Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ৭ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৬ অক্টোবর, ২০১৬ ২২:৫৬
সোনা ফিরিয়ে দুবাইয়ে প্রশংসিত বাংলাদেশি লিটন
প্রতিদিন ডেস্ক

৩.৫ মিলিয়ন দিনার অর্থমূল্যের ২৫ কেজি সোনা ফিরিয়ে দিয়ে দুবাইয়ের গণমাধ্যমগুলোর আলোচনায় উঠে এসেছেন বাংলাদেশি নাগরিক লিটনচন্দ্র পাল নেপাল। রাতে দুবাই বিমানবন্দর থেকে দেইরার মুরাক্কাবায় চার যাত্রী পরিবহনের সময় ওই ঘটনাটি ঘটে।

যাত্রীদের রাত ২টা ৪৫ মিনিটে গন্তব্যে পৌঁছে দেন লিটন। লাগেজগুলো নামিয়ে দিতে চাইলেও যাত্রীরা তার সাহায্য নিতে অস্বীকৃতি জানান। তার ট্যাক্সিতে যে ২৫ কেজি সোনা আছে তা বুঝতে পারেন এর ৪০ মিনিট পর। লিটন বলেন, ‘তখনকার মতো আমার ডিউটি প্রায় শেষ। ওই সময় আরটিএর কাস্টমার সাপোর্ট থেকে ফোন পাই। আমার ট্যাক্সিতে কোনো যাত্রীর ব্যাগ আছে কিনা জানতে চায় দুবাই পুলিশ। বললাম, চেক করে দেখছি। পরে একটি ধূসর রঙের ল্যাপটপের ব্যাগ দেখতে পাই যার ভিতরে সোনার বারগুলো রাখা ছিল। তখনই কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানাই। পরে আরটিএর কাছে ব্যাগটি হস্তান্তর করি। ’ লিটন আরও বলেন, ‘ব্যাগের মধ্যে আটটি সোনার বার দেখে আমি আশ্চর্য হয়ে যাই। কর্তৃপক্ষ মাপ দেওয়ার পর দেখেন তাতে ২৫ কেজি সোনা আছে। সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ আমরা সোনার বারগুলো ফিরিয়ে দিই। সোনার মালিক লিবিয়ার নাগরিক। ’ তিনি কি সোনা ফিরে পাওয়ার পর আপনাকে পুরস্কৃত করেছেন? লিটন বলেন, ‘তিনি আমাকে বলেছেন, ‘থ্যাঙ্ক ইউ’। ’ ২০১০ সাল থেকে দুবাইয়ের সড়ক ও পরিবহন কর্তৃপক্ষের (আরটিএ) অধীনে দুবাই ট্যাক্সি করপোরেশনের (ডিটিসি) সঙ্গে যুক্ত লিটন। সোনার মালিক কিছু না দিলেও লিটনচন্দ্র পাল নেপালের এ সততা ও উদারতার স্বীকৃতি দিয়েছে আরটিএ। তিনি বলেন, ‘আমাদের প্রধান নির্বাহী ডা. ইউসুফ আল আরি আমাকে নগদ ১০০০ দিনার দিয়েছেন এবং এক বছরের জন্য আবাসন সুবিধা ফ্রি করে দিয়েছেন। আমাদের রেল যোগাযোগের প্রধান নির্বাহী আবুল মসহিন ইবরাহিম ইউনুস আমাকে ৫০০০ দিনার নগদ দিয়েছেন। আমাকে প্রশংসাপত্রও দেওয়া হয়েছে। ’ এখনো বিয়ে করেননি ওই বাংলাদেশি। তিনি বলেন, ‘এ ঘটনায় মা আমাকে দোয়া করেছেন। বলেছেন, আমি তাকে গর্বিত করেছি। আমার তিন বোনও এতে ভীষণ খুশি হয়েছে। ’

এই পাতার আরো খবর
up-arrow