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে মারা যাবেন তারা শহীদের মর্যাদা পাবেন।

ফতোয়ায় ১০টি প্রশ— এক. মহান শান্তির ধর্ম ইসলাম কি সন্ত্রাস ও আতঙ্কবাদী কর্মকাণ্ডকে সমর্থন করে? দুই. নবী ও রসুল বিশেষ করে নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কি এ ধরনের হিংস্র ও বর্বর পথ অবলম্বন করে ইসলাম কায়েম করেছেন? তিন. ইসলামে জিহাদ ও সন্ত্রাস কি একই জিনিস? চার. সন্ত্রাস সৃষ্টির পথ কি বেহেস্ত লাভের পথ না জাহান্নামের পথ? পাঁচ. আত্মঘাতী সন্ত্রাসীর মৃত্যু কি শহীদি মৃত্যু বলে গণ্য হবে? ছয়. ইসলামের দৃষ্টিতে গণহত্যা কি বৈধ? সাত. শিশুনারীবৃদ্ধনির্বিশেষে নির্বিচার হত্যাকাণ্ড ইসলাম কি সমর্থন করে? আট. ইবাদতরত মানুষকে হত্যা করা কী ধরনের অপরাধ? নয়. অমুসলিমদের উপাসনালয় যথা গির্জা, মন্দির, প্যাগোডা ইত্যাদিতে হামলা করা কি বৈধ? দশ. সন্ত্রাসী ও আতঙ্কবাদীদের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলা ইসলামের দৃষ্টিতে সবার কর্তব্য কিনা?

তৃতীয় প্রশ্নের উত্তরে বলা হয়েছে : জিহাদ ও সন্ত্রাস একই জিনিস নয়। জিহাদ হলো ইসলামের অন্যতম একটা নির্দেশ, পক্ষান্তরে সন্ত্রাস হলো হারাম ও অবৈধ।

চতুর্থ প্রশ্নের উত্তরে বলা হয়েছে : যারা বেহেস্তলাভের উদ্দেশ্যে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়ছে, তাদের জাহান্নামের এই পথ ছেড়ে দিয়ে মহান আল্লাহর কাছে তওবা করে শান্তি ও হেদায়েতের পথে ফিরে আসতে হবে।

পঞ্চম প্রশ্নের উত্তর : আত্মহত্যা ও আত্মঘাতী হামলা ইসলামের দৃষ্টিতে ‘হারাম’।

নবম প্রশ্নের উত্তরে বলা আছে : মুসলিম সমাজে বসবাসকারী অমুসলিমকে যদি কেউ হত্যা করে সে বেহেস্তের গন্ধও পাবে না। অমুসলিমদের গির্জা, প্যাগোডা, মন্দির ইত্যাদি উপাসনালয়ে হামলা করা ইসলামের দৃষ্টিতে হারাম ও অবৈধ। এটি কঠোর শাস্তিযোগ্য অপরাধ। প্রতিটি ফতোয়াতেই সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদকে কোরআন ও হাদিসের আলোকে হারাম বলা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার সেক্রেটারি মাওলানা আবদুর রহীম কাসেমী, নূরুল উলূম কুলিয়াচরের প্রিন্সিপাল মুফতি আবদুল কাইয়ুম খান, বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ঢাকা মহানগরীর সভাপতি মাওলানা দেলোয়ার হোসাইন সাঈফী, সার্কিট হাউস জামে মসজিদের খতিব ও জামিয়া ইকরার প্রিন্সিপাল মাওলানা আরীফ উদ্দীন মারুফ, খুলনা মাদানীনগর মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা ইমদাদুল্লাহ কাসেমী, বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ঢাকা মহানগরীর সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সদরুদ্দীন মাকনুন, ফতোয়ার আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মাওলানা যাকারিয়া নোমান ফয়জী, বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ময়মনসিংহের আহ্বায়ক মাওলানা উবায়দুর রহমান, ঢাকা মহানগরীর সহ-সভাপতি মুফতি শরফউদ্দীন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মাওলানা হোসাইনুল বান্না প্রমুখ।




up-arrow