Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বুধবার, ২২ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২১ জুন, ২০১৬ ২৩:১৫
পলাতক এমপি রানা কীভাবে গেলেন সংসদে!
নিজস্ব প্রতিবেদক
পলাতক এমপি রানা কীভাবে গেলেন সংসদে!

খুনের মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানাভুক্ত আসামি টাঙ্গাইল-৩ আসনের এমপি আমানুর রাহমান রানা সংসদে গেলেও পুলিশ তাকে খুঁজে পাচ্ছে না।

গত সোমবারও তিনি সংসদের অধিবেশন কক্ষের চার নম্বর লবিতে রাখা হাজিরা বইয়ে সই করে চলে আসেন।

লবিতে কর্মরত সংসদ সচিবালয়ের একাধিক কর্মচারী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। অথচ পুলিশ বলছে সে পলাতক।

জানা যায়, টাঙ্গাইল-৩ আসনের এমপি রানাকে গ্রেফতারে গত ৬ এপ্রিল টাঙ্গাইলের আদালত পরোয়ানা জারি করে। তিনি ধরা না পড়ার পর ১৬ মে তার মালামাল বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়। পালিয়ে থাকা রানা সর্বশেষ গত বছরের ৫ জুলাই সংসদের অধিবেশনে যোগ দিয়েছিলেন। ফলে অনুপস্থিতির কারণে সংসদ সদস্যপদ হারানোর ঝুঁকি রয়েছে তার। সংবিধান অনুযায়ী, কোনো এমপি টানা ৯০ কার্যদিবস অনুপস্থিত থাকলে তার সদস্যপদ বাতিল হয়ে যাবে। এ ছাড়া সংসদের কার্যপ্রণালীবিধি অনুসারে, সংসদ এলাকায় কোনো এমপিকে গ্রেফতার করতে হলে স্পিকারের অনুমতি নিতে হবে। সংসদের প্রধান ফটকে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্য ও লবির নিরাপত্তা সদস্যরা জানান, এমপি আমানুর রহমান খান রানা গত সোমবার বেলা ১১টার পর নিজস্ব গাড়ি নিয়ে সংসদে প্রবেশ করেন। তবে সংসদের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা এ ব্যাপারে কিছুই জানেন না বলে উল্লেখ করেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের ১৮ জানুয়ারি গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয় আওয়ামী লীগের টাঙ্গাইল জেলা কমিটির সদস্য ফারুককে। হত্যার তিন দিন পর ফারুকের স্ত্রী নাহার আহমেদ টাঙ্গাইল মডেল থানায় অজ্ঞাত পরিচয় কয়েকজনকে আসামি করে মামলা করেন। পরে নাহার সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেন, ফারুক জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হতে চেয়েছিলেন। সে জন্যই তাকে হত্যা করা হয়। টাঙ্গাইলের প্রভাবশালী খান পরিবারের চার ভাই রানা, মুক্তি, কাঁকন ও বাপ্পা এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow