Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৪ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৩ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৩৬
জামায়াত-সাম্প্রদায়িক শক্তি বাদে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ঐক্য চাই
নিজস্ব প্রতিবেদক
জামায়াত-সাম্প্রদায়িক শক্তি বাদে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ঐক্য চাই
মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম

যুদ্ধাপরাধীদের দল জামায়াত ও সব সাম্প্রদায়িক শক্তিকে বাদ দিয়ে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষের বামপন্থি-মধ্যপন্থি সব গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলের ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সরকারের উদ্যোগ চেয়েছেন কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম। জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করে তিনি বলেন, দেশের ওপর একাধারে দুই দিক থেকে সাম্প্রদায়িক এবং সাম্রাজ্যবাদী হামলা হচ্ছে। বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক ভূ-রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের খেলায় আটকে ফেলার চক্রান্ত চলছে। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধে আমরা পাকিস্তানকে ছিন্ন করেছি, নতুন করে আমেরিকা, ভারত বা অন্য কারও গোলামি করার জন্য নয়। মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম রাজধানীর পুরানা পল্টনে মুক্তি ভবনে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি—সিপিবি ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল—বাসদের যৌথ সংবাদ সম্মেলনে বক্তৃতা করছিলেন। এতে সূচনা বক্তব্য দেন বাসদ সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান। লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সিপিবি সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবু জাফর আহমেদ। আরও উপস্থিত ছিলেন সিপিবির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রুহিন হোসেন প্রিন্স, কাফী রতন, বাসদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রাজেকুজ্জামান রতন, বজলুর রশীদ ফিরোজ প্রমুখ। সংবাদ সম্মেলনে ১৫ জুলাই থেকে ১৪ আগস্ট ‘প্রতিরোধ মাস’ পালনের কর্মসূচি ঘোষণা করে বলা হয়, এ এক মাস সিপিবি-বাসদ কর্মীরা ঘরে ঘরে প্রতিরোধের দুর্গ গড়ে তোলার আহ্বান ছড়িয়ে দেবেন। গ্রামে-গঞ্জে, হাটে-বাজারে, পাড়া-মহল্লায়-সর্বত্র প্রতিরোধ সমাবেশ এবং প্রতিরোধ ব্রিগেড গঠন করার কাজ পরিচালনা করা হবে। সিপিবি সভাপতি আগামী এক মাসের মধ্যে ডাকসু নির্বাচনের দাবি করে বলেন, প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনগুলোর সুস্থধারার ছাত্র রাজনীতির কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জঙ্গিবাদের সৃষ্টি হয়নি। কিন্তু দেশের সব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ রয়েছে। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে সুস্থধারার ছাত্র রাজনীতি চালু করার অবাধ সুযোগ দিতে হবে। তিনি বিএনপিকে সততার প্রমাণ দিতে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে জামায়াতকে ছাড়ার পরামর্শ দিয়ে বলেন, বিএনপি জামায়াতের সঙ্গে জোট করে বাংলা ভাই সৃষ্টি করেছে। আওয়ামী লীগ মুখে বললেও জঙ্গি দমনে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়নি। আওয়ামী লীগের ভিতরেও জামায়াত ঢুকে পড়েছে। দেশের ১৬ কোটি মানুষ ঐক্যবদ্ধ হলেই জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস প্রতিরোধ করা যাবে। বাসদ সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান বলেন, গুলশান ও শোলাকিয়া নিয়ে দোষারোপের রাজনীতি শুরু হয়েছে। ফলে প্রকৃত ঘটনা অতীতের মতো আড়ালে চলে যাচ্ছে। তার মতে, ইরাকে হামলার দায়ে বুশ-ব্লেয়ারকে যুদ্ধাপরাধী হিসেবে বিচার করতে পারলে বিশ্বসন্ত্রাস কিছুটা কমবে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে রাজনীতি বন্ধ করে সন্ত্রাস ঠেকানো যায়নি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow