Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১২ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১২ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০
রিজার্ভ চুরির পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন প্রকাশ শিগগিরই : অর্থমন্ত্রী
নিজস্ব প্রতিবেদক
রিজার্ভ চুরির পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন প্রকাশ শিগগিরই : অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ওপর পূর্ণাঙ্গ তদন্ত প্রতিবেদন অল্প কয়েক দিনের মধ্যেই জনসম্মুখে প্রকাশ করা হবে। কমিটি যে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছে সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘ইন এ ফিউ ডেইজ টাইম, আই শ্যাল রিলিজ দ্য রিপোর্ট’। গতকাল সচিবালয়ে নিজ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে ঈদ-পরবর্তী শুভেচ্ছা বিনিময়কালে তিনি আরও বলেন, আমাদের পারিবারিক বন্ধন দুর্বল হয়ে পড়ায় সন্তানরা পরিবার ও সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে। এ জন্য পারিবারিক বন্ধনকে আরও শক্তিশালী করতে হবে। গুলশান হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দেশের বিনিয়োগ পরিস্থিতি ও সার্বিক অর্থনীতিতে সামান্যতম কোনো নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে না। তবে এ ধরনের ঘটনা একটা ধাক্কা দিয়ে যায়। সে ধাক্কা অর্থনীতিতেও পড়ে। অর্থমন্ত্রী বলেন, গুলশান হত্যাকাণ্ডে বিদেশি বিনিয়োগে সামান্যতম নেতিবাচক প্রভাবও পড়বে না। তার মতে, গুলশান হত্যাকাণ্ড ‘নৃশংস, ভয়াবহ ও দুঃখজনক’ ঘটনা। এটা লজ্জাজনকও বটে।

আমাদের সমাজ এদের তৈরি করেছে। তিনি বলেন, এ ঘটনায় আমার মনে হয় সন্তানদের সঙ্গে পিতা-মাতা ও অভিভাবকদের সম্পর্ক যথেষ্ট দুর্বল হয়ে পড়েছে। এটাকে শক্তিশালী করতে হবে। অর্থমন্ত্রী বলেন, জঙ্গিবাদের জন্য সাধারণভাবে বিভিন্ন সময়ে দেশের কওমি মাদ্রাসাগুলোকে দোষারোপ করা হয়। কিন্তু এ ঘটনা যারা ঘটিয়েছে তারা আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত। তবে কওমি মাদ্রাসাগুলোর শিক্ষা ব্যবস্থা মান্ধাতা আমলের, এর সংস্কার হওয়া উচিত, এদের আধুনিক জীবনের সঙ্গে যুক্ত করা উচিত। একজন মাদ্রাসার ছাত্র শুধু মাদ্রাসায় থাকবে, ইমাম হবে, আরেকটি মাদ্রাসা গড়বে। সেটা কোনো জীবন হতে পারে না। গুলশান হত্যাকাণ্ড তৈরি পোশাক শিল্পের ক্রেতাদের ওপর কোনো নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে কিনা— এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, না, ফেলবে না। তবে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গণমাধ্যমে এ ঘটনা যেভাবে প্রচার করা হয়েছে, সেগুলো ‘সব রাবিশ। এ ঘটনায় বিশ্ব নেতারা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সেটা খুবই স্বাভাবিক। তবে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সরকারের অবস্থান জিরো টলারেন্স। এ বিষয়ে সরকার অনেক কাজ করছে। ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ট্র্যাজেডি একটা হয়েছে। এ ধরনের ঘটনা যে কোনো দেশেই ঘটতে পারে। কিন্তু এই একটি ঘটনাই তো বাংলাদেশের প্রকৃত অবস্থা নয়। এ সময় তার সঙ্গে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow