Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১০ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৩৫
জিও পলিটিক্সের শিকার বিএনপি
---------মির্জা ফখরুল
নিজস্ব প্রতিবেদক
জিও পলিটিক্সের শিকার বিএনপি

বিএনপি ‘জিও পলিটিক্সে’র শিকার বলে দাবি করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, ‘২০১৪ সালে একটি জাতীয় ঐক্য গড়ে উঠেছিল।

  তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া কোনো নির্বাচনে না যাওয়া। ৫ জানুয়ারিকে কেন্দ্র করে একটা জাতীয় ঐক্য গড়ে উঠেছিল। এরশাদ ছাড়া কোনো রাজনৈতিক দল ওই নির্বাচনে যায়নি। কিন্তু আমাদের চূড়ান্ত বিজয় অর্জন সম্ভব হয়নি। সেদিন সারা দেশ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছিল, যদি আমরা ভূ-রাজনীতি অর্থাৎ জিও পলিটিক্সের শিকার না হতাম। ’

গতকাল বিকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে শহীদ নাজির উদ্দিন জেহাদের ২৬তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে এক স্মরণসভায় তিনি এ কথা বলেন। বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সাবেক ছাত্রনেতা আমান উল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে স্মরণসভায় আরও বক্তব্য দেন সাবেক ছাত্রনেতা হাবিবুর রহমান হাবিব, খায়রুল কবির খোকন, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, খন্দকার লুত্ফর রহমান, সাইফুদ্দিন মণি প্রমুখ। সকালে দৈনিক বাংলা মোড়ে শহীদ নাজির উদ্দিন জেহাদের স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান বিএনপি নেতারা। মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা যারা গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে বিশ্বাস করি, তাদের কাছে দেশের বর্তমান যে রাজনৈতিক পরিস্থিতি, তা অকল্পনীয়। আমরা গণতান্ত্রিক আন্দোলনে বিশ্বাস করি। গণতান্ত্রিক রীতি অনুযায়ী প্রতিবাদ করি। আমরা যা চাই তা বলতে চাই। এখন কিন্তু সেই ব্যবস্থা নেই। এখন যারা শাসন ক্ষমতায় আছেন তারা কিন্তু ?একটি ভিন্ন উদ্দেশ্য নিয়ে পরিচালনা করছেন। ’ তিনি বলেন, ‘আপনারা লক্ষ্য করে দেখবেন, শেখ হাসিনাকে এ দেশের শতকরা ৯০ ভাগ মানুষ পছন্দ করে না। আমরা বার বার বলছি, তিনি গণবিচ্ছিন্ন হয়ে গেছেন। কিন্তু বিস্ময়ের ব্যাপার, পৃথিবীতে যারা গণতন্ত্রের কথা বলেন, যারা গণতন্ত্রে চ্যাম্পিয়ন তারা কিন্তু তাকে খুব একটা অপছন্দ করছেন না। পাশের একটি দেশ, যারা গণতন্ত্রের পতাকা উঁচু করে তুলে ধরেছে তারাও কিন্তু তাকে সমর্থন দিয়ে চলেছে। এ বিষয়গুলো বুঝতে হবে। ’

দুদুর সংবাদ সম্মেলন : নয়াপল্টনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু এক সংবাদ সম্মেলনে ‘অসুস্থ’ রুহুল কবির রিজভীর সুচিকিৎসার জন্য অবিলম্বে মুক্তি চেয়েছেন। তিনি বলেন, ‘পরিবার থেকে আমরা জানতে পেরেছি, কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী পেটের অসুখসহ অন্যান্য জটিল রোগে ভুগছেন। আমরা অবিলম্বে রিজভীর সুচিকিৎসা ও তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগে দায়ের মামলাগুলো প্রত্যাহার করে মুক্তি দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি। ’ একই সঙ্গে বিএনপি নেতা আবদুস সালাম পিন্টু, অধ্যাপক এম এ মান্নান, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, আসলাম চৌধুরী, লুত্ফুজ্জামান বাবর, আমার দেশের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানসহ গ্রেফতার অন্য নেতাকর্মীরও মুক্তির দাবি জানান দুদু। বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আহমেদ আজম খান, হাবিবুর রহমান হাবিব, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, আজিজুল বারী হেলাল, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, আবদুস সালাম আজাদ, তাইফুল ইসলাম টিপু, মুনির হোসেন ও সাইফুল ইসলাম পটু এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow