Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০১৭

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৮ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৭ জুন, ২০১৬ ২৩:২৮
গণমাধ্যমের ভূমিকায় কত কথা
বাবুলকে নিয়ে গুজব প্রশাসনের ব্যর্থতা ---অধ্যাপক গোলাম রহমান
নিজস্ব প্রতিবেদক
গণমাধ্যমের ভূমিকায় কত কথা

প্রধান তথ্য কমিশনার গোলাম রহমান বলেছেন, পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রী মিতু হত্যা সম্পর্কে গণমাধ্যমের ভূমিকা নিয়ে কোনো প্রশ্ন তোলার সুযোগ নেই। কোনো তথ্য না থাকলে গুজব ছড়াবে এটাই স্বাভাবিক। নিজের স্ত্রী হত্যার ঘটনায় বাবুল আক্তারকে নিয়ে যে বানোয়াট তথ্য ছড়ানো হয়েছে তা প্রশাসনের ব্যর্থতা। এ ঘটনা নিয়ে সাধারণ মানুষের কৌতূহল আছে। তারা সব আপডেট জানতে চায়। গণমাধ্যমের কাজ তো আপডেট জানানো। এ ক্ষেত্রে গণমাধ্যম তা-ই করেছে। কোনো তথ্য না পাওয়ায় কিছু ভুল তথ্য ছড়িয়েছে। এটা কিছু ওয়েবসাইটকেন্দ্রিক গণমাধ্যম, যা ফেসবুক ও ব্লগের মাধ্যমে ব্যাপক আকারে ছড়িয়েছে। সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করেছে। এর দায় কোনোভাবেই পুরো গণমাধ্যমের ওপর চাপানোর সুযোগ নেই। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের কাছে তিনি এসব কথা বলেন।

গোলাম রহমান বলেন, প্রশ্ন হচ্ছে, এ বিভ্রান্তি গণমাধ্যম কেন ছড়াল। বাবুল আক্তারকে যেভাবে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করতে নিয়ে গেছে, সেই প্রক্রিয়া সম্পর্কে সবার কৌতূহল ছিল। গণমাধ্যম মানুষের কৌতূহল মেটাবে। কিন্তু কৌতূহল মেটাতে গিয়ে তথ্য পরিবেশন করা হয়েছে। পুলিশ বা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উচিত ছিল বিষয়টি সম্পর্কে বারবার ব্রিফিং করা। তাদের অবশ্যই বোঝা উচিত যে বিভ্রান্ত ছড়াতে পারে। এটা বুঝেও তারা সে সম্পর্কে কোনো তথ্য দেয়নি। এখন দায় কেন গণমাধ্যম নেবে। তিনি বলেন, একজন পুলিশ কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে নিয়ে গেছে পুলিশ। প্রশাসন থেকে সে সম্পর্কে কেউ কোনো তথ্য দেবে না, এটা হতে পারে না। যেহেতু তথ্য কেউ দিচ্ছে না, সাংবাদিকরা তো তথ্য বের করবে। তারা কীভাবে তথ্য সংগ্রহ করবে, কোন উৎস থেকে খবরটি নিশ্চিত করবে তা সংশ্লিষ্ট গণমাধ্যম নিজেদের প্রয়োজন মতোই করবে। সেই উৎসটি ঠিক কি না। এসব উৎস সম্পর্কে গণমাধ্যমকে আরও সাবধান থাকতে হবে। কারণ এ ঘটনায় গুজব ছড়িয়েছে নাম-পরিচয়বিহীন কিছু সামাজিক ওয়েবসাইট। যে গুজব ছড়ানো হয়েছে তা দেশের মূলধারার গণমাধ্যমের মান অথবা দায়িত্বহীনতা প্রকাশ করে না। প্রশাসনের ব্যর্থতার কারণে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে।

 

এই পাতার আরো খবর
up-arrow