Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৯ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:১৩
আইসিটি খাতে দেশ এখন রোল মডেল : জয়
নিজস্ব প্রতিবেদক
আইসিটি খাতে দেশ এখন রোল মডেল : জয়

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, বিশ্বের কাছে আইসিটি খাতে (তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি) বাংলাদেশ এখন রোল মডেল। গত আট বছরে এ খাতে আমাদের যুগান্তকারী পরিবর্তন এসেছে। কয়েক বছর ধরে সরকারি ও বেসরকারি কোম্পানিগুলোর সঙ্গে একত্রে আমরা এ খাতের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে আমরা বেশ কয়েকবার পুরস্কৃতও হয়েছি। গতকাল রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি, বসুন্ধরায় ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড সম্মেলনে সজীব ওয়াজেদ জয় এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্য অংশগ্রহণকারী দেশের মন্ত্রীরাও অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন। এদের মধ্যে ছিলেন ভুটানের তথ্য ও যোগাযোগমন্ত্রী লিএনপো দিয়ান, মালদ্বীপের অর্থমন্ত্রী ও তথ্য প্রযুক্তি খাতের দায়িত্বপ্রাপ্ত মো. আসমালে, বাংলাদেশের তথ্য ও  যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক, সৌদি আরবের পরিকল্পনা, উন্নয়ন, যোগাযোগ ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপমন্ত্রী ড. খালেদ বিন ফারেজ আল ওতায়বি, নেপালের তথ্য ও যোগাযোগ মন্ত্রী সুরেন্দ্র কুমার কারকি, সুরিনামের পরিবহন, যোগাযোগ ও পর্যটন বিষয়ক মন্ত্রী আন্দেজো রোসলান এবং ভিয়েতনামের তথ্য ও যোগাযোগ বিষয়ক ভাইস মিনিস্টার ওয়াং মিন বাও। সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, আমাদের সরকার ১৩টি সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে, সরকারি সেবা সংস্থাগুলো ডিজিটালাইজেশনের আওতায় আনা। স্বল্প সময়ের মধ্যে আমাদের দুই মিলিয়ন মানুষ আইটি খাতে কাজ করবে বলে আমরা আশাবাদী। আগামী দুই বছরের মধ্যে আমরা এক  বিলিয়ন ডলারের আইটি পণ্য রপ্তানি করতে চাই। তিনি বলেন, আমাদের দারিদ্র্যের হার কমেছে। বেড়েছে বিদ্যুৎ গ্রাহকের সংখ্যা। মোট জনসংখ্যার ৪০ ভাগই ইন্টারনেট ব্যবহার করেন। আর বর্তমানে মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৩০ মিলিয়নের বেশি। ২০ মিলিয়নের বেশি মানুষ ই-সার্ভিস ব্যবহার করছেন। এ ছাড়া ২০০টির বেশি সরকারি সেবা সংস্থা ডিজিটালাইজ। তিনি আরও বলেন, দেশে ৯০ মিলিয়ন স্মার্ট আইডি কার্ড বিতরণ করা হচ্ছে এবং ২ মিলিয়ন ই-টিআইএন কার্ড ইস্যু করা হয়েছে। ৫ হাজারের বেশি ডিজিটাল সেন্টার তৈরি করা হয়েছে। আমরা পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ই-গভর্নেন্ট পোর্টাল তৈরি করেছি। যেখানে প্রয়োজনীয় সরকারি তথ্য পাওয়া যায়। এখন আমাদের স্যাটেলাইট তৈরির কাজ চলছে। আশা করছি ২০১৭ সালে এটি মহাকাশে থাকবে। সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, সরকারি সেবার জন্য আমরা একটি ন্যাশনাল হেল্প ডেস্ক তৈরি করতে চাচ্ছি। এ ছাড়া আইসিটি খাতে দক্ষ করে গড়ে তুলতে শিক্ষাজীবন থেকেই শিক্ষার্থীদের আমরা বিশেষ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নিয়েছি। আমাদের এক হাজারের বেশি আইটি সংক্রান্ত কোম্পানি আছে। এদের অনেকেই এখন দেশের বাইরেও সুনাম অর্জন করেছে। তিনি বলেন, দেশে ই-কমার্স সার্ভিসও দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে। তবে তথ্য প্রযুক্তির উন্নয়নের কাজে শুধু সরকারের সহযোগিতার ওপর নির্ভর না করে আমরা বেসরকারি খাতেরও সহযোগিতা নিচ্ছি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow