Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ, ২০১৭

প্রকাশ : সোমবার, ১৮ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৭ জুলাই, ২০১৬ ২৩:০৩
জাতীয় ঐকমত্যের সুযোগ তৈরি হচ্ছে
জিন্নাতুন নূর
জাতীয় ঐকমত্যের সুযোগ তৈরি হচ্ছে
হুমায়ুন কবির

সারা বিশ্বেই আমরা এক ধরনের অস্থিরতা লক্ষ্য করছি। এর সঙ্গে বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডও নজরে আসছে। বাংলাদেশও এই অস্থিরতার বাইরে নয়। আর আমাদের জন্য এটি খানিকটা চিন্তিত হওয়ার মতো বিষয়। তবে এর সঙ্গে আরও একটি জিনিস মনে রাখতে হবে, সন্ত্রাসবাদীরা যেমন তাদের কর্মকাণ্ড চালাতে তত্পর তেমনিভাবে সাধারণ মানুষ, যারা রাষ্ট্রকাঠামো ও সমাজ কাঠামোর সঙ্গে জড়িত তারাও কিন্তু এর প্রতিরোধ ও প্রতিকারে সচেষ্ট। গুলশান ঘটনার পর আমরা দেখেছি, জাতীয় পর্যায়ে সাধারণ মানুষ বিষয়টির নিন্দা করেছে, তারা সবাই একসঙ্গে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে কণ্ঠ তুলেছে। একইভাবে বিভিন্ন  রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ যারা আছেন তারাও একই সুরে এর বিরুদ্ধে মানুষকে দাঁড়ানোর জন্য আহ্বান জানাচ্ছেন। সব মিলিয়ে এ বিষয়টির মাধ্যমে অনেকদিন পর বাংলাদেশে জাতীয় ঐকমত্যের সুযোগ তৈরি হচ্ছে। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত হুমায়ুন কবির এসব কথা বলেন। হুমায়ুন কবির বলেন,  একই সঙ্গে আমরা লক্ষ্য করছি, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে আমাদের যেসব সহযোগী বন্ধু রাষ্ট্র আছে, তারা এ ঘটনার পর আমাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে। কাজেই আমি মনে করি, আমরা সম্প্রতি যে দুর্ঘটনা বা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের শিকার হয়েছি, সামাজিকভাবে সব মানুষই এর বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছে। এমনকি রাজনৈতিক দলগুলোও এর বিরুদ্ধে তাদের কণ্ঠে আওয়াজ তুলেছে। আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও আমাদের বন্ধুরা পাশে এসে দাঁড়িয়েছে। ফলে এ ঘটনাটি আমাদের মধ্যে এক ধরনের সাহস জোগাচ্ছে এবং একটি সুপরিকল্পিত পদক্ষেপের মাধ্যমে ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের ঘটনা না ঘটে তার জন্য কাজ করতে আমাদের উদ্বুদ্ধ করছে। এটি ইতিবাচক বিষয় যে, আমাদের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য বন্ধু রাষ্ট্রগুলো আমাদের দিকে হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে। এ কারণে এ ঘটনায় আমি ইতিবাচক দিক দেখতে পাচ্ছি। সাবেক এই কূটনৈতিক বলেন, আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশের যে পরিচিতি ছিল সেদিক বিবেচনা করলে গুলশানের ঘটনাটি বিশ্বের কাছে প্রত্যাশিত ছিল না। এ ছাড়া বিশ্বদরবারে বাংলাদেশ বরাবরই শান্তিপূর্ণ ও অতিথিপরায়ণ জাতি হিসেবে পরিচিত। কিন্তু এ ঘটনাটির পর খানিকটা হলেও বিশ্বের কাছে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। কিন্তু গুলশানে যা ঘটেছে তা বাংলাদেশের সামগ্রিক চেহারা নয়। আমাদের বন্ধুরা বা বাইরের পৃথিবীতে যারা বাংলাদেশকে নিয়ে আগ্রহী তারা জানেন, বাংলাদেশের মানুষ ঐতিহাসিকভাবে বন্ধুবৎসল। আমরা সবার সঙ্গে মিলেমিশে থাকতে চাই। আমি মনে করি, সম্প্রতি যে হামলা সংঘটিত হয়েছে তা বাংলাদেশের জন্য একটি দুর্ঘটনা এবং এটি পুরো বাংলাদেশকে প্রতিফলিতও করে না বা এর মাধ্যমে পুরো দেশের প্রতিফলনও ঘটে না। হুমায়ুন কবির বলেন, আমরা সবাই শান্তিপূর্ণ, স্থিতিশীল এবং নিরাপদ পরিবেশ চাই। আর বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ ইস্যুতে শঙ্কা না থাকাই বাঞ্ছনীয়। কিন্তু গুলশান হামলার পর হয়তো মানুষের মধ্যে এক ধরনের ভয় বা শঙ্কা তৈরি হয়েছে। ধারণা করছি, এ বিষয়ে সরকার তার যথেষ্ট উদ্যোগ গ্রহণের ব্যাপারে সচেষ্ট থাকবে এবং মানুষের শঙ্কা যাতে তৈরি না হয়, সে জন্য সরকার ও সামাজিক সংগঠনগুলো বিভিন্ন উদ্যোগ নেবে। সর্বোপরি সরকার ও নাগরিক সমাজ সবাইকে নিয়েই এ অবস্থা অতিক্রম করতে হবে। আমাদের বুঝতে হবে, যারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করেন তারা মানুষকে ভয় দেখানোর জন্যই এ ধরনের কর্মকাণ্ড করেন। কাজেই আমরা যদি ভয় পেয়ে যাই তবে হামলাকারীদেরই সুবিধা হবে। এ জন্য আমাদের ভয়কে অতিক্রম করতে হবে এবং বাংলাদেশের যে অগ্রগতির ধারা ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ তা বজায় রাখতে চেষ্টা করতে হবে। সেখানে ব্যক্তিগতভাবে যে পর্যায়েই আমরা থাকি না কেন সে জায়গা থেকেই সম্মিলিতভাবে জঙ্গিবাদ ইস্যুতে প্রতিরোধ গড়তে হবে। এ ছাড়া সরকার ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে আমাদের যে বন্ধুরা আছেন তাদের কাছ থেকেও জঙ্গি ইস্যু দমনে আমরা সহযোগিতা নিতে পারি।

তবে দেশে হঠাৎ করেই যে জঙ্গি হামলা হচ্ছে এমন মনে করেন না হুমায়ুন কবির। তিনি বলেন, এটি ঠিক যে গুলশানের ঘটনাটি আমাদের ঝাঁকুনি দিয়েছে। কিন্তু গত এক-দেড় বছর ধরেই ঢাকা ও তার বাইরের বিভিন্ন এলাকায় আমরা ছোটখাটো ঘটনা ঘটতে দেখছি। তবে গুলশানের ঘটনা আমাদের সচেতন করেছে এবং এর ভয়াবহতা ও এ বিষয়ে আমাদের সজাগ করে তুলেছে। তিনি বলেন, যারা সন্ত্রাসবাদী কর্মকাণ্ড করতে চান তারা এক ধরনের আদর্শকে ধরেই এগিয়ে যেতে চায়। আর আমরা দেখতে পাচ্ছি এখন পুরো বিশ্বে বৈষম্যকে কেউ কেউ কাজে লাগাতে চাচ্ছেন, কেউ নিজেদের সামাজিক প্রক্রিয়ায় যথেষ্ট অংশগ্রহণের সুযোগ না থাকার কারণে বিক্ষুব্ধ হচ্ছেন। আন্তর্জাতিকভাবে এসব বিক্ষুব্ধ তরুণকে কাজে লাগানোর জন্য বিভিন্ন বিভ্রান্তি প্রচার করা হচ্ছে। অর্থাৎ সবকিছু মিলে একটি পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে যেখানে এক ধরনের অস্থিরতা, কারও কারও হতাশা এবং কারও প্রাপ্তির অপূর্ণতা এ বিষয়গুলোকে কাজে লাগিয়ে এক ধরনের অস্থিরতা তৈরি করার অপচেষ্টা চলছে। আর তারই অংশ হিসেবে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডগুলো ঘটছে।   হুমায়ুন কবিরের মতে, এ মুহূর্তে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীর কয়েকটি বিষয়ে সচেতন হওয়া প্রয়োজন। তাদের আগাম তথ্য পাওয়ার জন্য চেষ্টা করতে হবে, যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। দ্বিতীয়ত, এ অবস্থার প্রেক্ষাপটে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধি করা দরকার। তৃতীয়ত, এই সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে যারা জড়িত তারা যেন অর্থের আদান-প্রদান করতে না পারে তা নিশ্চিত করতে হবে। সবশেষে সন্ত্রাসীদের ঠেকাতে প্রযুক্তিগত সক্ষমতা অর্জনে প্রয়োজনে আমাদের আন্তর্জাতিক বন্ধুদের সঙ্গে আলোচনা করে যতটা সহযোগিতা প্রয়োজন তা নেওয়ার চেষ্টা করতে হবে। আমাদের দেশে যে তরুণ সমাজ আছে, যারা এ ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত হচ্ছে তারা কেন এ ধরনের নেতিবাচক কাজে যুক্ত হচ্ছে সে বিষয়ে গবেষণা করা প্রয়োজন। একই সঙ্গে তরুণ সমাজের বিক্ষুব্ধ ভাব কীভাবে কমিয়ে আনা যায় এবং কীভাবে অংশগ্রহণমূলক ব্যবস্থায় তরুণদের বিপজ্জনক পথ থেকে সরিয়ে এনে স্বাভাবিক পথে ধরে রাখা যায়, সে বিষয়েও চিন্তা করতে হবে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow