Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : সোমবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২২:৫৭
আইন না মানলে টাম্পাকো থেকে বড় দুর্ঘটনা ঘটবে
নিজস্ব প্রতিবেদক
আইন না মানলে টাম্পাকো থেকে বড় দুর্ঘটনা ঘটবে
স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন

দেশের প্রচলিত আইন না মানলে টঙ্গী বিসিক শিল্প নগরীর প্লাস্টিক প্যাকেজিং পণ্য তৈরির কারখানা টাম্পাকোর চেয়েও বড় ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটবে বলে মন্তব্য করেছেন বিশিষ্ট স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন। তার মতে, রাজউক যথাযথভাবে দায়িত্ব পালন করলে ভবন সংক্রান্ত ৮০ শতাংশ সমস্যার সমাধান হবে।

একই সঙ্গে যে কোনো ভবন নির্মাণ শেষে সংশ্লিষ্ট সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিনিধিদের নিয়ে রাজউকের পরিদর্শন করা উচিত বলেও মত দেন তিনি। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে টেলিফোনে আলাপকালে বাংলাদেশ স্থপতি ইনস্টিটিউটের সাবেক সভাপতি মোবাশ্বের হোসেন আরও বলেন, রাজউক ও ফায়ার সার্ভিসকে যথাযথ দায়িত্ব পালন করতে হবে। রাজউকের দায়িত্ব হলো, স্থপতি ও প্রকৌশলীসহ সংশ্লিষ্টদের নিয়ে পরিদর্শন শেষে অনাপত্তি সনদ দেবে। এই সনদ পাওয়ার পরই পানি, টেলিফোন, বিদ্যুৎ ও গ্যাসসহ সব ধরনের সংযোগ দেবে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। এটা যথাযথভাবে পালন করা হলে নিমতলী বা টাম্পাকোর মতো দুর্ঘটনা ঘটত না। সারা দুনিয়াতে এই ধরনের সনদ পাওয়ার পরই কারখানা চালু করা হয়। এটা আমাদের ইমারত নির্মাণ বিধিমালা-২০০৬ এ বলা আছে। যা রাজউক কোনো দিনই বাস্তবায়ন করেনি। তিনি বলেন, রাজউক বিধিমালা বাস্তবায়ন করেনি বলে দুর্ঘটনা ঘটছে। প্রতিটি গাড়িরও প্রতিবছর ফিটনেস সনদ নিতে হয়। কিন্তু ৫ থেকে ১০ কোটি টাকা খরচ করে ভবন নির্মাণের পর সনদ নিতে হয় না। এর চেয়ে অবাস্তব ও অগ্রহণযোগ্য কিছু বিশ্বে নেই। মন্ত্রীরা রাস্তার উল্টো দিক দিয়ে যায়, আইন মানে না। যারা ১০ কোটি টাকা দিয়ে বাড়ি বানায় তারাও আইন মানছে না। রাজউক চেয়ারম্যান কত টাকা বেতন পান, অতএব তাকে বুড়ো আঙ্গুল দেখালে অসুবিধা নাই, তাই চলছে। আইন যে বাস্তবায়ন করতে পারে না, পুলিশের সামনে চুরি হলে— চোর না ধরে, তাহলে পুলিশও আইন মানে না। কারণ, পুলিশের দায়িত্ব চোর ধরা। রাজউক যদি এই সহজ কাজগুলো না করে, তাহলে দুর্ঘটনা ঘটবে। আর হায়হুতাশ বাড়বে। প্রতিদিনই তাই হচ্ছে। আর আমরা নিমতলীও ভুলে গেছি। আজও নিমতলীর কেমিক্যাল গুদাম সরেনি। স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন বলেন, প্রচলিত আইন না মানলে টাম্পাকোর চেয়েও বড় বড় ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটবে। এই ঘটনায় আমি মালিককে পুরোপুরি দায়ী করি না। একটা মালিককে যদি আইনের মধ্যে না আনা যায়, তবে মালিকরা তো এই ধরনের ভুল কাজই করবেন। ওই মালিককে দেখে আরেকজন ভুল করবেন, যার আইন সম্পর্কে কোনো ধারণা নেই। যখন আইন প্রয়োগ করা হবে, তখন সবাই আইন সম্পর্কে জানবে। ইমারত নির্মাণ বিধিমালায় পরিষ্কারভাবে বিষয়টি রাজউককে দেখভালের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এটা কখনই রাজউক করে না।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow