Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ২২ জানুয়ারি, ২০১৭

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২১ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২০ জুলাই, ২০১৬ ২৩:০৮
ইনু-শ্রিংলা বৈঠক
সন্ত্রাস দমনে একসঙ্গে কাজ করবে দুই দেশ
নিজস্ব প্রতিবেদক

সন্ত্রাসবাদ দমনে বাংলাদেশ-ভারত ঘনিষ্ঠ মিত্র হিসেবে কাজ করবে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। গতকাল সচিবালয়ে ঢাকায় ভারতের রাষ্ট্রদূত হর্ষবর্ধন শ্রিংলার সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান। তথ্যমন্ত্রী বলেন, সন্ত্রাসবাদ শুধু বাংলাদেশেরই সমস্যা নয়, সন্ত্রাসবাদ উপমহাদেশের সমস্যা। তাই সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলা করার জন্য দিল্লি এবং ঢাকার ঘনিষ্ঠ সহযোগিতা      দরকার। গুলশানের জঙ্গি হামলা নিয়ে ভারত তাদের কোনো পর্যবেক্ষণ জানিয়েছে কি না সাংবাদিকদের প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, কোনো পর্যবেক্ষণের ব্যাপার না। সন্ত্রাসবাদ বিশ্বের সমস্যা, সবার সমস্যা। এই সমস্যা বাংলাদেশ-ভারত যৌথভাবে মোকাবিলা করবে। সন্ত্রাস দমনে কী ধরনের সহযোগিতা চাওয়া হবে বা হচ্ছে— জানতে চাইলে ইনু বলেন, বন্ধুরাষ্ট্র ভারতের সঙ্গে বহু রকমের চুক্তি আছে। তথ্যের আদান-প্রদানটাই সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তথ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে যাওয়া রাষ্ট্রদূত শ্রিংলা সাংবাদিকদের বলেন, আমি মন্ত্রীকে বলেছি, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ভারত বাংলাদেশকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে। সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের উদ্যোগ ও পদক্ষেপকে পূর্ণ সমর্থন করে ভারত এ লড়াইয়ে পাশে আছে। তিনি বলেন, ভারত মনে করে সন্ত্রাসবাদ বাংলাদেশের স্থিতিশীলতা, উন্নয়ন, সমৃদ্ধি ও গণতন্ত্রের জন্য বাধা যা মোটেও ভারতের কাম্য নয়। বৈঠকে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের মতো বৈশ্বিক সংকটকে গুরুত্ব দিয়ে তা মোকাবিলায় দুদেশের সহযোগিতা আরও গভীর করতে একমত হন তারা। এর আগে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী মু. ইমাজউদ্দিন প্রামানিকের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন ভারতের রাষ্ট্রদূত হর্ষবর্ধন শ্রিংলা। এ সময় বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম, সচিব এম এ কাদের সরকার, বিজেএমসি চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) হুমায়ূন খালেদ, বিটিএসসি চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. বায়জিদ সারোয়ার, বস্ত্র পরিদফতরের পরিচালক ইসমাইল হোসেনসহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সাক্ষাৎকালে দুদেশের বস্ত্র ও পাটশিল্পের দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ও এর অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা করা হয় বলে জানা গেছে। এ সময় ভারতের হাইকমিশনার বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের বন্ধুত্বের সম্পর্ক ঐতিহাসিক। বস্ত্র ও পাট খাতে বাংলাদেশের সঙ্গে ব্যবসায় বাণিজ্য সম্প্রসারণ ঘটাতে চায় ভারত। এ ছাড়াও ভারতের হাইকমিশনার স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেনের সঙ্গে তার দফতরে সাক্ষাৎ করেন। স্থানীয় সরকার শক্তিশালীকরণ, স্যানিটেশন, পানীয়জল সরবরাহ, গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা ও পল্লী উন্নয়নে নেওয়া বিভিন্ন বিষয়ে পারস্পরিক সহযোগিতা জোরদার করতে একমত পোষণ করেন তারা।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow