Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ, ২০১৭

প্রকাশ : শুক্রবার, ২২ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২১ জুলাই, ২০১৬ ২৩:২১
হলি আর্টিজানের খাবার বিক্রি শুরু অন্য রেস্তোরাঁয়
জিন্নাতুন নূর

পুরোপুরি নয় তবে সীমিত আকারে আবারও গুলশানের স্প্যানিশ রেস্তোরাঁ হলি আর্টিজান বেকারির খাবার বিক্রি কার্যক্রম শুরু হয়েছে। তবে পুরনো ঠিকানায় নয়, গুলশানের একটি জাপানিজ সুসি রেস্টুরেন্ট ‘ইজুমি’-তে এখন খাবার বিক্রি করছেন হলি আর্টিজান বেকারি কর্তৃপক্ষ। তারা এখন শুধু মোবাইল ফোনে গ্রাহকদের কাছ থেকে পাওয়া অর্ডারের খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন। জানা যায়, গুলশান হামলায় বেকারির মূল ওভেন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় বর্তমানে হাতেগোনা কয়েকটি খাবারের আইটেম তৈরি করা হচ্ছে। তবে রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষ আশা প্রকাশ করে জানিয়েছেন, শিগগিরই তারা পুরো আঙ্গিকে তাদের কার্যক্রম শুরু করবেন।

বাংলাদেশ প্রতিদিনকে হলি আর্টিজান বেকারির একজন কর্মকর্তা রকি জানান, আমরা গত পাঁচ-ছয় দিন ধরে ক্রেতাদের চাহিদার কথা বিবেচনায় রেখে শুধু ইজুমি রেস্তোরাঁ থেকে ক্রেতাদের বাসায় খাবার পৌঁছে দিচ্ছি। তিনি আরও জানান, এই ক্রেতাদের বেশিরভাগই স্থানীয়। তবে এখন পর্যন্ত খাবার অর্ডারের জন্য বিদেশি কোনো ক্রেতার কাছ থেকে তারা ফোন পাননি। তিনি আরও জানান, বর্তমানে হলি আর্টিজান বেকারির স্থানীয় শেফরা মাত্র পাঁচ থেকে ছয়টি খাবার আইটেম তৈরি করছেন। এর আগে গত ১২ জুলাই থেকে আর্টিজান কর্তৃপক্ষ স্বল্প পরিসরে তাদের কার্যক্রম শুরু করেন। আগ্রহী ক্রেতারা এখন শুধু ফোনে এই বেকারির খাবার অর্ডার করলে বেকারির পক্ষ থেকে তাদের কাছে খাবার পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তবে নিরাপত্তার কথা বিবেচনায় এনে ইজুমি রেস্টুরেন্টের ভিতরে গিয়ে এই বেকারির খাবার ক্রয় বা খাওয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়নি। এমনকি হলি আর্টিজানের খাবার কিনতে আসা গ্রাহকদের গাড়ি ও নিরাপত্তার কথা ভেবে ভিতরে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না। জানা যায়, এই রেস্টুরেন্টের সবচেয়ে জনপ্রিয় খাবার আইটেমগুলোর একটি হচ্ছে ‘গ্রিক ইয়োগার্ট’। এরই মধ্যে বাংলাদেশে অবস্থিত বিভিন্ন বিদেশি ও স্থানীয়রা ফেসবুকের হলি আর্টিজানের পেজে এই খাবারটি পাওয়া যাচ্ছে কিনা তা জানতে চাচ্ছেন।

ইজুমি’র একজন পরিচালক আলী আর্সালন জানান, আর্টিজান বেকারির মূল ওভেনগুলো এখনো গুলশানের ৭৯ নম্বর রোডে অবস্থিত বেকারিতে, যেখানে সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়েছিল। আর সেই ওভেনগুলো সন্ত্রাসী হামলা ও সেনা অভিযানের পর দারুণ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় বেকারির সব খাবার আইটেম এখন তৈরি করা সম্ভব হচ্ছে না। তবে আর্টিজানের সব খাবার আইটেমগুলো পাওয়ার জন্য ক্রেতাদের আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে। বিশেষ করে হলি আর্টিজানের ইটালিয়ান শেফ ঘটনাটির পর দেশ ত্যাগ করায় বহুল বিক্রীত আইটেম ‘গ্রিক ইয়োগার্ট’ পেতে আরও কিছুটা সময় লাগবে। তিনি আরও জানান, বর্তমানে আর্টিজানের সব খাবার ইজুমি রেস্টুরেন্টে তৈরি ও বিক্রি হচ্ছে। ক্রেতারা মোবাইল ফোনে খাবার অর্ডার করলে তা তাদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে। বেকারি কর্তৃপক্ষ জানান, ইজুমিতে হলি আর্টিজান বেকারির তৈরিকৃত বিভিন্ন খাদ্যের মধ্যে বর্তমানে পাওয়া যাচ্ছে বেগেল, স্টিকি বান, ডার্ক চকোলেট ব্রাউনি, জ্যাম ডোনাটস, সরডগ রোল, ম্যারিনেটেড টুনা স্যান্ডুইচ ইত্যাদি। গুলশান ২ নম্বর এলাকায় অবস্থিত জাপানিজ রেস্টুরেন্টে ইজুমি থেকে প্রতিদিন ক্রেতারা দুপুর ১২টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত আর্টিজানের দুপুরের খাবার ক্রয় করতে পারবেন। আর ডিনার বিক্রির সময় সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১২টা। তবে ক্রেতারা তাদের পছন্দের খাবার আইটেমটি পাওয়া যাবে কিনা তা জানতে বেলা ১১টার দিকে ০১৯৩৩৪৪৬৬৭৭ বা ০১৭৬২৬৩৫০৮৩ এই দুটি মোবাইল নম্বরে ফোন দিতে পারেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow