Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : রবিবার, ১০ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৯ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৫১
ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবর
কলকাতা প্রতিনিধি
ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবর

স্বনামখ্যাত সাংবাদিক এম জে আকবর (মুবাশ্বির জাভেদ আকবর) ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিযুক্ত হলেন ৫ জুলাই। আকবরের জন্ম ১৯৫১ সালের ১১ জানুয়ারি। তার পিতামহ ছিলেন হিন্দু। নাম প্রয়াগ। পশ্চিমবঙ্গের হুগলি জেলার চন্দননগরের তেলেনিপাড়ার বাসিন্দা প্রয়াগ এক মুসলিম নারীর প্রেমে পড়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে হয়েছিলেন রহমত উল্লাহ। বিয়ে করেন ওই মুসলিম নারীকে। এম জে আকবর লেখাপড়া শেষ করে ১৯৭১ সালে ‘দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া’য় নবিস হিসেবে যোগ দেন। কয়েক মাসের মধ্যেই সাব-এডিটর পদে যোগ দেন সবচেয়ে বিক্রিত ম্যাগাজিন ‘দ্য ইলাস্ট্রেটেড উইকলি অব ইন্ডিয়া’-তে। ওখানে ফিচারে নজর কাড়েন তিনি। ১৯৭৬ সালে তিনি কলকাতায় এসে আনন্দবাজার গ্রুপের ‘দ্য সানডে’-তে সাব-এডিটর পদে যোগ দেন। এরপর একাধিক সময়ে দ্য টেলিগ্রাফ, দ্য ডেকান ক্রনিকাল, ইন্ডিয়া টুডে, এশিয়ান এজ, বাংলাদেশ প্রতিদিনসহ একাধিক সংবাদমাধ্যমে যুক্ত ছিলেন। সাংবাদিক থাকতেই রাজনীতিতে যোগ দেন আকবর। প্রথমেই তার যোগদান কংগ্রেসে। ১৯৮৯ সালে বিহারের কিষাণগঞ্জের এমপি নির্বাচিত হন। ১৯৯১ সালে ফের ওই কেন্দ্র থেকে কংগ্রেসের টিকিটে লড়াই করে হেরে যান। কিন্তু রাজীব গান্ধীর অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ হওয়ার সুবাদে তার সরকারি মুখপাত্র নিযুক্ত হন এম জে আকবর। ১৯৯১ সালেই কংগ্রেস সরকারের মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা হিসেবে যোগ দেন তিনি। ১৯৯২ সালের ডিসেম্বর ওই পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে ফের সাংবাদিকতার জগতে ফিরে এসে পুরোদমে লেখালেখি শুরু করেন। একাধিক বইও লিখেছেন তিনি। জওহরলাল নেহেরুর জীবনী নিয়েও বই লিখেছিলেন আকবর। ২০০২ সালে গুজরাটের দাঙ্গার পর নরেন্দ্র মোদির তীব্র সমালোচক হয়ে ওঠেন আকবর। পরবর্তী সময়ে তিনিই মোদির কাছাকাছি আসেন, তার কাজের প্রশংসায় ভরিয়ে দেন। ২০১৪ সালের মার্চ মাসে বিজেপিতে নাম লেখান তিনি। বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পরই তাকে দলীয় মুখপাত্র নিয়োগ করা হয়। বিজেপিতে যোগ দিয়েই আকবর জানিয়েছিলেন, নীতির জন্যই তিনি রাজনীতিতে ফিরে এসেছেন। দেশের জন্য নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্ব এখন অপরিহার্য বলে মন্তব্য করেন তিনি। সুশিক্ষিত ও অত্যন্ত সুবক্তা এম জে আকবরকে সম্প্রতি মধ্যপ্রদেশ থেকে রাজ্যসভায় জিতিয়ে আনে বিজেপি। সেখান থেকে একেবারে মন্ত্রিসভায়। বলা হয়, ভারতীয় রাজনীতিতে এ রকম উত্থান বিরল।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow