Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:০৯
কল্যাণপুরে অভিযানের ২ মাস
এখনো ভুতুড়ে বাড়ি সেই তাজমঞ্জিল
সাখাওয়াত কাওসার

রাজধানীর কল্যাণপুরে অপারেশন স্টর্ম-২৬ অভিযানে আবিষ্কৃত জঙ্গি আস্তানার দুই মাস আজ পূর্ণ হচ্ছে। দুই মাসেও ভুতুড়ে ভাব কাটেনি জাহাজবাড়ির (তাজমঞ্জিল)। এখনো ওই বাড়িতে ওঠেনি কোনো ভাড়াটিয়া। অন্যদিকে, জঙ্গিরা নিজেদের সংগঠিত করার চেষ্টা করলেও তাদের সুবিধা করতে দিচ্ছে না আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা। এরই মধ্যে আরও তিনটি জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পেয়েছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার  সদস্যরা। নারায়ণগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে গুলশান হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় নৃশংস হামলার অন্যতম মাস্টার মাইন্ড ও কল্যাণপুর ঘটনার এজাহারভুক্ত আসামি তামিম আহমেদ চৌধুরী। তবে জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৯ জঙ্গির লাশ পড়ে আছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে। নিহত জঙ্গি ও তাদের স্বজনদের ডিএনএ প্রোফাইল মিলিয়ে আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে লাশ হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। জানা গেছে, অপারেশন স্টর্ম-২৬ অভিযানের মামলার এজারভুক্ত ৮ জন আসামিকে দুই মাসেও গ্রেফতার করতে পারেনি আইন প্রয়োগকারী সংস্থা। পলাতক থেকে এখনো আতঙ্কের কেন্দ্রবিন্দুতে উগ্রবাদী সংগঠন আনসার আল ইসলামের শীর্ষ নেতা ভয়ঙ্কর জঙ্গি ইকবাল ও রিপনসহ এজাহারভুক্ত একাধিক আসামি। এদের প্রত্যেকের যাতায়াত ছিল ওই বাড়িতে। মামলার তদারক কর্মকর্তা ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটি) উপকমিশনার ডিসি মুহিবুল ইসলাম জানান, তদন্তে নতুন কোনো অগ্রগতি নেই। তবে ওই ঘটনায় এখনো ৭/৮ জনকে খোঁজা হচ্ছে। লাশের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, লাশগুলো গ্রহণের জন্য তাদের পরিবারের পক্ষ থেকে আবেদন করা হয়নি। তবে তদন্ত শেষ হলেই এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হবে। গত ২৬ জুলাই দিবাগত রাত দুঃস্বপ্ন হয়ে আছে কল্যাণপুরবাসীর কাছে। সেই রাতে পুলিশের ব্লক রেইডের এক পর্যায়ে ‘আল্লাহু আকবার’ বলে পুলিশের ওপর হামলা চালায় ১১ জঙ্গি। পরে গোলাগুলির একপর্যায়ে ৯ জঙ্গি নিহত হয়। ঘটনার পর থেকে ‘জাহাজবাড়ি’ নামে খ্যাত সেই ভবনটি পুলিশি পাহারায় রয়েছে। ঘটনার পর রাকিবুল হাসান রিগ্যান (গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেফতার), ইকবাল, রিপন, খালেদ, মামুন, মানিক, জোনায়েদ খান ও বাদলসহ ১০ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করে পুলিশ। আস্তানা থেকে পালিয়ে যায় জঙ্গি ইকবাল। তবে বাসার মালিকের স্ত্রী মমতাজ বেগমকে ৫৪ গ্রেফতার করে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছিল। মামলার এজাহারে থাকা তামিম চৌধুরীসহ আরও অনেকের ওই বাসায় যাতায়াত ছিল বলে ঘটনার পর পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। গ্রেফতার রিগ্যানকে গুলশানে হলি আর্টিজানে হামলার মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে গতকাল ছয় দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। গ্রেফতার রাকিবুল হাসান রিগ্যানকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে পুলিশ জানিয়েছিল, কল্যাণপুরের জঙ্গি আস্তানায় তামিম চৌধুরী, রিপন, খালিদ, মামুন, মানিক, জোনায়েদ খান, বাদল ও আজাদুল ওরফে কবিরাজ নামে ব্যক্তিরা নিয়মিত যাতায়াত করত। তারা তাদের ধর্মীয় ও জিহাদি কথাবার্তা বলে উদ্বুদ্ধ করত। প্রয়োজনীয় টাকা-পয়সা দিয়ে যেত।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow