Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : সোমবার, ২০ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ১৯ জুন, ২০১৬ ২৩:৩০
সঙ্গী যখন ভয়ঙ্কর
ভালো ও আওয়ামী লীগ পরিবারের সন্তানরা টার্গেট, কৌশলে ভেড়ানো হচ্ছে জঙ্গি সংগঠনে বিব্রত অনেক পরিবার, সামাজিকতার কারণে কেউ শেয়ার করে না এসব খবর
নিজস্ব প্রতিবেদক
সঙ্গী যখন ভয়ঙ্কর

ঘটনা-১. বাসা থেকে পরীক্ষা দিতে বের হয়ে যায় কলেজ পড়ুয়া তরুণ ফাইজুল্লাহ ফাহিম। গার্মেন্ট কারখানার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বাবার সন্তান ফাহিম এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছিল। এইচএসসিতেও পাবে বলে কলেজের শিক্ষকদের প্রত্যাশা ছিল। সেই ফাহিম পরীক্ষা দিতে যাওয়ার কথা বলে বাসা থেকে বের হওয়ার পর আর বাসায় আসেনি। উদ্বিগ্ন বাবা নিখোঁজ সন্তানের জন্য থানায় জিডিও করেন। কিন্তু চার দিন পর মাদারীপুরে এক কলেজশিক্ষককে কুপিয়ে হত্যাচেষ্টার সময় ধরা পড়ার পর সন্তানের খবর পান ফাহিমের বাবা ওমর ফারুক। এর আগে পরিবার, স্বজন ও শিক্ষকদের কেউ ফাহিমের জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে কোনো কিছুই ধারণা করতে পারেননি। পত্রিকায় ছবি দেখে ফাহিমের শিক্ষক বিশ্বাসই করেননি যে, ও এত খারাপ কিছু করতে পারে। তবে ফাহিমকে গ্রেফতারের পর গোয়েন্দারা জানতে পারেন, উত্তরার ওই কলেজের এক বড় ভাই তাকে এই পথে এনেছে। কলেজের সামনে এক লাইব্রেরিতে প্রায়ই তারা বৈঠক করত। সেখানেই জঙ্গিবাদে দীক্ষিত হয় ফাহিম। এই ফাহিমের এক মামা উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা। ঘটনা-২. বছর দুয়েক আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষিকা ঢাকার রমনা জোনের ডিসিকে ফোন করেন। কারণ তার সন্তানকে আটক করেছিল পুলিশ। ফোনে পুলিশ কর্মকর্তার কাছ থেকে ওই শিক্ষিকা যা জানতে পারেন তাতে তিনি পড়েন বিব্রতকর পরিস্থিতিতে। হয়ে যান স্তম্ভিত। কারণ তার সন্তানকে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতায় আটক করা হয়। হতবিহ্বল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষিকা কী করবেন আর বুঝতে পারছিলেন না। পরে জানলেন, এক বাল্যবন্ধুর মাধ্যমে জঙ্গিবাদে আকৃষ্ট হয়েছেন তার ছেলে।

ঘটনা-৩. কুমিল্লার একটি উপজেলার আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতির আপন ভাতিজা। পড়াশোনা করেন ঢাকার একটি নামি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে। হঠাৎ দুই মাসের ছুটির কথা বলে বাড়ি গিয়ে অবস্থান করছিল সে। এ সময় একদিন মধ্যরাতে কুমিল্লার বাড়ি গিয়ে হানা দেয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। তুলে নিয়ে যায় সেই তরুণকে। কারণ সে ঢাকায় অবস্থানকালে সঙ্গদোষে জড়িয়ে পড়ে উগ্রবাদে। একাধিক অপারেশনে যোগ দিয়েছিল সে। সেই রাতে আটকের পর তাকে কুমিল্লা থেকে সরাসরি নিয়ে আসা হয় ঢাকায়। পরে তাকে আর পাওয়া যায়নি। কোনো আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকেও তাকে আটকের কথা স্বীকার করা হয়নি। আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত পুরো পরিবার বিব্রত অবস্থায় পড়ে। লোকলজ্জা ও ঘৃণায় তারা জঙ্গি কার্যক্রমে জড়িয়ে পড়া পরিবারের সন্তানের আর খোঁজখবরও করেনি। সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলে যোগাযোগ থাকলেও করেনি কোনো দেনদরবার।

এভাবেই সঙ্গীদের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে এবং বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় প্রগতিশীল পরিবারের সন্তানরা যাচ্ছে বিপথে। জড়িয়ে পড়ছে উগ্র জঙ্গি কার্যক্রমে। পরিবারগুলোর সুশিক্ষাকে পাশ কাটিয়ে তারা জড়িয়ে পড়ছে মানুষ খুনের মতো জঘন্য অপরাধে। তাদের এই জঙ্গি সম্পৃক্ততা দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে চলে যাচ্ছে বিদেশেও। সিরিয়া যাওয়ার জন্য নানান চেষ্টাও করেছেন বেশ কিছু তরুণ। ঊর্ধ্বতন এক সামরিক কর্মকর্তার ভাগ্নেকে তো নানান উপায়েও আটকে রাখা যায়নি। চলে গেছে তুরস্ক। ধারণা করা হয়, সে তুরস্ক থেকে গেছে সিরিয়ায়। আবার একটি মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানির তরুণ আইটি প্রধান তুখোড় প্রকৌশলীরও জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পেয়েছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তাকে আটকের পর জানা যায়, তার বন্ধু সার্কেলের এক সদস্যের মাধ্যমে চারজন জঙ্গি কার্যক্রমে জড়িয়ে পড়ে। তাদের একজন সিরিয়া চলে যায়, বাকিরা গ্রেফতার হয়।

