Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ২২ জানুয়ারি, ২০১৭

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৬ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৫ জুলাই, ২০১৬ ২৩:২৩
র‌্যাবের নতুন তালিকায় নিখোঁজ ৬৮
নিজস্ব প্রতিবেদক

দীর্ঘ যাচাই-বাছাইয়ের পর অবশেষে ৬৮ জন নিখোঁজ ব্যক্তির তালিকা প্রকাশ করেছে এলিট ফোর্স র‌্যাব। ১৫ থেকে ৪০ বছর বয়সের ব্যক্তিদের এই তালিকা গতকাল বিকালে এ প্রতিবেদকের হাতে এসেছে।

এর আগে ১৯ জুলাই প্রকাশিত তালিকা নিয়ে বিভিন্ন আলোচনা-সমালোচনার পর র‌্যাব এ  তালিকা প্রকাশ করল। র‌্যাব বলছে, আগের তালিকা পুলিশের কাছে বিভিন্ন সময় সাধারণ ডায়েরি ধরে করা হয়েছিল। তবে এবারের তালিকা বিভিন্ন উপায়ে যাচাই-বাছাইয়ের পর তৈরি করা হয়েছে। এরপরও যদি কোনো সংশোধনী থাকে তাহলে র‌্যাব কার্যালয়ে যোগাযোগের অনুরোধ জানানো হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সর্বশেষ তালিকার নিখোঁজ ব্যক্তিদের অনেকেই জঙ্গি তত্পরতায় জড়িয়েছেন। তালিকায় থাকা ব্যক্তিদের একটি বড় অংশ এরই মধ্যে দেশের বাইরে পাড়ি জমিয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে কয়েকজন দেশেই অবস্থান করছেন— এ বিষয়টি এরই মধ্যে নিশ্চিত হওয়া গেছে। সূত্র মতে, সবক্ষেত্রে নিখোঁজদের পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ না করায় সঠিক তথ্য পাওয়া কঠিন হচ্ছে। র‌্যাবের কমান্ডার মুফতি মাহ্মুদ খান বলেন, অনেক যাচাই-বাছাইয়ের পর এবার সংশোধিত তালিকা দেওয়া হয়েছে। তবে নতুন এ নিখোঁজ ৬৮ জনের মধ্যে কতজনের জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা রয়েছে— তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তালিকার সবাইকে জঙ্গি বলা ঠিক হবে না। তালিকায় থাকা ব্যক্তিরা হলেন মো. মহিবুর রহমান (৩০), মো. শেহজাদ রউফ ওরফে অর্ক (২৪), ডা. আরাফাত হোসেন তুষার, তাহমিদ রহমান সাফি (৩০), খান মো. মাহমুদুল আহসান রাতুল (২৩), ঝুন্নুন শিকদার (৩০), কাজী মো. মইনউদ্দিন শরীফ (৩০), মো. তাওসিফ হোসেন (২৩), জুবায়েদুর রহিম, ইব্রাহীম হাসান খান (২৫), জুনায়েদ হাসান খান, এএসএম ফারহান হোসেন (২৯), মনোয়ার হোসেন (সবুজ), আশরাফ মোহাম্মদ ইসলাম, মো. বাদশা আলী (২৫), মো. সুমন (২৮), মো. আশিক ওরফে সাব্বির রহমান (১৬), নজিবুল্লাহ আনসারী (২৭), মো. বাশারুজ্জামান ওরফে আবুল বাশার, মো. শরিফুল ইসলাম, রাহাত বিন আবদুল্লাহ (২৬), বেলাল মোল্লা সোহেল (২২), মো. মাজেদুল হক (৩৫), আমান উল্লাহ আমান (২৪), মো. কামরুজ্জামান (২৩), মো. সাহারাত আলী (২৬), হাসানুর রহমান ওরফে আসানুর, ইকবাল হোসেন (২৯), মো. তহিদুল ইসলাম (২০), হাসান আলী (৩৭), ফারুক হোসেন (৩৭), সুমন হোসেন, রাশেদ হোসেন (২৫), শাহজাহান (৩৩), মো. জুবায়ের হোসেন ফারুক (২১), মো. তাজুল ইসলাম চৌধুরী (৩৮), তামিম আহমেদ  চৌধুরী (৩১), মো. জাকির হোসেন (২৮), আশরাফুজ্জামান (৩২), মো. শাহরিয়ার খান ওরফে শাহজাহান (৩৩), সাদমান হোসেন (পাপন) (২৩), মো. আকরাম হোসেন (২৫), জুলহাস শেখ (৩২), মো. হাবিবুল্লাহ (২৬), জহিরুল ইসলাম চৌধুরী (২৬), মো. ইমরান (২২), এটিএম তাজ উদ্দিন (৩৬), মো. হাবিবুর রহমান (১৬), মো. ইসমাইল হোসেন (২২), মো. মিন্টু রহমান ওরফে বৈরাগী মিন্টু (২৭), মো. মারুজুক হায়দার ওরফে জাহিন (১৭), মহিদুল ইসলাম ওরফে মিশুক (১৭), রাকিবুল ইসলাম ওরফে রিয়েল (২৪), মিন্টু মিয়া (ঈদু) (৩৫), রেজাউল করিম (২৬), ইকবাল হোসেন (২০), জাহাঙ্গীর আলম (২৫), মকসুদ আলী (২৫), আবদুল হামিদ (৩০), রিয়াজ উদ্দিন (১৫), জহিরুল ইসলাম (১৬), সাখাওয়াত হোসেন (২৮), মোহাম্মদ সাইফুল্লাহ ওজাকি ওরফে সুজিত দেবনাথ, ডা. রোকনুদ্দীন খন্দকার (৫০), নাঈমা আক্তার, রেজওয়ানা রোকন (২৩), রামিতা রোকন (১৭) ও সাদ কায়েস (৩০)।

তালিকার ১৪ জন ঢাকার, যশোরে ১০ জন, রাজশাহীতে ৪ জন, কুষ্টিয়ায় ৪ জন, নারায়ণগঞ্জে ৩ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৩ জন, সিলেটে ২ জন, রংপুর ২ জন, কুমিল্লায় ২ জন, বরিশালে ২ জন, ময়মনসিংহ ২ জন, লক্ষ্মীপুর ২ জন, বি-বাড়িয়া ২ জন, গোপালগঞ্জ ১ জন, মুন্সীগঞ্জ ১ জন, নোয়াখালী ১ জন, চাঁদপুর ১ জন, নোয়াখালী ১ জন, সিরাজগঞ্জ ১ জন, গাইবান্ধা ১ জন, মানিকগঞ্জ ১ জন, মাগুরা ১ জন, নড়াইল ১ জন, ফেনী ১ জন, ঝিনাইদহ ১ জন, চট্টগ্রাম ১ জন, নেত্রকোনা ১ জন, কিশোরগঞ্জ ১ জন এবং সুনামগঞ্জের রয়েছেন ১ জন। নিখোঁজ তালিকার ২ নম্বরে থাকা শেহজাদ রউফ ওরফে অর্ক যুক্তরাষ্ট্রের পাসপোর্টধারী পাসপোর্ট নম্বর-৪৭৬১৪৫৯৯২)। বাসা বাড়িধারা ১৮ নম্বর ওয়ার্ডে। তার বাবা তৌহিদ রউফ ক্যান্টনমেন্টের তালিকাভুক্ত সরবরাহকারী। গুলশান হামলায় নিহত নিবরাস ইসলামের বন্ধু। এক সময় নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতি কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিলেন অর্ক। ড্রামার হিসেবেও খ্যাতি ছিল তার। গত তিন বছর আগে তার মা মারা যাওয়ার পর থেকেই অনেকটা চুপচাপ হয়ে যান অর্ক।

তালিকার ৮ নম্বরে থাকা তাওসীফ হোসেনের বাবা ডা: আজমল হোসেন। রাজধানীর বিভিন্ন খ্যাতনামা হাসপাতালে চাকুরী করলেও বর্তমানে ছেলের শোকে সারাক্ষণ বাসাতেই থাকেন। তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, আমার এক ছেলে দুই মেয়ে। মালয়েশিয়াতে লেখাপড়া করতো তাওসীফ। দেশে তার খুব একটা বন্ধু-বান্ধব ছিলো না। তাওসীফের ব্যাপারে র‌্যাব-পুলিশসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে আমরা বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করেছি। নিবরাস নিখোঁজের দিন থেকেই নিখোঁজ রয়েছেন তাওসীফ।

ঠাকুরগাঁওয়ের দুই নিখোঁজের একজন কারাগারে : ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি জানিয়েছেন, নিখোঁজদের মধ্যে ঠাকুরগাঁও শহরের মুন্সিপাড়া এলাকার মোতালেবের ছেলে নুরুজ্জামান আরিফ ও খানকাহ শরিফ এলাকার কাইয়ূম হোসেনের ছেলে কামরুজ্জামান টুটুলের নাম রয়েছে। এদের মধ্যে নুরুজ্জামান আরিফ বছর খানের আগে জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকায় র‌্যাবের অভিযানে গ্রেফতার হন। তিনি বর্তমানে কাশিমপুর কারাগারে রয়েছেন বলে তার পরিবার জানিয়েছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow