Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুলাই, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুলাই, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ২৫ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৪ জুন, ২০১৬ ২৩:৩১
উত্তরায় মার্কেটে আগুন মৃত্যু ৬, দগ্ধ ২৫
তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি
নিজস্ব প্রতিবেদক
উত্তরায় মার্কেটে আগুন মৃত্যু ৬, দগ্ধ ২৫

রাজধানীর উত্তরায় আলাউদ্দিন টাওয়ারে লিফট ছিঁড়ে ভয়াবহ আগুনে ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। দগ্ধ হয়েছেন ২৫ জন। গুরুতর অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় এক পরিবারের তিনজনসহ চারজনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।

গতকাল ইফতারের আগ মুহূর্তে বিকাল সোয়া ৬টায় ১৩ তলা ট্রপিক্যাল আলাউদ্দিন শপিং কমপ্লেক্সে এ দুর্ঘটনা ঘটে। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে ফায়ার সার্ভিসের ৮টি ইউনিট তত্পরতা চালায়। এ সময় র‍্যাব, পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ভবনটিকে ঘিরে রাখে। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক মোজাম্মেল হককে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। সমন্বিত উদ্ধারকাজের শেষ পর্যায়ে আনুষ্ঠানিক ব্রিফিংকালে ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক (অপারেশন্স) মেজর এ কে এম শাকিল নেওয়াজ এ কথা জানান। ঘটনাস্থলে দায়িত্বরত ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা দাবি করেন, ছয়তলা থেকে লিফট ছিঁড়ে মার্কেটের বেজমেন্টে পড়ে গেলে সেখানে আগুন ধরে চারতলা পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় অগ্নিদগ্ধ হয়ে চারজন মারা যান। লিফটের ভিতর অন্তত ২০-২৫ জন আটকে ছিলেন। তবে ঢাকা মহানগর পুলিশের উত্তর বিভাগের উপ-কমিশনার বিধান কুমার ত্রিপুরা রাত ১১টায় বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানান, দুর্ঘটনায় ওই সময় পর্যন্ত ছয়জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। গুরুতর দগ্ধ অবস্থায় ১১ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। ঢাকা মেডিকেল সূত্র জানায়, বার্ন ইউনিটে চিকিত্সাধীন আট মাস বয়সী শিশুসহ একই পরিবারের তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের মধ্যে মাহমুদুল হাসানের (৪০) শরীরের ৮০ শতাংশ, তার মেয়ে মায়েশার (১১) ৫৫ শতাংশ, আট মাস বয়সী তার ছেলে মুনতাকিমের ২৩ শতাংশ পুড়ে গেছে। গতকাল এই পরিবারের সদস্যরা আলাউদ্দিন টাওয়ারে একটি ডেভেলপার কোম্পানির ইফতারের দাওয়াতে এসেছিলেন। এর বাইরে মামুন (২০) নামে এক যুবক অগ্নিদগ্ধ না হলেও তাড়াহুড়ো করে বের হওয়ার সময় পড়ে গিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাত্মক আঘাত পেয়েছেন। উত্তরা আধুনিক মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্র জানায়, রাত ১০টা পর্যন্ত সেখানে ২০ জন আহতকে নেওয়া হলে গুরুতর ছয়জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এ ছাড়া অপর একজনকে ওই হাসপাতালে ভর্তি করে বাকিদের প্রাথমিক চিকিত্সা দেওয়া হয়েছে। ঘটনার পরপরই সরেজমিন ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, ভবনটির ছয়তলা পর্যন্ত মার্কেট, আর বাকি সাততলা আবাসিক। ভবনটিতে রয়েছে চারটি লিফট। দুটি মার্কেটের আর দুটি আবাসিক বাসিন্দাদের জন্য। বিকালে হঠাত্ বিকট বিস্ফোরণের পরপরই মার্কেটে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। ধোঁয়ায় আশপাশের এলাকা ছেয়ে যায়। মুহূর্তেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে উপরের তলাগুলোতে। এরই মধ্যে সেখানে উপস্থিত হন ফায়ার সার্ভিসের সদস্য এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা। নিরাপত্তার স্বার্থে তারা মার্কেটের আশপাশের এলাকায় কাউকে ঢুকতে দেননি। প্রত্যক্ষদর্শী মার্কেটের নিরাপত্তা কর্মী আবদুল জব্বার জানান, মার্কেটের পূর্বপাশের লিফটটি ছয়তলা থেকে ছিঁড়ে গেলে তাতে আগুন ধরে যায়। তা চারতলা পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে। এর কিছুক্ষণ পর পশ্চিম পাশের লিফটে বিস্ফোরণ ঘটে। একই সঙ্গে আবাসিকের একটি লিফটেও আগুন ধরে যায়। বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের পরিচালক (অপরারেশন্স) মেজর জেনারেল শাকিল নেওয়াজ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ভবনটির বেজমেন্টের কলামে ক্র্যাক পাওয়া গেছে। বিষয়টি রাজউককে জানাব এবং আমরাও খতিয়ে দেখব। তারপর এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

up-arrow