জানতে চাইলে মনোচিকিৎসক ড. মোহিত কামাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, কিশোরদের তথা অপেক্ষাকৃত কম বয়সী তরুণদের মন হয় ‘কাঁচামাটি’র মতো। তাদের ‘রিজোনিং পাওয়ার’ খুব কম থাকে। তাদের অনুভূতিও অন্যদের চেয়ে ভিন্ন। এ বয়সে তাদের যেভাবে বোঝানো হবে তারা ঠিক সেভাবেই বুঝবে। এমনকি তাদের সহজেই ‘মোটিভেট’ও করা যায়। আর এ সুযোগেই অসাধু ব্যক্তিরা নিজেদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য এই তরুণদের ব্যবহার করে। অথচ যারা এর শিকার হচ্ছে অর্থাৎ সেই কিশোর-তরুণ জানেই না যে তারা কি করছে!

গোয়েন্দা সূত্রের খবর, টার্গেট করেই এসব তরুণকে জড়ানো হচ্ছে জঙ্গিবাদে। টার্গেট করা হচ্ছে সমাজের প্রতিষ্ঠিত পরিবারগুলোকে। নতুন করে টার্গেট করা হয়েছে আওয়ামী লীগের রাজনীতি সংশ্লিষ্ট পরিবারের সন্তানদের। জঙ্গি তদন্ত সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, শিক্ষিত ও সমাজে প্রতিষ্ঠিত পরিবারের সদস্যদের দলে ভেড়ানো গেলে অন্যদের সহজেই প্রভাবিত করা সম্ভব হবে। তাই তাদের কৌশলে টার্গেট করা হচ্ছে। আর আওয়ামী লীগের রাজনীতি সংশ্লিষ্টদের টার্গেট করে এক ঢিলে একাধিক স্বার্থসিদ্ধি করা হচ্ছে বলে মন্তব্য ওই কর্মকর্তার।

পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, এসব তরুণের প্রত্যেককেই তাদের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও বড়ভাইরা জঙ্গিবাদী কার্যক্রমে জড়িয়ে ফেলছেন। একবার পরিবারগুলোর কোনো সন্তান এ ধরনের বিপথে গেলে সেই পরিবারগুলোও মানসিকভাবে ধ্বংস হয়ে যায় বলেও মন্তব্য কর্মকর্তাদের। পুলিশের তথ্যানুসারে, দেশের করপোরেট খাতের নিয়ন্ত্রণ করা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিজনেস স্টাডিজ ফ্যাকাল্টিকে মূল টার্গেট করেছিল ইংরেজিতে প্রচারণা চালানো একটি নিষিদ্ধ জঙ্গি গোষ্ঠী। বিজনেস স্টাডিজ ফ্যাকাল্টির সিসিটিভিতে হিযবুত তাহ্রীরের নানান কর্মকাণ্ডে রত অবস্থায় দেখা গেছে এই ফ্যাকাল্টিরই ছয় শিক্ষার্থীকে। তাদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আজীবন বহিষ্কার করা হয়েছে। ওই ফ্যাকাল্টির আরও ২৯ জন ছাত্রের হিযবুত তাহ্রীরে জড়িত থাকার প্রমাণ পেয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অফিস। এর মধ্যে ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন বিভাগের ২০ ও ২১তম ব্যাচের আটজন ছাত্র রয়েছেন। রয়েছে ফিন্যান্স ও অ্যাকাউন্টিং বিভাগের চারজন করে এবং ম্যানেজমেন্ট বিভাগের দুজন ছাত্র। মার্কেটিং বিভাগের সবচেয়ে বেশি ছাত্র ১১ জনের বিরুদ্ধে হিযবুত তাহ্রীরে জড়িত থাকার প্রমাণ মিলেছে। তারা আর বিশ্ববিদ্যালয়ে যায়নি। ফলে শেষ হয়নি তাদের শিক্ষাজীবনও। একইভাবে সিলেটে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বড় ভাইয়ের মাধ্যমে ইসলামী খেলাফত রাষ্ট্র গঠনের ব্যাপারে উৎসাহিত হয় ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের আইপি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের এক ছাত্র ও পার্কভিউ মেডিকেল কলেজের আরেক শিক্ষার্থী। তারাও আর পরে পরিবার ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কোনো ধরনের সম্পৃক্ততা রাখতে পারেনি। ঝরে পড়েছে স্বাভাবিক জীবন থেকে।

বাংলাদেশের নিরাপত্তা গবেষক, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব পিস অ্যান্ড সিকিউরিটিস স্টাডিসের প্রেসিডেন্ট মেজর জেনারেল মুনিরুজ্জামান (অব.) ইতিপূর্বে বিসিসিকে বলছেন, বাংলাদেশে উগ্র বা জঙ্গি মতবাদ বিস্তার লাভের স্থান এতদিন ধারণা করা হতো শুধু মাদ্রাসাগুলোর মধ্যেই সীমিত, কিন্তু এখন তা শহরকেন্দ্রিক হয়ে উঠেছে। অভিজাত এবং ধনী পরিবার থেকে শিক্ষার্থীরা যেসব বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যাচ্ছেন সেখানে এ ধরনের মতবাদ বিস্তার লাভ করেছে।




up-arrow