Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ৭ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৬ অক্টোবর, ২০১৬ ২২:৫৫
তাহমিদের পাসপোর্ট রেখে দিয়েছে পুলিশ
নিজস্ব প্রতিবেদক
তাহমিদের পাসপোর্ট রেখে দিয়েছে পুলিশ

গুলশান হামলার অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিলেও তাহমিদ হাসিব খানের পাসপোর্ট জমা রেখেছে পুলিশ। আপাতত চাইলেই তাহমিদ দেশ ছাড়তে পারছেন না বলে মন্তব্য করেছেন কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্স ন্যাশনাল ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম।

গত ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার পর কমান্ডো অভিযানে উদ্ধার হলেও পরে সন্দেহভাজন হিসেবে  পুলিশ গ্রেফতার করেছিল কানাডায় পড়াশোনারত এই ব্যবসায়ীপুত্রকে। যদিও এরই মধ্যে তদন্ত সংশ্লিষ্টরা টরেন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ে খোঁজখবর নিয়েও তাহমিদের জঙ্গিবাদ সম্পৃক্ততার কোনো তথ্য পায়নি। তার সহপাঠীসহ বাংলাদেশি এবং অন্য দেশের ছাত্ররা বলেছেন, পড়াশোনার বাইরে তাহমিদ সংগীত নিয়েই ব্যস্ত সময় পার করতেন। ৫৪ ধারার অভিযোগের মামলায় ঢাকার মহানগর হাকিম আদালত থেকে জামিন নিয়ে তাহমিদ গত রবিবার কারাগার থেকে ছাড়া পান। হামলাকারীদের সঙ্গে ছবিতে আসা হাসনাত রেজাউল করিমকে মামলায় গ্রেফতার দেখানো হলেও একই ছবিতে থাকা তাহমিদকে অব্যাহতি দেওয়ায় বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠেছিল। তবে পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তাহমিদকে নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছে এবং ডাকলেই তাকে তদন্ত সংস্থার কাছে হাজিরা দিতে হবে। হলি আর্টিজানে হামলা চালিয়ে ১৭ বিদেশিসহ ২০ জিম্মিকে হত্যার ঘটনায় সন্ত্রাস দমন আইনে করা মামলাটি তদন্ত করছে পুলিশের নবগঠিত এই বিভাগ। গত ৩ আগস্ট তাহমিদের সঙ্গে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক হাসনাতকেও প্রথমে ৫৪ ধারায় গ্রেফতার করা হয়েছিল। পরে হাসনাতকে সন্ত্রাস দমন আইনের মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। গুলশান হামলায় তাহমিদের জড়িত থাকার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি জানিয়ে ৫৪ ধারার মামলা থেকে পুলিশ তাকে অব্যাহতি দিতে আবেদন করলে বুধবার তা মঞ্জুর করে আদালত। জঙ্গিদের সঙ্গে তাহমিদের ছবি আসার বিষয়ে পুলিশ কর্মকর্তা বলছেন, এই যুবক সেদিন ‘পরিস্থিতির শিকার’ হয়েছিলেন। তবে তাহমিদের বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে তথ্য গোপনের একটি অভিযোগ রয়েছে। ওই অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন আগামী ১৬ অক্টোবর পুলিশকে দিতে বলেছে আদালত।

মনিরুল বলেন, পুরো বিষয়টি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তার দেশের বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই, পাসপোর্ট আমাদের কাছে। তাছাড়া বিষয়টি এখনো তদন্তাধীন। তার ব্যাপারে সার্বক্ষণিক খোঁজখবর রাখা হচ্ছে। ডাকলেই যেন তদন্ত কর্মকর্তার কাছে আসে এ বিষয়টি তাকে বলে দেওয়া হয়েছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow