Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : রবিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৩৮
শ্বশুরবাড়িতে নীরবে দিন কাটছে বাবুলের
নিজস্ব প্রতিবেদক

অনেকটা নীরবেই সময় পার করছেন সাবেক এসপি বাবুল আক্তার। স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যার পর থেকে তিনি রাজধানীর খিলগাঁওয়ের শ্বশুরবাড়িতেই থাকছেন। প্রয়োজন ছাড়া কারও সঙ্গে দেখা বা কথা বলেন  না। সারা দিন দুই সন্তানকে নিয়েই ব্যস্ত থাকছেন। গতকাল শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে নিহত মিতুর পরিবার সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। বাবুলকে পুলিশের চাকরি থেকে ৬ সেপ্টেম্বর অব্যাহতি দেওয়া হয়।

মিতুর পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, বাবুল আগেও কথা কমই বলতেন। এখনো কম বলছেন। প্রয়োজন ছাড়া বাসা থেকে বের হচ্ছেন না বা কারও সঙ্গে কথা বলছেন না। সারা দিন দুই সন্তান আক্তার মাহমুদা মাহির (৮) ও তাবাসসুম তাজমিন টাপুরকে (৫) নিয়ে সময় কাটাচ্ছেন। দুই সন্তানকে বুঝতেই দিচ্ছেন না তাদের মা নেই। নেই তাদের বাবার চাকরিও। মাহির ও টাপুরের লেখাপড়া নিয়ে তারা সংশয় প্রকাশ করেন।

পরিবার বলছে, মিতুকে আর ফিরে পাব না এটাই সত্য। সেদিন কী ঘটেছিল তা আল্লাহ ভালো জানেন। কিন্তু মিতু হত্যার বিচার হবেই। যত দিন মিতুর মা-বাবা বেঁচে আছেন ততদিন তাদের চোখের পানি ঝরবেই। মিতু বেঁচে থাকতে বাবুলের চাকরি যেত তবে দুঃখ থাকত না। আমরা এখন শান্তি চাই। শান্তিতে থাকতে চাই।

এবার ঈদে কোরবানি দিয়েছিলেন বাবুলের শ্বশুর মোশাররফ হোসেন। গরু জবাইয়ের সময় রক্ত দেখে ভয়ে কাঁপতে থাকে মাহির। একপর্যায়ে দৌড়ে ঘরে চলে আসে। কান্নাকাটি করতে থাকে। মা ছাড়া কি সন্তানরা ভালো থাকতে পারে! মাহির ও টাপুর ঠিকমতো খাওয়া-দাওয়া করে না। বাবুল ঘর থেকে বের হতে চাইলেই টাপুর দুই পা জড়িয়ে ধরে। এসময় টাপুর বাবাকে বলে, বাবা তুমি বাইরে যেও না।

up-arrow