Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : সোমবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২২:৫৯
কাশ্মীরে হামলা চালিয়ে ১৭ ভারতীয় সেনা হত্যা
কলকাতা প্রতিনিধি

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের উরি সামরিক ব্রিগেড সদর দফতরে আত্মঘাতী জঙ্গি হামলায় অন্তত ১৭ জন ভারতীয় সেনা নিহত হয়েছেন। গতকাল ভোর ৪টার দিকে এ হামলা চালানো হয়।

এ সময় হামলাকারী ৪ জঙ্গিও নিহত হয়েছেন। এ হামলার জন্য ভারত পাকিস্তানকে দায়ী করেছে।

জানা গেছে, উরিতে সেনাদের ১২ নম্বর ব্রিগেডে এই আত্মঘাতী হামলা চালানো হয়। জঙ্গিরা সংখ্যায় ৪ জন ছিল। জঙ্গিদের দলটি সেনা সদর দফতরে ঢুকে এলোপাতাড়ি গুলি  চালাতে শুরু করে। তখন পাল্টা গুলি চালায় ভারতীয় সেনারাও। এ বিষয়ে ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, চারজন ‘ফিদায়িন’ (আত্মঘাতী) উরির ওই ঘাঁটিতে অনুপ্রবেশ করে হামলা চালায়। ছয় ঘণ্টা ধরে চলা লড়াইয়ে হামলাকারী সবাই নিহত হয়েছে। ২০১৪ সাল থেকে কাশ্মীরের উত্তরাঞ্চলে জঙ্গিদের চালানো হামলাগুলোর মধ্যে এটিই ছিল সবচেয়ে প্রাণঘাতী হামলা। কর্মকর্তারা জানান, ভোর ৪টার দিকে আত্মঘাতী হামলাকারীদের দলটি গোপনে ঘাঁটিতে প্রবেশ করে প্রশাসনিক এলাকায় পৌঁছে যায়। স্থানীয় সূত্রগুলো জানায়, হামলার সময় ওই ঘাঁটি থেকে ধোঁয়া উঠতে দেখা গেছে। কয়েকটি সেনা ব?্যারাকে আগুন ধরে যায়। সেখান থেকে বড় ধরনের বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায়। সেনা সূত্রগুলো জানিয়েছে, পরে ওই ঘাঁটিতে তল্লাশি চালানো হয়েছে। আহতদের হেলিকপ্টার যোগে ১০০ কিলোমিটার দূরে শ্রীনগরের সেনা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনার পর ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র সফর বাতিল করার কথা জানান। গতকাল থেকে তার এই সফর শুরু হওয়ার কথা ছিল।

মোদির হুঁশিয়ারি : ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, জম্মু-কাশ্মীরে উরির সেনা হেডকোয়ার্টারে জঙ্গি হামলায় দোষীদের কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। ওই জঙ্গি হামলাকে কাপুরোষিতচিত আখ্যায়িত করে তিনি এক ট্যুইট বার্তায় বলেন, ‘উরি সেনাক্যাম্পে জঙ্গি হামলার ঘটনাকে তীব্র নিন্দা করি। আমি দেশবাসীকে আশ্বস্ত করে বলতে চাই যে, হামলায় জড়িত দোষী কাউকেই ছাড়া হবে না। ’ পাশাপাশি ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন। তিনি পাকিস্তানকে আন্তর্জাতিক মহলে একঘরে করে রাখার ডাক দিয়েছেন। রাশিয়া ও আমেরিকা সফর বাতিল করে এ দিনই দিল্লিতে জরুরি বৈঠক ডাকেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল, সেনাবাহিনীর অপারেশনস শাখার প্রধান (ডিরেক্টর জেনারেল অফ মিলিটারি অপারেশন বা ডিজিএমও) লেফট্যানেন্ট জেনারেল রনবীর সিং, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র সচিব রাজীব মেহর্ষি, আইবি ও ‘র’? এর শীর্ষ কর্মকর্তারা। বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, ‘সন্ত্রাসবাদ ও সন্ত্রাসবাদীদের প্রতি পাকিস্তানের লাগাতার সমর্থনে আমি নিরাশ। আমাদের কাছে নির্দিষ্ট প্রমাণ আছে যে, উরি হামলাকারীরা অত্যন্ত প্রশিক্ষিত এবং তাদের সঙ্গে প্রচুর অস্ত্রশস্ত্র ও অন্যান্য সরঞ্জাম ছিল। পাকিস্তান একটি সন্ত্রাসবাদী রাষ্ট্র এবং পাকিস্তানকে এভাবেই চিহ্নিত করা ও একঘরে করে রাখা উচিত। ’ এদিকে উরি হামলাকারীরা পাকিস্তানি মদদপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ-এর সদস্য বলে জানিয়েছেন ডিজিএমও লেফট্যানেন্ট জেনারেল রনবীর সিং। এই জঙ্গি হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী, সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধীও।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow